কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কটিয়াদীতে হুইল চেয়ার পেয়েছে প্রতিবন্ধী দুই শিশু শিক্ষার্থী


 মো. রফিকুল হায়দার টিটু, কটিয়াদী | ২ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার, ৭:১৭ | কটিয়াদী 


কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে শারীরিক প্রতিবন্ধী দুই শিশু শিক্ষার্থীকে হুইল চেয়ার দেয়া হয়েছে। বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা. আকতারুন নেছা তার কার্যালয়ে দুই শিশু শিক্ষার্থীকে হুইল চেয়ার প্রদান করেন।

হুইল চেয়ার পাওয়া দুই শিক্ষার্থী হচ্ছে বাগরাইট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্র তামিম (১০) এবং শিমুলকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র হাসেন মিয়া (১১)।

উপজেলা শিক্ষা অফিস থেকে তাদের এই দুটি হুইল চেয়ার দেয়া হয়েছে।

হুইল চেয়ার প্রদানের সময় উপজেলা শিক্ষা অফিসার সৈয়দ আহমেদ, দুটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক এবং প্রতিবন্ধী শিশু শিক্ষার্থীদের পিতামাতা উপস্থিত ছিলেন।

তামিমের পিতা গ্রামের ক্ষুদ্র মুদি দোকানি মঈন উদ্দিন জানান, জন্মের পর যে বয়স থেকে সন্তান দাঁড়ানো বা হাঁটা শিখার কথা তামিমের বেলায় এমনটি ছিল না। দুতিন বছর বয়স থেকেই সে দাঁড়াতে পারছিল না। সাধ্যমত ডাক্তার দেখিয়েছেন তারা।

ডাক্তার জানিয়েছেন, অপুষ্টির কারণে তামিমের এ অবস্থা হয়েছে। তার বয়স এখন দশ বছর। কিন্তু সে ভাল করে দাঁড়াতে পারে না। তবুও সে স্কুল যেতে চায়। তার মা প্রতিদিন কোলে করে স্কুলে নিয়ে যায়।

প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী হাসেন মিয়ার পিতা রহমত উল্লাহ একজন রিকশাচালক। তার তিন সন্তান।  জমজ সন্তানের একজন হাসেন মিয়া। জমজ দুই সন্তানের মধ্যে মেয়ে সন্তানটি সুস্থ আছে। কিন্তু হাসেন মিয়া স্বাভাবিকভাবে চলা ফেরা করতে পারে না।

রহমত উল্লাহ বলেন, ছেলেকে ডাক্তার দেখিয়েছি। গরীব মানুষ চিকিৎসা করাতে অনেক টাকা প্রয়োজন। সে ভাবে চিকিৎসাও করাতে পারিনি। স্বাভাবিকভাবে চলতে না পারলেও সে স্কুলে যেতে চায়। প্রতিদিন আমার রিকশা দিয়ে স্কুলে আনা নেয়া করি।

প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী তামিম ও হাসেন মিয়া হুইল চেয়ার পেয়ে খুশি। তারা এখন হুইল চেয়ারে নিজে নিজে স্কুলে যেতে পারবে।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার সৈয়দ আহমেদ জানান, উপজেলায় প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীর মধ্যে শারীরিক প্রতিবন্ধী এরা দুজনই। তারা যেহেতু স্কুলে আসতে চায় এবং করোনা সংক্রমণ শুরুর আগে স্কুল চলাকালীন নিয়মিত স্কুলে আসতো তাই সরকারি বরাদ্দ থেকে তাদের জন্য হুইল চেয়ারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা. আকতারুন নেছা বলেন, প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সুযোগ সুবিধার ব্যবস্থা সব সময় করা হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর