কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে টিসিবি’র দোকানে প্রচণ্ড ভিড়, করোনা প্রতিরোধে নিয়ম মানছেন না ক্রেতা সাধারণ


 সাইফুল হক মোল্লা দুলু | ২৫ মার্চ ২০২০, বুধবার, ৪:৪১ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জে টিসিবি‘র মাল বিক্রয়ে ক্রেতাদের ভিড়ের কারণে করোনা ভাইরাস ছড়াতে পারে এমন আশংকা করছেন চিকিৎসক ও নাগরিক সমাজ। তাই তারা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে টিসিবি‘র মাল বিক্রির বিষয়ে সাবধানতাসহ প্রয়োজনীয় বিধি-নিষেধ আরোপের দাবি জানিয়েছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, কিশোরগঞ্জ শহরে চারটি ডিলারের মাধ্যমে ন্যায্যমুল্য (কম মূল্যে) বিভিন্ন নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রি করা হচ্ছে। টিসিবির ডিলাররা শহরে ট্রাকে করে ভ্রাম্যমাণ অস্থায়ী দোকান বসিয়ে মালামাল বিক্রি করছেন।

টিসিবি‘র পণ্য কমমূল্যে পেয়ে টিসিবি‘র দোকানগুলোতে মানুষ হুমড়ি খেয়ে পড়ছে। অসংখ্য বিভিন্ন পেশার মানুষ করোনা ভাইরাসের সময়ে ভিড়ের মধ্যে লাইনে দাঁড়িয়ে মালামাল সংগ্রহ করছে।

দেখা গেছে, অধিকাংশের মুখে মাস্ক, নেই। বাড়িতে না গিয়ে হাত না ধুয়ে কর্মক্ষেত্র থেকে বা অন্য কোন কাজ করে বাড়িতে ফেরার পথে টিসিবি‘র দোকানে ভিড়ের মধ্যে অসচেতন হয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে মালামাল কিনে নিচ্ছে।

জেলা বিএমএ‘র সাধারণ সম্পাদক ডা. এম এ ওয়াহাব বাদল বলেন, টিসিবি’র মাল ক্রয়ে যেমন অসংখ্য মানুষের ভিড় দেখলাম। এমন ভিড়ে একজন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত থাকলে লাইনে দাঁড়ানো অসংখ্য মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে পড়বে। তাই বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে আমাদের সকলকে দেখতে হবে। অন্যথায় চরম অবস্থা সৃষ্টি হতে পারে।

কয়েকজন ক্রেতা জানান, বাজারে জিনিসপত্রের দাম বেশি। ম্যাজিস্ট্রেট বাজারে গেলে দাম কমে যায়। আবার ফিরে আসলে দাম বেড়ে যায়। তাই ঝুঁকি নিয়ে টিসিবির মাল কিনতে লাইনে দাঁড়িয়েছি। কারণ স্বল্প আয়ের মানুষেদের জন্য টিসিবি‘র দাম সহনশীল।

নারীনেত্রী খুজিস্তা বেগম জোনাকি বলেন, টিসিবি দোকানে মানুষের ভিড় লেগেই থাকে। করোনা প্রতিরোধে তারা হাত ধোয়া তো দূরের কথা লাইনে পাশাপাশি শ্বাস-প্রশ্বাস গ্রহণ করলেও অধিকাংশের মুখে মাস্ক নেই। ঘটনাটি খুবই উদ্বেগজনক। জেলা প্রশাসন ও জেলা পুলিশের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

সচেতন নাগরিক কমিটির সহ-সভাপতি আইনজীবী আবুল কাসেম বলেন, টিসিবির দোকানগুলোতে প্রচণ্ড ভিড়। এই অসতর্ক ভিড়ের মধ্যে কোন ব্যক্তি যদি করোনা ভাইরাস বহন করে- তাহলে পুরো শহরের অর্ধেক মানুষ করোনায় আক্রান্ত হওয়ার জন্য যথেষ্ট বলে মনে করি। স্থানীয় প্রশাসন বিষয়টি দেখবেন বলে আশা করি।

কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা বলেন, গত দুইদিন আমি নিজে গিয়ে কয়েক ঘন্টা দাঁড়িয়ে তিন ফুট দূরত্বে ক্রেতাদের দাঁড় করিয়ে মালামাল কিনতে সহযোগিতা দিয়েছি। প্রতিদিন এ কাজ আমার একার পক্ষে করা সম্ভব কি? প্রশ্ন রাখেন তিনি।

কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আব্দুল্লাহ আল মাসউদ জানান, বাজার ব্যবস্থা ঠিক রাখা এবং দ্রব্যমূল্য দাম সঠিক রাখার জন্য কোন অবস্থাতেই টিসিবি’র পণ্য বিক্রি বন্ধ করা যাবে না।

টিসিবি’র দোকানগুলোতে ভিড়ের বিষয়ে জেলা পুলিশকে পত্র দেওয়া হয়েছে। তারা যেন ক্রেতাদের প্রয়োজনীয় দুরত্বে অবস্থান করে মালামাল সংগ্রহ করতে সহযোগিতা দেন। আশা করি পুলিশ এ ব্যাপারে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর