কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে নতুন করে ১৪ জনের করোনা, আরো একজনের মৃত্যু, সুস্থ ২৭


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ৭ জুলাই ২০২০, মঙ্গলবার, ১০:৫৬ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জে সর্বশেষ মঙ্গলবার (৭ জুলাই) দিবাগত রাতে পাওয়া নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে জেলায় নতুন করে ১৪ জনের করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। নতুন করে আরো ২৭ জন সুস্থ হয়েছেন। এছাড়া সর্বশেষ ২৪ ঘন্টায় আরো একজনের মৃত্যু হয়েছে।

ফলে এ পর্যন্ত জেলার ১৩ উপজেলায় এক হাজার ৬৬০ জনের শরীরে ধরা পড়েছে করোনা। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৩১৫ জন। এছাড়া করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মোট ২৯ জন মারা গেছেন।

সর্বশেষ মারা যাওয়া ব্যক্তি কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার। তার নাম হাবিবউল্লাহ হাবিব। তিনি সদর মডেল থানা সংলগ্ন নাসরীন হোমিও হলের মালিক।

হাবিবউল্লাহ হাবিব শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার (৭ জুলাই) দুপুর ২টার দিকে মারা যান।

গত ৫ জুলাই করোনা পজেটিভ শনাক্ত হওয়ার পর ওইদিনই তাকে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়েছিল।

মঙ্গলবার (৭ জুলাই) দিবাগত রাতে পাওয়া নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে জেলায় নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া ১৪ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৪ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ১ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ২ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৩ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ২ জন ও বাজিতপুর উপজেলায় ২ জন রয়েছেন।

অন্যদিকে নতুন করে জেলায় ২৭ জন করোনাভাইরাস মুক্ত হয়ে সুস্থ হয়েছেন।

নতুন সুস্থ হওয়া এই ২৭ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ৫ জন, করিমগঞ্জ উপজেলার ২ জন, কটিয়াদী উপজেলার ৩ জন, ভৈরব উপজেলার ২ জন, নিকলী উপজেলার ২ জন, বাজিতপুর উপজেলার ৪ জন, ইটনা উপজেলার ৩ জন ও মিঠামইন উপজেলার সর্বোচ্চ ৬ জন রয়েছেন।

শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রি-আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তিকৃত জরুরী রোগীসহ রোববার (৫ জুলাই), সোমবার (৬ জুলাই) ও মঙ্গলবার (৭ জুলাই) সংগৃহীত ১৫৪ জনের নমুনা কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে এবং বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে সোমবার (৬ জুলাই) সংগৃহীত ১৭ জনের নমুনা আইসিডিডিআরবি’তে পরীক্ষা করা হয়।

দুইটি ল্যাবে মোট ১৭১ জনের নমুনা পরীক্ষা করে নতুন করে ১৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

সোমবার (৬ জুলাই) পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ জেলায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা ছিল ১৬৪৬ জন। মঙ্গলবার (৭ জুলাই) নতুন করে আরো ১৪ জনের করোনা শনাক্ত হওয়ায় বর্তমানে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৬৬০ জনে।

এদিকে জেলায় করোনাভাইরাস থেকে নতুন করে ২৭ জন সুস্থ হয়েছেন। এর আগে জেলায় সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ছিল ১২৮৮ জন। ফলে সুস্থ হওয়ার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩১৫ জন।

বর্তমানে অন্য জেলায় শনাক্তকৃত ১ জন করোনা পজেটিভসহ জেলায় মোট ৩১৭ জন করোনা রোগী এবং ১৪ জন সাসপেক্টটেড/নেগেটিভ বিভিন্ন হাসপাতাল ও নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে রয়েছেন।

এর মধ্যে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসিইউতে তিনজন কোভিড-১৯ পজেটিভ রোগী ভর্তি রয়েছেন।

মঙ্গলবার (৭ জুলাই) দিবাগত রাত ১০টার দিকে কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান কিশোরগঞ্জ নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান জানান, প্রকাশিত ১৭১ জনের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে নতুন করে ১৪ জনের পজেটিভ ও ১৫৫ জনের নেগেটিভ এসেছে। এছাড়া পুরাতন পজেটিভ একজনের আবারও পজেটিভ এবং অন্য জেলার একজনের পজেটিভ এসেছে।

ফলে মঙ্গলবার (৭ জুলাই) পর্যন্ত পাওয়া নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী কিশোরগঞ্জ জেলায় মোট ১৬৬০ জনের করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

উপজেলাওয়ারী হিসাবে, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ৩৭৯ জন, হোসেনপুর উপজেলার ৩৬ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ১১১ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৭৯ জন, পাকুন্দিয়ায় উপজেলায় ৭৮ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১০১ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ১০৩ জন, ভৈরব উপজেলায় ৫২৭ জন, নিকলী উপজেলায় ৩১ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১৩৭ জন, ইটনা উপজেলায় ২৯ জন, মিঠামইন উপজেলায় ৩৭ জন ও অষ্টগ্রাম উপজেলায় ১২ জন এ পর্যন্ত করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছেন।

তাদের মধ্যে ২৯ জন মৃত ব্যক্তি রয়েছেন। উপজেলাওয়ারী হিসেবে, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ৬ জন, হোসেনপুর উপজেলার ১ জন, করিমগঞ্জ উপজেলার ২ জন, তাড়াইল উপজেলার ১ জন, কটিয়াদী উপজেলার ১ জন, কুলিয়ারচর উপজেলার ১ জন, ভৈরব উপজেলার ১২ জন, নিকলী উপজেলার ২ জন, বাজিতপুর উপজেলার ২ জন ও মিঠামইন উপজেলার ১ জন মৃত ব্যক্তি রয়েছেন।

সুস্থ ও মৃত ব্যক্তিদের বাদ দিয়ে বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৩১৬ জন। উপজেলাওয়ারী হিসাবে, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ৯৭ জন, হোসেনপুর উপজেলার ৯ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ১৪ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৩ জন, পাকুন্দিয়ায় উপজেলায় ১৮ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৪০ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ১৬ জন, ভৈরব উপজেলায় ৬২ জন, নিকলী উপজেলায় ৭ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ৪০ জন, ইটনা উপজেলায় ১ জন, মিঠামইন উপজেলায় ১ জন ও অষ্টগ্রাম উপজেলায় ৮ জন বর্তমানে করোনাভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তি রয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর