কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনা: ব্যতিক্রমি পরিবেশে রমজানের রোজনামচা


 মাজহার মান্না | ২৬ এপ্রিল ২০২০, রবিবার, ১১:৩৪ | মত-দ্বিমত 


যুদ্ধের সময় কিংবা দুর্যোগের সময়ও বিশ্বের মুসলমানগণ রমজানের সময় একসঙ্গে তাদের ধর্মীয় আচার পালন করেছেন। কিন্তু এবারের প্রেক্ষাপটে তার ব্যতিক্রম ঘটছে। ব্যতিক্রম অভিজ্ঞতার মধ্যদিয়ে পার হচ্ছে রোজা। যেখানে নেই কোন উৎসবের আমেজ।

ইফতার মাহফিলের সেই চিরাচরিত দৃশ্যও উধাও। ফুটপাথ হোটেল রেস্তরাঁয় নেই কোন ইফতারি পসরা। তারাবি নামাজে মসজিদে ছিল না কোন মুসল্লির ভিড়। অফিস থেকে বাসায় ফেরার তাড়াও ছিল না। ঘরের মধ্যেই পরিবার-পরিজন নিয়েই এবারের রোজা অতিবাহিত করতে হচ্ছে।

শুধু প্রথম রোজা নয়, ব্যতিক্রমি পরিবেশে ঘরবন্দী রোজার রোজনামচা। এবার ঈদেও এই ধারা অব্যাহত থাকার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

প্রতিবছর রমজানের গুরুত্বপূর্ণ এই মাসে মুসল্লিরা আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সব ধরনের খাবার ও পানাহার থেকে বিরত থাকেন। প্রতিবার আজান দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে শিশু-বৃদ্ধসহ সব বয়সীরাই ছুটে যেত মসজিদ পানে। রোজা এলেই তারাবি নামাজ পড়া নিয়ে সাজ সাজ রব পড়ে যেত।

মসজিদ প্রাঙ্গণে সাহায্যপ্রার্থীরা ভিড় জমাত। নামাজ শেষে যে যার সাধ্য মতো দান খয়রাত করত। করোনার কারণে এই পরিচিত দৃশ্য এবার শুরু থেকে উধাও। ঘরবন্দী মানুষের রমজানের আনন্দ ফিকে করে দিয়েছে করোনাভাইরাস।

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে মানুষ থেকে মানুষে। এ কারণে এর সংক্রমণ থেকে বাঁচতে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী তারাবি নামাজ পড়তে মসজিদের স্টাফসহ মোট ১২ জনের বেশি কেউ হাজির হতে পারেনি। এতে ছিল না কোন আনন্দ উৎসব।

রমজান মাসে এমন অভিজ্ঞতা অতীতে কোনকালে কখনও হয়েছে কিনা ইতিহাসে তার কোন উল্লেখ নেই। সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, জনসমাগম এড়িয়ে চলা, বারবার হাত পরিষ্কার করা এবং অপ্রয়োজনে বাড়ির বাইরে বের না হওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

প্রকৃতিতে চলছে মধ্য বৈশাখ। সারাদেশে শুরু হয়েছে ঝড় বাদল। এ পরিবেশে ঘরের মধ্যে থাকলেও আবহাওয়ায় শীতল ভাব থাকায় প্রথম দুই রোজা ধর্মপ্রাণ মুসলমান নির্বিঘ্নেই পার করেছেন।

তবে ঘরবন্দী থাকায় রোজার সেই আনন্দঘন মুহুর্তটি খুঁজে পাওয়া যায়নি কোথাও। কেননা রমজানে মুসল্লিদের পরিবার, বন্ধু-বান্ধব নিয়ে একত্রিত হওয়ার মাস। দান খয়রাতের মাস। এই মাসে মুসল্লিরা এক সঙ্গে ইফতার করে নামাজ আদায় করে এবং দরিদ্রদের বেশি বেশি দান করে থাকে।

করোনার ধাক্কায় এবার সেই দৃশ্য একেবারেই উধাও। সারাদেশে এক ভয়ের সংস্কৃতি চালু হয়েছে সর্বত্র। শুধু রমজান নয়, আশঙ্কা করা হচ্ছে এবার ঈদ-উল-ফিতরের উৎসবও সম্ভবতঃ আগের বছরগুলোর মতো হবে না।

করোনার পরিস্থিতি এমন চলতে থাকলে ঈদ-উল-ফিতরেও লোকজনকে বাড়িতেই অবস্থান করতে হবে। এমনকি ঈদের নামাজ আদায়, বাইরে ঘুরতে যাওয়া, নানা ধরনের আয়োজন সবকিছুই ভাটা পড়তে পারে।

রমজান এলেই মাসব্যাপী ইফতার পার্টির আয়োজন করা দেশের দীর্ঘদিনের সংস্কৃতি। করোনার কারণে এই চর্চার হঠাৎই ছেদ পড়েছে। শুধু রাজনৈতিক দলগুলো নয় বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের মধ্যে রোজা এলেই এই সংস্কৃতির চর্চা শুরু হয়ে যায়। মসজিদে মসজিদে চলে ইফতারির আয়োজন।

কিন্তু এবার রোজার শুরুতে সেই চিরাচরিত দৃশ্য নেই। ফুটপাথগুলোতে দুপুরের পর থেকে বসানো হয়নি ইফতারির পসরা। হোটেল রেস্তোরাঁয়ও নেই কোন ইফতারের আয়োজন। শেষরাতে কোথাও সেহরি পার্টির আয়োজন চোখে পড়েনি।

ইসলামী বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এবারের রমজান মাস মুসলিম ইতিহাসে মুসলমানদের জন্য একদম ভিন্ন এক অভিজ্ঞতা। একেবারে ভিন্ন ও ব্যতিক্রমি ঘটনা হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে। ধর্ম পালনে, বিশেষ করে রোজা বা ঈদে, এ ধরনের সামজিক বিচ্ছিন্নতা ইসলামের ঐতিহ্যের একেবারে পরিপন্থী। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে বাংলাদেশসহ বিশ্বের কোটি কোটি মুসলিমকে এবার আপস করতে হচ্ছে।

# মাজহার মান্না: সাংবাদিক-লেখক ও কর আইনজীবী, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর