কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনা আক্রান্ত ছিলেন মিঠামইনের মারা যাওয়া যুবক রফিকুল


 স্টাফ রিপোর্টার | ২১ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১১:৫৩ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনাভাইরাসের লক্ষণ নিয়ে গত রোববার (১৭ মে) দুপুরে ভর্তি হওয়ার কিছুক্ষণ পর মারা যাওয়া যুবক রফিকুল ইসলাম (২৭) করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ ছিলো।

বৃহস্পতিবার (২১ মে) রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান জানান, কিশোরগঞ্জ জেলা থেকে রোববার (১৭ মে) সংগৃহীত ৮৪ জনের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট বৃহস্পতিবার (২১ মে) সন্ধ্যায় পাওয়া যায়।

এই ৮৪ জনের নমুনার মধ্যে ৭৩ জনের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। এছাড়া ১১ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে। তাদের মধ্যে পুরাতন দুইজনের নমুনা আবারও পজেটিভ এসেছে।

অর্থাৎ নতুন করে ৯ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে। এই ৯ জনের মধ্যে একজন মৃত ব্যক্তি রয়েছে।

মৃত ব্যক্তির নাম রফিকুল ইসলাম। সে মিঠামইন উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের ঘাগড়া মীরহাটির খসরু মিয়ার ছেলে।

গত রোববার (১৭ মে) দুপুর ২টার দিকে খুবই সংকটাপন্ন অবস্থায় রফিকুল ইসলামকে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার তীব্র শ্বাসকষ্ট, কাশি ও জ্বর ছিল।

ভর্তির ঘন্টা দেড়েক পর বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার সন্দেহে মারা যাওয়া ওই যুবকের নমুনা ওইদিনই (রোববার, ১৭ মে) পরীক্ষার জন্য সংগ্রহ করা হয়েছিল।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান আরো জানান, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ নিয়ে কিশোরগঞ্জ জেলায় মোট ৮ জন মারা গেছেন। মৃত ব্যক্তিদের মধ্যে সর্বশেষ করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ রিপোর্ট এসেছে জেলার মিঠামইনের যুবক রফিকুল ইসলাম এর।

এর আগে মারা যাওয়া ৭ জন হলো, করিমগঞ্জ উপজেলার জঙ্গলবাড়ি মুসলিমপাড়া গ্রামের সেলিম মিয়া (৪৬), কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের বড়বাজার টেনু সাহার গলি এলাকার নিতাই (৬০), হোসেনপুর উপজেলার গোবিন্দপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ পানান গ্রামের ১০ বছর বয়সী শিশু মিজান, কুলিয়ারচর উপজেলার গোবরিয়া আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়নের মাতুয়ারকান্দা গ্রামের মোস্তফা মিয়া (৬০), কটিয়াদী উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের বাট্টা গ্রামের তরুণ ভূইয়া (৪০), বাজিতপুর পৌরসভার চারবাড়িয়া এলাকার মো. আল আমিন মিয়া (৬০) এবং ভৈরব পৌরশহরের চণ্ডিবের দক্ষিণপাড়ার বাসিন্দা মৎস্য ব্যবসায়ী অমিয় দাস (৬০)।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর