কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভিন্ন আঙ্গিকে চৈত্র সংক্রান্তি ও পহেলা বৈশাখ পালন


 মাজহার মান্না | ১৪ এপ্রিল ২০২০, মঙ্গলবার, ১:০৮ | রকমারি 


গণমাধ্যমে চোখ রাখছি। মাঝে মাঝে তাকাচ্ছি বারান্দার বাইরে। ফের চোখ যায় বারান্দায়। কেমন যেন অস্থির আর উৎকণ্ঠায় দিনক্ষণ পার। নিজেই বুঝতে পারিনা অবচেতন মনে কি ভাবছি! ততক্ষণে কানে ভেসে আসে কারো মৃত্যুর খবর, করোনার কাছে হার মানছে অনেকে। এ খবর দেখে-শুনে চোখ কার না ভিজে ওঠে!

সকাল শুরু হচ্ছে মৃত্যুর খবরে। আগের দিনের চেয়ে আজকের সংখ্যা বাড়বে নাকি কমবে সে অনুমানে প্রহর গুণছেন মানুষ। করোনা সংক্রমণ আমাদের জন্য দুঃসহ দুঃসময় বয়ে এনেছে। অনেক মানুষ কষ্টে আছেন। বৈশ্বিক এ দুর্যোগ মোকাবেলায় নির্দেশনা নিজে বুঝুন, অন্যকেও বোঝান। এই যখন অবস্থা তখন দরজায় কড়া নাড়ে বাঙালির ইতিহাস-ঐতিহ্যের সেতুবন্ধন চৈত্র সংক্রান্তি আর পহেলা বৈশাখ উদযাপন।

চৈত্র মাসের শেষদিনের সকালটা এ বছর কেমন যেন একটু অন্যরকম ছিল। প্রকৃতি সেজেছিল ঠিকই, কিন্তু চৈত্রকে বিদায়ে মানুষের মন-মগজে প্রতিবার যে দোলা দিয়ে থাকে, এবার বোধহয় সেটি কারো মধ্যেই ছিল না। এবার যেন ঘরে থেকেই সবার কল্যাণ কামনার শক্তিতেই সাংস্কৃতিক অভিযাত্রা সত্য ও সুন্দরের দিকে দৃঢ় প্রত্যয়ে এগিয়ে যাবার আহ্বান জানানো হয়েছে।

দলমত নির্বিশেষে নানা শ্রেণি পেশার মানুষের মনে একই সুর বেজেছে। সবারই চাওয়া বিপন্ন এই সময়ে মানুষ মানুষের পাশে দাঁড়াক। বর্ণাঢ্য আয়োজন নয়, হয়তো আরও বেশি মানুষের সাহায্যে হাত বাড়িয়ে দিক। মহামারী থেকে রক্ষা পাক সুন্দর পৃথিবী। বাংলা নববর্ষ নিয়ে আসুক সুন্দর এক সকাল!

প্রতিবার পহেলা বৈশাখের সকালের সূর্যটা যেভাবে উঁকি দেয় এবারও ব্যতিক্রম হয়নি। এ বছর সকালের সোনামাখা রোদের দিনটি যেন প্রকৃতিতে ভিন্ন আঙ্গিকে এসেছে। এবার শত্রু অদৃশ্য হলেও সবাই যেন গৃহবন্দী। কিন্তু প্রাণেপ্রাণে যে সংযোগ এই সংযোগ তো শেষ হবার নয়। এই সংযোগ রক্ষা করা যায় একে-অপরকে সহযোগিতা করে। এমন প্রত্যাশা যখন সবার মনে তখন ক্ষুধা নিবারনের শেষ সম্ভলটুকু ছিনিয়ে নিতে মত্ত রয়েছে এক শ্রেণির ব্যক্তি চরিতার্থ লুটেরা।

বিশ্বজুড়েই পুরো মানবজাতি এক চরম পরীক্ষায়! এমন বিভীষিকাময় ময়দান দেখেও ভয় পায় না কিছু মানুষ নামের অমানুষ এদেশে। তাদের ঘরের মেঝেতে পুঁতে রাখছে গরীবের খাদ্য। গরীবের হক। করোনা না হয় পরের হিসেব। এমনকি এমন অমানবিক মানুষগুলো ভুলে গেছে যেন মৃত্যু বুঝি তাদের ছোঁবে না।

যেখানে করোনা আমাদের জন্য দুঃসহ দুঃসময় বয়ে এনেছে। পেট ঠেকে যাবে হয়তো পিঠে। কি করবে তারা! একই সঙ্গে তাদের চিন্তা-করোনা নাহয় একদিন যাবে, যদি বেঁচে থাকি তারপর চলবো কি করে! ততদিনে তো মাথায় চেপে বসবে ঋণের বোঝা। বাকি জীবন সে ঋণের হাত থেকে রক্ষা পাবে কি-করে? এ পরিস্থিতিতে মানুষ কষ্টে আছে জেনেও এ দেশেরই লোক কি করে হতদরিদ্রের চাল চুরি করে তা বোধগম্য নয়?

অতীতে যে কোনো দুর্যোগে এ জাতি সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছে। এবারও নিশ্চয়ই সৃষ্টিকর্তার কৃপায় সকল আঁধার সরিয়ে বাঙালি ঘুরে দাঁড়াবে। ভবিষ্যত হবে উজ্জ্বল ও কল্যাণময়। তবে মনে রাখবেন, পরিবার ও প্রতিবেশীর প্রতি আপনার দায়বদ্ধতা রয়েছে।

সচেতন হউন, অন্যকে সচেতন করুন। নিজে বাঁচুন অন্যকেও বাঁচতে সাহায্য করুন। বিপদেই মনুষ্যত্বের আসল পরিচয়। তাই অবিবেচকের মত নিজের এবং অন্যের জীবনকে হুমকির মুখে ঠেলে দিবেন না। এ দেশ আপনার আমার সকলের।

পহেলা বৈশাখে সবার মাঝে লোকজ ঐতিহ্যের ভালোবাসা ছড়িয়ে পড়ুক। আগামী সকালে আবার সূর্য উঠবে, রক্তিম আভা ছড়িয়ে চারদিক আলোকিত করবে। নতুন বছর সবার জন্য নিয়ে আসবে শুভ বারতা- এমনটাই সবার প্রত্যাশা।

# মাজহার মান্না: দৈনিক জনকন্ঠের সাংবাদিক ও আয়কর আইনজীবী, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর