কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


অটোরিকশা ছিনতাইয়ে বাধা দেয়ায় খুন হয় পরান, দুই ঘাতকের স্বীকারোক্তি


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২৫ অক্টোবর ২০২০, রবিবার, ৭:৫১ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জে অটোরিকশা ছিনতাইয়ে বাধা হয়ে দাঁড়ানোয় তিন ছিনতাইকারী মোহাম্মদ আলী (১৯), আলম (২২) ও শরীফ (১৭) মিলে অটোরিকশা চালক পরান (১৮) কে জাপটে ধরে ঘায়েল করার চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে মোহাম্মদ আলী তার কাছে থাকা চাকু চালিয়ে দেয় পরানের গলায়।

এতে পরানের গলা কেটে ফিনকি দিয়ে রক্ত বের হতে থাকে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় পরানকে সড়কে ফেলে রেখে তার অটোরিকশাটি নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় পরানের আর্তচিৎকারে এলাকাবাসী এবং টহল পুলিশের টিম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ছিনতাইচক্রের সদস্য শরীফকে অটোরিকশাটিসহ আটক করলেও অপর দুই ছিনতাইকারী মোহাম্মদ আলী ও আলম পালিয়ে যায়।

গত ২০ অক্টোবর (মঙ্গলবার) রাত ৮টার দিকে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার সগড়া বিশ্বরোড এলাকায় এই ঘটনার পর পরই মুমূর্ষু অবস্থায় পরানকে উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত অটোরিকশা চালক পরান কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার রশিদাবাদ ইউনিয়নের লতিফপুর কসাই বাড়ির ইদ্রিছ আলীর ছেলে।

এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জড়িত অপর দুই ছিনতাইকারী মোহাম্মদ আলী ও আলমকে ধরতে অভিযানে নামে পুলিশ। শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) বিকালে জেলার কটিয়াদী উপজেলার ধূলদিয়া নতুন বাজার এলাকায় পরিচালিত এক অভিযানে মোহাম্মদ আলী ধরা পড়ে পুলিশের জালে।

পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়া দুই ছিনতাইকারী শরীফ ও মোহাম্মদ আলী আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়ে এই হত্যাকাণ্ডের বিস্তারিত বিবরণ দিয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মিজানুর রহমান তাদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, গ্রেপ্তার হওয়া দুই ছিনতাইকারীর মধ্যে মোহাম্মদ আলী (১৯) একজন পেশাদার ছিনতাইকারী। জেলার কটিয়াদী উপজেলার ধূলদিয়া গ্রামের ফজলু মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপরাধে অন্তত ৫টি মামলা রয়েছে।

সম্প্রতি সে চট্টগ্রামের ডাবলমুরিং থানার মোগলটুলী এলাকায় গিয়ে ফল বিক্রি শুরু করে। তার সঙ্গে একই বাসায় ভাড়া থেকে শরীফ মুরগীর দোকানে কাজ করতো। অন্যদিকে আলম ধূলদিয়া এলাকার কিনার মিয়ার ছেলে ও মোহাম্মদ আলীর অপকর্মের সঙ্গী।

অটোরিকশা ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা থেকে আলম চট্টগ্রামে থাকা মোহাম্মদ আলীকে ফোন করে। আলমের ফোন পেয়ে মোহাম্মদ আলী তার রুমমেট শরীফকে নিয়ে গত ১৯ অক্টোবর (সোমবার) রাতে চট্টগ্রাম থেকে রওনা হয়।

পরদিন ২০ অক্টোবর (মঙ্গলবার) সকালে বাড়িতে পৌঁছে সারাদিন বিশ্রাম ও ঘুরাফেরা করে সন্ধ্যায় তিনজনে মিলে কিশোরগঞ্জ শহরে আসে। ছিনতাইয়ের অস্ত্র হিসেবে ব্যবহারের জন্য বটতলার ফুটপাত থেকে মোহাম্মদ আলী চাকু কিনে।

পরে বটতলায় অটোরিকশা নিয়ে যাত্রীর জন্য অপেক্ষায় থাকা পরানের অটোরিকশাটিকে তারা টার্গেট করে। বটতলা থেকে সগড়া যাওয়ার জন্য ৫০ টাকায় পরানের অটোরিকশাটিকে রিজার্ভ ভাড়া নিয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সেটিতে ওঠে তারা। পরানে পাশের সিটে আলম এবং মোহাম্মদ আলী ও শরীফ পিছনের সিটে বসে।

বেইলী ব্রিজের দিকে যাওয়ার সময় ফাঁকা জায়গায় পরানের পাশে বসা আলম অটোরিকশার চাবি নিয়ে নেয়। পরান ছিনতাইচক্রের খপ্পড়ে পড়েছে বুঝতে পেরে আলমের সাথে ধস্তাধস্তি শুরু করে।

পরে শরীফ ও মোহাম্মদ আলী এসে ধস্তাধস্তিতে যোগ দেয়। এ সময় ধস্তাধস্তিতে না পেরে মোহাম্মদ আলী চাকু বের করে পরানের গলায় চাকু চালিয়ে দেয়।

ঘটনাস্থল থেকে গ্রেপ্তারের পর শরীফ গত বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) এবং শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) বিকালে গ্রেপ্তারের পর মোহাম্মদ আলী শনিবার (২৪ অক্টোবর) আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিক পিপিএম জানান, এ ঘটনায় নিহত অটোরিকশা চালক পরানের পিতা ইদ্রিছ আলী বাদী হয়ে গত ২১ অক্টোবর (বুধবার) তিনজনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। পলাতক থাকা অপর আসামি আলমকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর