কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শোলাকিয়ার লড়াকু মুর্শেদ


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ৭ জুলাই ২০২০, মঙ্গলবার, ১:১৬ | বিশেষ সংবাদ 


২০১৬ সালের ৭ জুলাই ছিল ঈদুল ফিতরের দিন। সকাল পৌনে ৯টার দিকে আক্রান্ত হয় শোলাকিয়ার সবুজবাগ মোড় পুলিশ চেকপোস্ট। তল্লাসির মুখে পড়ে চাপাতি ও বোমা নিয়ে পুলিশের ওপর হামলে পড়ে জঙ্গি আবির ও শরীফুল। এ সময় জীবন তুচ্ছ করে প্রথম প্রতিরোধ গড়েন চেকপোস্টের দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরা।

জঙ্গিদের এই হামলায় চেকপোস্টে দায়িত্ব পালনকারী ১৪ পুলিশ সদস্য আহত হন। তাদের মধ্যে মারা যান দুই পুলিশ সদস্য জহিরুল ইসলাম তপু ও আনসারুল হক। কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে কনস্টেবল জহিরুল ইসলাম তপু মারা যান। এছাড়া কনস্টেবল আনসারুল হককে ময়মনসিংহ সিএমএইচে নেয়ার পর ওইদিনই দুপুরে সেখানে তার মৃত্যু হয়।

জঙ্গি এই হামলার পর হামলাকারীদের ধরতে তাৎক্ষণিক অভিযানে নামে পুলিশ। অসীম সাহসিকতার সাথে চেকপোস্টেই তারা জঙ্গিদের রুখে দেন। জীবনবাজি রেখে পুলিশের প্রায় দুই ঘন্টার অভিযান নির্বিঘ্ন করে শোলাকিয়ার ঈদজামাত।

শোলাকিয়ায় জঙ্গিদের হামলা শুরুর পর পুলিশের এই অভিযানের বেশ কিছু ভিডিও এবং ছবি ছড়িয়ে পড়ে ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এর মধ্যে এক মিনিট পাঁচ সেকেন্ডের একটি ভিডিও তখন ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

ভিডিওটিতে দেখা যায়, ছয়জন বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট ও হেলমেট পরা পুলিশ সদস্যকে পেছনে রেখে নীল পাঞ্জাবি ও জিন্স প্যান্ট পরিহিত এক পুলিশ কর্মকর্তা চায়নজি রাইফেল হাতে ঘটনাস্থলের মুফতি মোহাম্মদ আলী (রহ.) জামে মসজিদ অতিক্রম করছেন।

তিনজন পুলিশ সদস্যকে কাভারে রেখে মসজিদের পরের বাসাটির গেইটের সীমানা প্রাচীরকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে সন্ত্রাসীদের উদ্দেশ্যে একের পর এক গুলি ছুড়ছেন। গেইটের ভেতরে কিছুটা ঝুঁকে তাকে টার্গেট করে ছোঁড়া সন্ত্রাসীদের পাল্টা গুলি থেকে গা বাঁচাচ্ছেন।

এর মধ্যে কয়েকটি গুলি বিপজ্জনকভাবে তার সামনে এসে পড়ে। এরপরও ঝুঁকি নিয়ে তিনি সমানে চালিয়ে যান এই বন্দুকযুদ্ধ।

ভিডিওটির শেষ দিকে ঘটনাস্থলের পতিত জায়গায় এক সন্ত্রাসীকে মৃত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। এ সময় পুলিশের ওপর হামলায় ব্যবহৃত নিহত সন্ত্রাসীর একটি চাপাতি তার পাশে পড়েছিল।

শোলাকিয়া ঈদগাহে জঙ্গিদের অনুপ্রবেশ ঠেকাতে কোন হেলমেট ও বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট ছাড়াই বন্দুকযুদ্ধে অসীম সাহসিকতার সঙ্গে নেতৃত্ব দেয়া এই পুলিশ কর্মকর্তার নাম মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান।

জঙ্গি সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার ও ঈদগাহ ময়দানে আগত মুসল্লিদের জানমালের নিরাপত্তা বিধানে দুই ঘন্টার এই অভিযানে পুলিশ যে ৬৭২ রাউন্ড গুলি ব্যবহার করে এর মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার তৎকালীন পরিদর্শক (তদন্ত) হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী এই পুলিশ কর্মকর্তা একাই ছুড়েছেন প্রায় ১০০ রাউন্ড গুলি।

তার এই বীরত্বপূর্ণ ভূমিকা উচ্ছ্বসিত প্রশংসা কুড়ায়। ফেসবুকসহ নানা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারীরা বলেছেন, মুর্শেদ জামানের এই সাহসিকতাপূর্ণ ভূমিকা পুলিশ বিভাগের মর্যাদাকে আরো উর্ধ্বে তুলে ধরেছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠে দায়িত্বপালন করছিলেন কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মীর মোশারফ হোসেন ও পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান। সকাল পৌনে ৯টার দিকে চেকপোস্টে পুলিশের ওপর সন্ত্রাসী হামলার ওয়্যারলেস মেসেজ পেয়েই দ্রুত তারা ছুটে যান ঘটনাস্থল সবুজবাগ মসজিদ মোড়ে।

এ সময় ওসি মীর মোশারফ হোসেন হেলমেট ও বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট পরিহিত থাকলেও পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান ছিলেন নীল রঙের পাঞ্জাবি ও জিন্সের প্যান্ট পরিহিত।

শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠে সন্ত্রাসীদের অনুপ্রবেশ ঠেকাতে জীবনবাজি রেখে লড়েন পুলিশের এই দুই কর্মকর্তা। তাদের মধ্যে কোন হেলমেট ও বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট ছাড়াই বন্দুকযুদ্ধে অসীম সাহসিকতার সঙ্গে নেতৃত্ব দেন মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান।

মুর্শেদ জামান তখন জানিয়েছিলেন, জঙ্গিদের সঙ্গে এক ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে তাদের গুলিবিনিময় হয়। গোলাগুলির একপর্যায়ে সন্ত্রাসী আবির রহমানের পিস্তলের চেম্বার জ্যাম হয়ে যায়। এই কারণে জঙ্গি আবির আর গুলি ছুড়তে পারছিল না। তখন সে চাপাতি নিয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালানোর চেষ্টা করে। এ সময় তার ছোঁড়া গুলি আবিরের পায়ে বিদ্ধ হলে ঘটনাস্থলে সে পড়ে যায়। তখন পুলিশ লাইন্সের নায়েক নিকো চাকমার ব্রাশফায়ারে আবিরের মৃত্যু হয়।

মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান আরো জানান, জঙ্গি আবির নিহত হওয়ার পর পুলিশের সাঁড়াশি আক্রমণের মুখে এক জঙ্গি একটি বাসায় ঢুকে পড়ে। বাসার পেছন দিক দিয়ে সে বাসাবদল করে আরেকটি বাসায় অবস্থান নেয়। পুলিশ ওই বাসা ঘেরাও করে তল্লাসি চালায়।

পরে ওই বাসার সেফটি ট্যাংকের ওপর থেকে শরীফুল ইসলাম ওরফে শফিউল ইসলাম ওরফে সাইফুল ইসলামকে আটক করে র‌্যাব। এছাড়া ঘটনাস্থলের একটি বাসায় ঢুকে পোশাক বদলের সময় স্থানীয় যুবক জাহিদুল হক তানিম পুলিশের হাতে আটক হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেছেন, বন্দুকযুদ্ধে মুর্শেদ জামানের দুঃসাহসী নেতৃত্বের কারণেই জঙ্গিদের ধরা সম্ভব হয়েছে। মুর্শেদ জামানের ঝুঁকি নিয়ে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেয়ার বিষয়টি অভিযানে অংশ নেয়া অংশ পুলিশ সদস্যদের দারুণভাবে উজ্জীবিত করে।

মুর্শেদ জামান ও তাকে কভার করে রাখা পুলিশ সদস্যদের প্রতিরোধের মুখে জঙ্গিরা কোণঠাসা হয়ে পড়ে। আর এর মাধ্যমে তারা একটি সফল অপারেশনের ক্ষেত্রও তৈরি করে দেন।

জঙ্গি অভিযানে সাহসিকতাপূর্ণ ভূমিকা রাখা এই পুলিশ কর্মকর্তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ পুলিশ বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও। এর পুরস্কার হিসেবেই তিনি পান আরেক গুরুদায়িত্ব।

দারুন কুশলী ও প্রতিশ্রুতিশীল পুলিশ কর্মকর্তা মোহাম্মদ মুর্শেদ জামানকে নিযুক্ত করা হয় এ ঘটনায় দায়ের করা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। পরবর্তিতে তার বদলি হওয়ার কারণে তদন্ত কর্মকর্তার দায়িত্ব পান কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার তৎকালীন পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আরিফুর রহমান।

এছাড়া শোলাকিয়া ঈদগাহে জঙ্গিদের অনুপ্রবেশ ঠেকাতে কোন হেলমেট ও বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট ছাড়াই অসীম সাহসিকতার সাথে বন্দুকযুদ্ধে অংশ নিয়ে বীরত্বপূর্ণ ভুমিকার জন্য আলোচিত পুলিশ কর্মকর্তা মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম) লাভ করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর