কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


‘স্বপ্নের ঠিকানা’য় পাকুন্দিয়ার ৪১ ভূমিহীন


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ২৩ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ৬:১৮ | পাকুন্দিয়া  


‘নিজের ঘর ছিল না। জায়গা-জমিও নেই। আরেক জনের বাড়িতে থাকতাম। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমারে ঘর দিছে। ঘর পেয়ে আমি অনেক খুশি। এহন থেকে ওই ঘরে নামাজ পড়তে পারব। নামাজ পড়ে শেখ হাসিনার জন্য দোয়া করব। আল্লাহ যেন তাকে ভালো রাখে।’

ঘর পেয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে এভাবেই নিজের অনুভূতি জানাচ্ছিলেন বানেছা খাতুন নামের এক নারী। তারই মতো কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার ৪১ জন ভূমিহীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ উপহার হিসেবে ঘর পেয়েছেন।

শনিবার (২৩ জানুয়ারি) আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের প্রত্যেকের হাতে দুই শতক জমির দলিলসহ স্বপ্নের ঘরের দাবি তুলে দেওয়া হয়।

উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পরিষদ সভাকক্ষে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাদের হাতে জমির দলিল ও ঘরের চাবি তুলে দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নাহিদ হাসান।

এর আগে শনিবার (২৩ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টায় মুজিববর্ষ উপলক্ষে ঢাকার গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারাদেশে ৬৬ হাজার ১৮৯টি ঘর বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যা উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে বড় পর্দায় দেখানো হয়।

পরে আনুষ্ঠানিকভাবে উপজেলার ৪১টি ভূমিহীন পরিবারকে জমির দলিল ও চাবি তুলে দেয়া হয়।

এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নাহিদ হাসান, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) একেএম লুৎফর রহমান, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. রওশন করিম, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজবাহ উদ্দিন, পাকুন্দিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আফছর উদ্দিন আহম্মদ, জাঙ্গালিয়া ইউপি চেয়ারম্যন সরকার শামীম আহমেদ, চণ্ডিপাশা ইউপি চেয়ারম্যান মো. শামছুদ্দিন, হোসেন্দী ইউপি চেয়ারম্যান মজিবুর রহমান হামদু, সুখিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল হামিদ টিটুসহ উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় মুজিবর্ষ উপলক্ষে পাকুন্দিয়া উপজেলার ৪১টি ভূমিহীন পরিবারকে ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে পাকুন্দিয়া পৌর এলাকায় ১৪টি, হোসেন্দী ইউনিয়নে ৫টি, নারান্দী ইউনিয়নে ৫টি ও সুখিয়া ইউনিয়নে ১৭টি ঘর রয়েছে।

দুই কক্ষ বিশিষ্ট সেমিপাকা প্রতিটি ঘর নির্মাণে বরাদ্দ ছিল এক লাখ ৭১ হাজার টাকা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর