কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সেতুর এক পাশে রেলিং নেই, ঝুঁকি নিয়ে চলাচল, ঘটছে দুর্ঘটনা, কিশোর জসিমের আকুতি


 আমিনুল ইসলাম বাবুল, তাড়াইল | ৪ মে ২০২০, সোমবার, ১০:২৯ | তাড়াইল  


সেতুর রেলিং ভেঙে ঝুলে আছে। রেলিং নির্মাণের রডগুলোও চুরি হয়ে যেতে পারে। রেলিং ছাড়া সেতুতে চলাচল করতে গিয়ে প্রায়ই ঘটছে ছোট-বড় দুর্ঘটনা। কিন্তু সংস্কারের বা পূণঃনির্মাণের নেই উদ্যোগ।

কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার জাওয়ার, ছনাটি, কলুমা, আজমপুর-রতনপুর নামের চারটি গ্রামের মানুষ ব্যবহার করেন এই সেতুটি।

তাছাড়াও ইটনা উপজেলার রায়টুটি এবং বাদলা এই দু’টি ইউনিয়নের বাসিন্দাদের তাড়াইল উপজেলা সদর হয়ে কিশোরগঞ্জ জেলা শহরে যাতায়াত করার একমাত্র রাস্তা তাড়াইল-রায়টুটি সড়ক।

আর ওই সেতুটির অবস্থান তাড়াইল-রায়টুটি সড়কের জাওয়ার ইউনিয়নের ‘জাওয়ার-ছনাটি’ সড়কে ছনাটি গ্রামটিকে দু’ভাগে বিভক্ত করা এক সময়ের খরস্রোতা ‘ফুলেশ্বরী’ নামক নদীর উপর।

বছরের পর বছর ধরে ওই-সব এলাকার মানুষ এ সেতুর উপর দিয়ে-ই চলাচল করছেন।

প্রতিদিনের মতো শুক্রবার (১ মে) সাইকেল নিয়ে ঘর থেকে কাজের জন্য বের হয় ছনাটি গ্রামের কৃষি শ্রমিক কিশোর জসিম মিয়া (১৪)।

‘জাওয়ার-ছনাটি’ সড়কে ‘ফুলেশ্বরী’ নদীর ব্রীজে উঠার পর বিপরীতমূখী একটি অটো রিকসাকে সাইড দিতে গিয়ে সেতুটির রেলিং না থাকায় সেতুর নীচে খালে (ফুলেশ্বরী নদী যা আজ খালে পরিণত হয়েছে) পড়ে যায় জসিম মিয়া। এসময় পথচারি ও গ্রামবাসী জসিমকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

তাড়াইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, জসিম মিয়ার মেরুদণ্ডের এক জায়গায় ভেঙ্গে গেছে। সেতুর উপর থেকে পড়ে গিয়ে সে ভীষণ ভয় পেয়েছে। তাঁকে উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, তাড়াইল উপজেলার চারটি গ্রাম, ইটনা উপজেলার রায়টুটি এবং বাদলা এই দু’টি ইউনিয়নের মানুষ তাড়াইল উপজেলা সদরের সাথে ও কিশোরগঞ্জ জেলা শহরে যাতায়াতের জন্য একমাত্র যোগাযোগের মাধ্যম এই সড়কটি।

আর এই সড়কের উপরে-ই ‘জাওয়ার-ছনাটি’ সড়কে ‘ফুলেশ্বরী’ নদীর উপর এই সেতুটি। সেতুর এক পাশে (উত্তর পাশে) নেই রেলিং, সেতুর রেলিং ভেঙে ঝুলে আছে।

সেতুর উপর থেকে পড়ে গিয়ে কিশোর জসিম মারাত্মকভাবে আহত; ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে এই এলাকার মানুষগুলোর।

এলাকাবাসী অভিযোগের সুরে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এমন একটি মুল সড়কের উপর এই সেতুটির রেলিং ভেঙ্গে পড়ে আছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষ যাতায়াত করছে, প্রায় সময়-ই এই সেতুর উপর দুর্ঘটনা ঘটছে। সেতুটি এখন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে।

এই সড়কে চলাচলকারীদের জানমাল রক্ষায় দ্রুত সেতুটির সংস্কার বা পূণঃনির্মাণ করা ‘অতীব’ প্রয়োজন। আমরা সেতুটির সংস্কার বা পূণঃনির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছি অথচ জনপ্রতিনিধি-প্রশাসন কেউ-ই আমাদের এ দাবির গুরুত্ব-ই দিচ্ছে না।

এই সড়কে ভ্যানগাড়ী চালক আলী আকবর বলেন, ব্রীজে ওপর রেলিং না থাকায় খুবই ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হয়। সেতুর ওপর একটা ভ্যানগাড়ি বা অটো রিকসা থাকলে পাশ দিয়ে কোনো মানুষ পাশে হেটে যেতে পারে না। অথচ রেলিং থাকলে ভ্যানগাড়ি-অটো রিকসা ও মানুষ পাশাপাশি যাওয়া সম্ভব।

ছনাটি গ্রামের বাসিন্দা চংজাওয়ার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) মো. মাহবুব আলম রাসেল জানায়, সেতু থেকে পড়ে গুরুতর আহত কিশোর জসিম মিয়া খুব-ই গরীব মানুষ। তাঁর মা-বাবা নেই। নানার বাড়িতে বসবাস করে সে কৃষি শ্রমিকের কাজ করে।

একই গ্রামের বাসিন্দা সেকান্দরনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মো. জিয়াউল হক জিয়া এ প্রতিনিধিকে জানান, জসিম মিয়া সেতুর উপর থেকে পড়ে মারাত্মকভাবে আহত হয়েছে। তাঁর উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন। কিন্তু, জসিমের পক্ষে উন্নত চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করার মতো অর্থনৈতিক অবস্থা নেই।

কোন হৃদয়বান ধনাঢ্য ব্যক্তি, জনপ্রতিনিধি কিংবা প্রশাসন জসিম মিয়ার চিকিৎসার দায়িত্ব নেওয়ার জন্য সাংবাদিকগণের মাধ্যমে অনুরোধ জানাচ্ছি।

পাশাপাশি আমরা জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের কাছে ‘ফুলেশ্বরী’ নদীর উপর এই সেতুটি দ্রুত সংস্কার বা পূণঃনির্মাণের দাবি জানাচ্ছি। নয়তো এই সেতুকে কেন্দ্র করে বড় ধরনের কোন দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

এ বিষয়ে তাড়াইল উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) মো. রফিকুল ইসলাম ‘কিশোরগঞ্জ নিউজ’কে জানান, স্থানীয় সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট মো. মুজিবুল হক চুন্নু মহোদয়ের ডিও (ডিমান্ড অব অর্ডার) লেটারসহ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে এই সেতুর অবস্থানসহ উপজেলার আরো দু-তিনটি সেতু সম্পর্কে জানানো হয়েছে। আশা করছি দ্রুত ব্যবস্থা হবে ইনশাল্লাহ। তবে সেতুটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর