কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ঘর পেল চার প্রতিবন্ধীর এক পরিবার


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ১৭ মার্চ ২০২০, মঙ্গলবার, ৯:০০ | সম্পাদকের বাছাই  


মমিন, মুন্না, আরফান ও আমানুল্লা। একই পরিবারের চারজন। এঁরা সবাই প্রতিবন্ধী। জন্মের কিছুদিন পর থেকেই তারা চলাফেরায় অচল। কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার বুরুদিয়া ইউনিয়নের পুটিয়া গ্রামে তাঁদের বাড়ি।

তাঁদের বাবা মো.রিয়াজ উদ্দিন। যিনি পেশায় একজন কৃষক। নিজের জমি নেই, অন্যের জমি চাষ করেন। মা নারগিছ আক্তার গৃহিণী।

বুরুদিয়া ইউনিয়নের হতদরিদ্র পরিবারের একটি এটি। যেখানে একই পরিবারের চারজন প্রতিবন্ধী। যদিও তারা সবাই ভাতাভোগী। তারপরেও অতি কষ্টে চলছে তাদের সংসার। কৃষিকাজ আর ভাতার সামান্য টাকা দিয়েই কোনরকমে কাটছে দিনরাত।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে বিষয়টি নজরে আসে উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সাংসদ নূর মোহাম্মদের। পরে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় প্রতিবন্ধী ওই পরিবারটিকে একটি ঘর নির্মাণ করে দেওয়ার।

তাঁদের সেই প্রচেষ্টার ফলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রায় তিন লাখ টাকা ব্যয়ে টিআর-কাবিটা কর্মসূচির আওতায় দুর্যোগ সহনীয় একটি ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়।

মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততমজন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে নব-নির্মিত ঘরটি ওই পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নাহিদ হাসান ওই বাড়িতে গিয়ে গৃহকর্তা রিয়াজ উদ্দিনের হাতে চাবি তুলে দেন।

এসময় উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. রওশন করিম, বুরুদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. নাজমুল হুদা রুবেল, উপ-সহকারী প্রকৌশলী রকিবুল ইসলাম ও ইউপি সদস্য মো. শাহজাহান সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

এতে অনেকটাই স্বস্তির নিঃশ্বাস ফিরে এসেছে অসহায় ওই পরিবারে। নতুন ঘর পেয়ে তারা সরকার ও স্থানীয় চেয়ারম্যানসহ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

বুরুদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. নাজমুল হুদা রুবেল বলেন, আমার এলাকার খুবই অসহায় পরিবার এটি। যেখানে একই পরিবারের চারজনই প্রতিবন্ধী। তাদেরকে আমি প্রতিবন্ধী ভাতার ব্যবস্থা করে দিয়েছি।

ইউএনও এবং পিআইও মহোদয়ের মাধ্যমে তাদেরকে একটি ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে। সুযোগ পেলে ভবিষ্যতে আরও সহায়তা করা হবে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. রওশন করিম জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবদান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অধীন টিআর-কাবিটা কর্মসূচির আওতায় দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণ প্রকল্পের অংশ হিসেবে ওই পরিবারকে প্রায় তিন লাখ টাকা ব্যয়ে দুই কক্ষবিশিষ্ট এ ঘরটি নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নাহিদ হাসান বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগ কেউ গৃহহীন থাকবে না। এর অংশ হিসেবে ওই পরিবারটিকে একটি গৃহ নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে। পরিবারটি অসহায়। একই পরিবারের চারজনই প্রতিবন্ধী।

তাদেরকে কিভাবে আরও সহায়তা করা যায় সে বিষয়ে খেয়াল রাখা হবে বলেও জানান ইউএনও মো. নাহিদ হাসান।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর