কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


অসচ্ছল ৫০০ পরিবারের পাশে মোজাম্মেল, জাহাঙ্গীর ও তাঁদের বন্ধুমহল


 স্টাফ রিপোর্টার | ১২ মে ২০২০, মঙ্গলবার, ৬:০০ | বাজিতপুর 


‘প্রতি দিন কোন না কোন ফোন আসে, ভাই যে দিনকাল চলতাছে একটু সহায়তা না করলে ক্যামনে চলবো। এই তাগিদ থেকে প্রায় এক মাস ধরে কঠোর পরিশ্রম করছি। আমাদের জমানো টাকা যা কিছু ছিল তা দিয়েছি।

এছাড়া এলাকার চাকুরীজীবি দানশীল ব্যক্তি, কাছের বন্ধুৃ-বান্ধব ও শুভাকাংখীদের আর্থিক সহায়তায় আজ (মঙ্গলবার, ১২ মে) ২১টি গ্রামের প্রায় ৫০০ অসচ্ছল পরিবারে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছি।’

আয়োজকগণ জানান, করোনায় লকডাউন শুরু হওয়ার পর ঘরবন্দি হয়ে পড়েছেন সবাই। এতে বিপাকে পড়েছেন এলাকার কৃষি শ্রমিক, ভ্যান-রিক্স চালক, কাজের বুয়া, নরসুন্দর, পাদুকা কারিগর, দুস্থ প্রতিবন্ধী পরিবার এবং ভ্রাম্যমাণ ফেরিওয়ালাসহ হত দরিদ্র কৃষক পরিবারগুলো।

তাদের অনেকেই দৈনিক খাবারটুকুও জোগাড় করতে পারছেন না। আবার লজ্জায় কারো কাছে বলতেও পারছেন না।

আমরা মনে করি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং আমাদের জন নন্দিত এমপি আফজাল হোসেনের করোনার দুর্যোগে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহবানের অংশ হিসেবে আমাদের এই ক্ষুদ্র উদ্যোগ।

কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরের মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী ফাউন্ডেশনের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান “শহীদ মোবাবরক স্মৃতি সংসদ” এর পক্ষে ঢাকা জজ কোর্টের এপিপি অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হক ভূঁইয়া এবং সুলতানপুর গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম খাঁন এর নেতৃত্বে উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের গোথালিয়া প্রাইমারী স্কুল মাঠ এবং সুলতানপুর গ্রামের মরহুম গিয়াস উদ্দিন খাঁন মেম্বারের বাড়ি প্রাঙ্গণে এ ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

বিতরণকৃত খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে ছিল চাল, ডাল, পেয়াজ, আলু, তৈল, লবণ। পরিবার প্রতি ১০ কেজি করে খাদ্য সামগ্রী পান।

শহীদ মোবারক স্মৃতি সংসদ এর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হক ভূঁইয়া বলেন, মানুষের জন্য কিছু করার তাগিদ থেকে সীমিত সাধ্যের মধ্যে এই দুর্যোগে আমরা দুই ধরনের মানুষের পাশে থাকতে চেয়েছি। এক. যারা সত্যিকারের অভাবী, দুই. যারা অভাবের কথা বলতে সংকোচ বোধ করেন।

সুশীল সন্ন্যাসী নামের এক উপকারভোগী জানান, তিনি গ্রামে গ্রামে ঘুরে হাত গণনা ও কবিরাজী করে দিন চালাতেন। দুই মাস ধরে গাঁও করা বন্ধ। তাদের সহযোগিতা না পেলে এই সময় পরিবার নিয়ে না খুব কষ্ট করে দিন কাটাতে হতো।

আয়োজকদের অপরজন জাহাঙ্গীর আলম খাঁন জানান, এ কার্যক্রমে তাদের পাশাপাশি যুক্ত হয়েছেন মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী ফাউন্ডেশন, আমাদের পরিবারের সদস্য, বন্ধু ও স্বজনরা। সবাই যার যার সাধ্যমতো এই তহবিলে নগদ সহায়তা করেছেন।

যারা সহায়তা করেছেন আমাদের পক্ষ থেকে তাদের ধন্যবাদ এই অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর