কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ফার্স্ট লেডি মাকে রাষ্ট্রপতি পিতার স্বপ্নের সড়ক গাড়িতে করে ঘুরে দেখালেন এমপি তৌফিক


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১১:৫৬ | এক্সক্লুসিভ 


রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ হাওরের নিজ এলাকা সফরে এসে গাড়ি কিংবা অটোরিকশায় চড়লে চালকের আসনে বসেন বড় ছেলে কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক। সর্বশেষ সফরে গত ২০ জুলাই নিজের স্বপ্নের প্রকল্প অলওয়েদার সড়ক ঘুরে দেখেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। পুলিশের গাড়িতে চড়ে অলওয়েদার সড়ক ঘুরে দেখার সময় রাষ্ট্রপতির গাড়িচালক ছিলেন ছেলে এমপি তৌফিক।

‘হাওরের বিস্ময়’ হিসেবে পরিচিতি পাওয়া রাষ্ট্রপতির স্বপ্নের এই সড়ক বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) ঘুরে দেখেছেন ফার্স্ট লেডি মিসেস রাশিদা হামিদ। রাষ্ট্রপতি পিতার পর এবার ফার্স্ট লেডি মায়ের গাড়িচালকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন হাওর উন্নয়নের অন্যতম রূপকার বড় ছেলে সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক। এমপি ছেলের পাশে বসে অবাক বিস্ময়ে হাওরের নৈসর্গিক রূপ উপভোগ করেন ফার্স্ট লেডি মিসেস রাশিদা হামিদ।

এদিন বিকালে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে হাওরবাসীর স্বপ্নপূরণের বিস্ময়কর সড়কটি ভ্রমণ করেন ফার্স্ট লেডি মিসেস রাশিদা হামিদ।

শুধুই কি ঘুরে দেখেছেন! হাওরের বুক চিরে বয়ে চলা নান্দনিক এই সড়কে অংশ নিয়েছেন ফটোসেশনে। ছেলে এমপি তৌফিক ছাড়াও পরিবারের অন্যদের সাথে গ্রুপ ফটোসেশনের মাধ্যমে সমৃদ্ধ করেছেন পারিবারিক অ্যালবাম।

রত্নগর্ভা ফার্স্ট লেডি মিসেস রাশিদা হামিদ পারিবারিক আবহে ‘হাওরের বিস্ময়’ সড়ক ভ্রমণে হন আপ্লুত। অভিভূত ফার্স্ট লেডি যেন এমন একটি দিনের জন্যই অপেক্ষা করছিলেন এতোদিন। কেননা রাষ্ট্রপতির সব স্বপ্ন পূরণের পথেই যে রয়েছে তাঁর শ্রম-ঘাম, শক্তি-সাহস আর অনুপ্রেরণা।

রাষ্ট্রপতির স্বপ্নের এই নান্দনিক সড়ককেই ঘিরে এখন হাওরে উন্মোচিত হয়েছে পর্যটন সম্ভাবনার এক নতুন দিগন্ত। সড়কটি নির্মাণের স্বপ্ন দেখেছিলেন ‘ভাটির শার্দুল’ রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। তাঁর হাত ধরেই হাওরের বিশাল জলরাশির বুকচিরে বাস্তবায়িত হয়েছে ৩৫ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটি।

তিন উপজেলা ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রামের মধ্যে সরাসরি সড়ক যোগাযোগের জন্য তৈরি করা নান্দনিক এই সড়কটি এখন হয়ে ওঠেছে সৌন্দর্য্যের এক দুর্নিবার আকর্ষণের নাম। সড়কটি দেখতে দেশের নানা প্রান্ত থেকে ছুটে আসছেন সৌন্দর্য্য আর ভ্রমণপিপাসুরা। হাজারো পর্যটকের পদচারণায় এখন মুখরিত হাওরের একসময়ের অবহেলিত আর প্রত্যন্ত এই জনপদ।

বাংলাদেশের কোথাও হাওরের মাঝখানে এত দীর্ঘ সড়ক নেই। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এঁর স্বপ্নের অলওয়েদার সড়কটি দেখতে ভিড় করছেন। রাস্তার দু’পাশে থৈ থৈ পানি, আকাশে সাদা মেঘের ভেলা। মেঘ আর জলের এই মনোরম মিতালির সামনে বিস্ময় নিয়ে তাকিয়ে থাকা।

সড়কের পাশে বসে বুকভরে নির্মল বাতাস উপভোগ আর হাওরের অপরূপ সৌন্দর্য দেখে ক্ষণিকের জন্য পর্যটকদের হারিয়ে যায় মন। হাওরের সৌন্দর্য উপভোগ করতে আসা হাজারো পর্যটক আর এলাকাবাসীর কাছে এ যেন অপার সৌন্দর্য্যের এক লীলাভূমি।

দিগন্ত বিস্তৃত এ সড়ককে ঘিরে দুঃখ ঘুচেছে হাওরবাসীর। ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম সড়ক নির্মাণের ফলে হাজারো মানুষের ভাগ্যের চাকা ঘুরেছে। বর্ষায় কর্মহীন অনেক মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটেছে। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে লাভবান হয়েছেন এসব উপজেলার মানুষ।

হাওরের বুকচিরে নির্মিত দীর্ঘ নান্দনিক সড়ক দেখতে হাজারো মানুষ ভিড় করেন। ফলে এলাকায় ক্ষুদ্র দোকানি, রেঁস্তোরা মালিক, নৌকার মাঝি, নসিমন-করিমন-লেগুনা-অটোরিকশা-মিশুকের চালক মিলিয়ে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য মানুষের।

জানা গেছে, জেলার হাওরাঞ্চল ইটনা-মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম উপজেলায় সরাসরি সড়ক যোগাযোগের জন্য ২০১৫ সাল থেকে ২০২০ সালের জুন মেয়াদে অলওয়েদার সড়কটি নির্মিত হয়েছে। ৮৭৪ কোটি ৮ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সড়ক বদলে দিয়েছে হাওরের দৃশ্যপট। অভূতপূর্ব উন্নতি হয়েছে সেখানকার আর্থসামাজিক অবস্থার।

একটি মাত্র সড়ক যেভাবে একটি জনপদের অর্থনৈতিক অবস্থা বদলে দিচ্ছে তা বিষ্ময়কর। দিগন্তবিস্তৃত জলরাশি, নয়নাভিরাম সড়ক ও হাওরের অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখতে দেশের নানা প্রান্ত থেকে পর্যটকদের ঢল নামে সেখানে। হাওর উপজেলা ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম এখন পরিণত হয়েছে পর্যটকদের তীর্থক্ষেত্রে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর