কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কটিয়াদীতে হামলায় আহত ব্যক্তির মৃত্যু, গ্রেপ্তার ৩


 মো. রফিকুল হায়দার টিটু, কটিয়াদী | ৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, শনিবার, ৩:৫০ | কটিয়াদী 


কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের উত্তর বাট্টা গ্রামে প্রতিপক্ষের হামলায় গুরুতর আহত মুকসুদ মিয়া (৬৫) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। শুক্রবার (৪ সেপ্টেম্বর) রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মারা যান।

নিহত মুকসুদ মিয়া উত্তর বাট্টা গ্রামের মৃত সেতু মিয়ার পুত্র। গত বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় তিনি গুরুতর আহত হয়েছিলেন।

গত বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে বাট্টা পুলিশ ফাঁড়িতে সালিশ দরবার হয়। প্রতিপক্ষ সেলিম মিয়া সালিশ দরবার অমান্য করে বাড়ির সামনে পরিকল্পিত ভাবে মুকসুদ মিয়ার ওপর হামলা চালায়।

এ ঘটনায় সেলিম মিয়া (৩০), তার পিতা হামদু মিয়া (৬৫) ও আতিক মিয়া (২২) নামে তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে। শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) গ্রেপ্তারকৃত তিনজনকে কিশোরগঞ্জের আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

জানা যায়, উত্তর বাট্টা গ্রামের মুকসুদ মিয়ার ২৫ শতাংশের একটি পৈত্রিক জমি জবর দখলের চেষ্টা করে একই গ্রামের হামদু মিয়ার পুত্র সেলিম মিয়া।

সেলিম মিয়া ৪-৫ বছর পূর্বে বাড়ি থেকে অভিমান করে চট্টগ্রাম চলে যায়। সেখানে কিছু দিন রিকশা এবং সিএনজি অটোরিকশা চালায়। কিন্তু হঠাৎ করে বিপুল অর্থ বিত্তের মালিক বনে যায় সে।

গত ৩-৪ বছর যাবত চট্টগ্রাম থেকে সে গাড়ি হাকিয়ে বাড়ি আসে। গত দুই বছরে বাড়িতে অন্তত কোটি টাকার সম্পদ ক্রয় করে। চট্টগ্রামেও বহুতল ভবনের মালিক বলে এলাকায় চাউর আছে।

ইদানিং এলাকায় প্রভাব বিস্তার, জোর জবরদস্তি তার নেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ফলে এলাকায় ব্যাপক সমালোচনার ঝড় ওঠে। অল্প দিনের ব্যবধানে কি করে এত টাকার মালিক বনে যায়, এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক গুঞ্জনও আছে।

এ রকম পরিস্থিতিতে সেলিম মিয়া প্রতিপক্ষ মুকসুদ মিয়ার ২৫ শতাংশের জমিটি দখলের পাঁয়তারা শুরু করে। তার অর্থবিত্তের প্রভাবে অসহায় মুকসুদ মিয়া বাট্টা ফাঁড়ির পুলিশের শরণাপন্ন হলে গত বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) উভয় পক্ষকে তাদের দলিলপত্রাদি নিয়ে উপস্থিত থাকার জন্য বলা হয়।

কিন্তু সেলিম মিয়া কৌশলে গত বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) কিশোরগঞ্জের আদালতে একটি বাটোয়ারা মামলা দায়ের করে এবং সালিশে জানায়, বিষয়টি আদালতে বিচারাধীন আছে। পরে সালিশ অমান্য করে সেলিম মিয়া চলে যায়।

সালিশ থেকে বাড়িতে ফিরে সেলিম মিয়া তার বাড়ির সামনে পরিকল্পিত ভাবে দেশীয় ধারালো অস্ত্র নিয়ে মুকসুদ মিয়ার ওপর হামলার প্রস্তুতি নেয়। মুকসুদ মিয়া তার সাক্ষীদের নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে সেলিম মিয়ার বাড়ির সামনে আসা মাত্রই সেলিম মিয়া গং ধারালো অস্ত্র নিয়ে তাদের ওপর ঝাপিয়ে পড়ে।

এ সময় তারা মুকসুদ মিয়াকে কুপিয়ে মারাত্মক ভাবে জখম করে। এ ঘটনায় তার কয়েকজন সাক্ষীও মারাত্মক ভাবে জখম হয়।

সংবাদ পেয়ে ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে জখমীদেরকে উদ্ধার ও চিকিৎসার জন্য বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। মুকসুদ মিয়ার অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

এছাড়া পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে অভিযুক্ত সেলিম মিয়া, তার পিতা হামদু মিয়া ও নাদিম মিয়ার ছেলে আতিক মিয়াকে গ্রেপ্তার করে।

বাট্টা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সুমন সরকার জানান, সংবাদ পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার ও একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। যেহেতু মুকসুদ মিয়ার চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে কাজেই মামলাটি এখন হত্যা মামলা হিসাবে বিচার প্রক্রিয়ায় নেয়া হবে।

কটিয়াদী থানার ওসি এমএ জলিল বলেন, হামলার ঘটনায় নিহত মুকসুদ মিয়ার স্ত্রী আনোয়ারা বেগম বাদী হয়ে এগার জনকে আসামি করে অভিযোগ দায়ের করেন। মামলাটি এখন হত্যা মামলা হিসাবে আমলে নেয়া হবে। গ্রেপ্তারকৃতদেরকে কিশোরগঞ্জ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর