কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভালো কাজের পেছন টেনে ধরা লোকের অভাব নেই


 মোশারফ হোসেন | ২৩ এপ্রিল ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১২:০৫ | মত-দ্বিমত 


আমাদের দেশে যেকোনো ইস্যুতে রাজনৈতিক বিরোধ বা মতানৈক্য যেন অবধারিত সত্য। কিন্তু করোনার এ মহাদুর্যোগে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন, ত্রাণ বিতরণে যেন কোনো দলবাজি না হয়, অর্থাৎ ত্রাণ বিতরণের সময় কে কোন দলের সেটা যেন প্রাধান্য না পায়। একটি রাজনৈতিক দলের প্রধান  এবং সরকার প্রধানের পক্ষ থেকে এমন বাণী উচ্চারিত হওয়ার পরে ত্রাণ বিতরণে স্বচ্ছতার প্রয়োজনীয়তা দ্বিতীয়বার বলার আর অপেক্ষা রাখে না।

কিন্তু হায়রে কপাল! এই ত্রাণ যার বিতরণ করার কথা, সে তা তার বিপক্ষ দলের অসহায় মানুষদের দিবে তো দূরের কথা, তার দলের লোকদের ভাগ্যেই জুটছে না। দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি নিজের ঘরের মেঝে খোঁড়ে বস্তার পর বস্তা ত্রাণ চুরি করে লুকিয়ে রেখেছেন নিজের জন্য। কেওবা আবার সরকারি গোদামে ত্রাণ মজুদ না করে, নিজের ব্যক্তিগত ব্যবসায়িক গোদামে মজুদ করেছেন।

পত্রিকায় যখন এসব খবর পড়ি, তখন বড় কষ্ট লাগে, ঘৃণায় মুষড়ে যাই। এসব অমানুষের ভীড়ে নিজেকে মানুষ ভাবতে দ্বিধা হয়। এরা একটু চিন্তাও করে না, এই করোনাঘাতে সে বাঁচবে কিনা; যদি মারা যায়, তাহলে মৃত্যুর পর মানুষ তাকে নিয়ে কী বলবে, আর তার প্রজন্মকে কী অপবাদ নিয়ে বড় হতে হবে!

এরা এসব নীতি-নৈতিকতা, ইহকাল-পরকাল নিয়ে মোটেও ভাবে না। যদি ভাবতই, তাহলে অনুধাবন করত- এই মহাদুর্যোগে কে বাঁচি, কে মরি- তার কোনো ঠিক নেই। কিন্তু না, মানুষ যেখানে একে অপরের কাছে ক্ষমা ভিক্ষা চাইছে, একে অপরকে ক্ষমা করে দিচ্ছে; সেখানে এই ত্রাণ চোর তথা অনাহারী মানুষের রিযিক চোরদের মধ্যে এতটুকু আল্লাহভীতি নেই, তওবা-ইস্তিগফারের বালাই নেই- চৌর্যবৃত্তি চলছেই!

আসলে এদের বিবেক আর মনুষ্যত্ব ইস্পাতের অভেদ্য আবরণে ঢাকা পড়ে গেছে। আর তাই এসব ত্রাণ চোর আর তাদের সাঙ্গপাঙ্গদের দাপটে একজন মানবিক প্রধানমন্ত্রী মানুষের কাছে মানবিক হতে পারেন না, একটি সাম্যবাদী রাষ্ট্র মানুষের কাছে পেয়ে যান অসাম্যের তকমা।

আবার অনেকেই আছেন যারা অর্ধপূর্ণ গ্লাসের পানিপূর্ণ অংশটি দেখতে পান না, বরং গ্লাসের খালি অংশটিতেই তাদের দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়। এ প্রসঙ্গে  নিজের দুটি সাম্প্রতিক অভিজ্ঞতা বলি। আমার বাড়িওয়ালা তার সকল ভাড়াটিয়াকে মার্চ মাসের অর্ধেক ভাড়া মওকুফ করেছেন। করোনাকালীন সময়ে নিসন্দেহে একটি মহৎ উদ্যোগ।

তাই ভাবলাম, বাড়িওয়ালার মাহাত্ম্য প্রচার হওয়া দরকার। ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিলাম, 'আমার বাড়িওয়ালা মার্চ মাসের অর্ধেক (৫০%) ভাড়া মওকুফ করেছেন।' এতে ফেসবুক বন্ধুরা অনেকেই মন্তব্যের মাধ্যমে তাদের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন, বাড়িওয়ালাকে সাধুবাদ জানিয়েছেন।

তবে দুজন তাদের মন্তব্যে বাড়িওয়ালার প্রশংসা না গেয়ে উল্টো আমাকেই আক্রমণ করেছেন। পাঠকদের জন্য মন্তব্য দুটো তুলে ধরছিঃ একজন মন্তব্য করেছেন, 'কেন স্যার, মার্চ মাসে কি আপনি ফুল বেতন পাননি?'

আরেকজন মন্তব্য করলেন, 'এক মাস না যেতেই যদি আপনাদের এই অবস্থা হয়, তাহলে গরিবদের কী অবস্থা হবে?'

মন্তব্য দুটো পড়ে কিছুটা হতাশ হলাম। আমি এখানে কী প্রচার করতে চাইলাম, আর কী প্রচার করতে সমর্থ হলাম! বাড়িওয়ালার মহানুভবতা তুলে ধরতে গেলাম, কিন্তু আমাকেই হাত-পাতা মানুষ বানিয়ে কটাক্ষ করা হল, যদিও আমি মওকুফকৃত ভাড়া দান করে দিয়েছি কিছু নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে।

এক গ্রামে গ্রামের শিক্ষিত তরুণরা করোনাভাইরাস মোকাবিলায় স্ব উদ্যোগে কিছু সচেতনতামূলক কার্যক্রম হাতে নেওয়ার পাশাপাশি গ্রামের অসচ্ছল পরিবারকে ত্রাণ ও অর্থ সহায়তা দিয়েছে। ঢাকায় এবং প্রবাসে থাকা ওই গ্রামেরই কয়েকজন  সিনিয়র সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করেছেন এই ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে।

কিন্তু পরিতাপের বিষয়, এখানেও বাধার পর বাধা- 'এসব কার্যক্রম শুরুর আগে গ্রামের মাতবর সাহেবদের কেন জিজ্ঞেস করা হলো না'; 'ত্রাণের তালিকাটা কেন অমুককে দেখানো হলো না'; 'যারা গ্রামের বাইরে থাকে তারা গ্রামের কী বুঝে, এদেরকে গ্রাম নিয়ে ভাবতে হবে না' ইত্যাদি জবাবদিহি-চাওয়া এবং কর্তৃত্ববাদী কত কথা!

আসলে আমাদের দেশে ও সমাজে এমন কিছু মানুষ আছে যারা চোরের সর্দার। ভালো কাজে এদের কোনো ভূমিকা না থাকলেও কর্তৃত্ব ফলাতে চায়, নিয়ন্ত্রণের স্টিয়ারিং রাখতে চায় নিজেদের হাতে। এজন্য তারা যেকোনো ভালো কাজের গতিরোধে পেছন টেনে ধরতে চায় সবসময়। তাদের ভয়- কর্তৃত্ব ও নেতৃত্ব না জানি হাতছাড়া হয়ে যায়। এজন্য তারা মানবিক ও সুমনা মানুষগুলোকেও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে দেয় না; 'শুভ' কাজে 'অশুভ' খোঁজে, সৃষ্টি করে নানা প্রতিবন্ধক।

দুর্নীতিবাজ, স্বার্থপর ও লাঠির জোরে সমাজপতি হওয়া মানুষ কখনোই সমাজ বিনির্মাণের চিন্তা করে না। এরা একটা চতুর পরিকল্পনা থেকেই কিংবা আপন বিশেষ স্বার্থ হাসিলের জন্যই সমাজসেবার মুখোশ পরে।

আরেক শ্রেণীর মানুষ আছে, যারা যেকোনো ভালো কর্ম বা উদ্যোগে নিজের ভালোটা না দেখা পর্যন্ত তারা সেটাকে ভালো কর্ম হিসেবে স্বীকৃতি দিতে রাজি হয় না। আর তাই সুস্থ মানুষগুলো নিজেরা অসুস্থ হওয়ার অগ্রিম আশংকায় করোনায় মৃত্যুপথযাত্রী মুমূর্ষু রোগীদের চিকিৎসায় বাধা তৈরি করছে।

সম্প্রতি দিয়াবাড়িতে কোয়ারেন্টিন সেন্টার স্থাপনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের ঘটনা ঘটেছে। চাঁদা না পেয়ে করোনা চিকিৎসায় তেজগাঁও শিল্প এলাকায় আকিজের হাসপাতাল নির্মাণেও বাধা দিয়েছেন স্থানীয় একজন কাউন্সিলর।

সর্বশেষ বুধবার (২২ এপ্রিল) প্রথম আলোর এক সংবাদে দেখলাম, করোনা আতঙ্কে চিকিৎসক–স্বাস্থ্যকর্মীদের বাসা ছাড়তে বলছেন অনেক বাড়িওয়ালা। করোনা ভেবে সর্দি, কাশি ও জ্বরের রোগীদের সাথে দুর্ব্যবহার করছেন প্রতিবেশীরা।

উপরিউক্ত ঘটনাগুলোতে সংশ্লিষ্ট বিরোধী পক্ষগুলো কি অগ্রিম করোনারোধী প্রতিষেধক নিয়ে রেখেছে, নাকি জন্মগতভাবে মনুষ্যত্ব ও মানবতাবিরোধী প্রতিষেধক নিয়ে জন্মেছে?- পাঠকদের কাছে প্রশ্ন রেখে শেষ করছি।

# মোশারফ হোসেন, ব্যবস্থাপক, ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড, পাকুন্দিয়া শাখা, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ। ইমেইলঃ mosharafmau.200117@gmail.com




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর