কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


দুই ক্লু-লেস হত্যা মামলার জট খুলে পুরস্কৃত হলেন ভৈরবের পরিদর্শক (তদন্ত) বাহালুল খান


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, রবিবার, ৯:২১ | বিশেষ সংবাদ 


দুইটি ক্লু-লেস হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করে ঢাকা রেঞ্জে পুরস্কৃত হয়েছেন কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বাহালুল খান বাহার। রোববার (২৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে ঢাকা রেঞ্জ ডিআইজি’র কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত জানুয়ারি (২০২০) মাসের মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় ক্লু-লেস হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করায় ভৈরব থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বাহালুল খান বাহার কে পুরস্কৃত করেন ঢাকা রেঞ্জ এর ডেপুটি ইন্সপেক্টর জেনারেল (ডিআইজি) হাবিবুর রহমান, বিপিএম(বার), পিপিএম(বার)।

এ সময় ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি (প্রশাসন ও অর্থ) মো. আসাদুজ্জামান, বিপিএম (বার),অতিরিক্ত ডিআইজি (অপরাধ) জিহাদুল কবির বিপিএম, পিপিএম, অতিরিক্ত ডিআইজি (অপারেশনস্ এন্ড ইন্টেলিজেন্স) নুরেআলম মিনা, বিপিএম (বার), পিপিএম এবং কিশোরগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) সহ রেঞ্জাধীন ১৩ টি জেলার পুলিশ সুপার, ঢাকা রেঞ্জ অফিসের পুলিশ সুপারগণ ও অন্যান্য কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

ক্লু-লেস যে দুইটি হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করে ভৈরব থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বাহালুল খান বাহার পুরস্কৃত হয়েছেন সেই দু’টি মামলা হচ্ছে, রেলওয়ে কর্মচারী মাহাবুবুর রহমান হত্যা মামলা ও জামাল হত্যা মামলা।

এর মধ্যে নিহত মাহাবুবুর রহমানের স্ত্রী রোকসানা আক্তার ও দেবর (নিহতের চাচাতো ভাই) হাসিব মিয়ার পরকীয়া বলি হন এই রেলওয়ে কর্মচারী।

হাসিবের সঙ্গে রোকসানার অবৈধ প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠেছিল। এতে পথের কাঁটা ছিল স্বামী মাহাবুবুর রহমান। ফলে তাকে সরানোর পরিকল্পনা করে রোকসানা-হাসিব।

পরিকল্পনার অংশ হিসেবে মাহাবুবকে পায়েসের সঙ্গে প্রায় ৩০টি ঘুমের ট্যবলেট খাওয়ানো হয়। পরে তাদের কিলিং মিশন সম্পন্ন করা হয়।

গত ২৭ নভেম্বর গভীর রাতে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে পৌর শহরের চন্ডিবের আইভি রহমান পাড়ায় এই ঘটনার পর ডাকাতির নাটক সাজায় স্ত্রী রোকসানা আক্তার।

কিন্তু বিচক্ষণ ও কুশলী তদন্ত কর্মকর্তা ভৈরব থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বাহালুল খান বাহার অত্যন্ত দক্ষতার সাথে হত্যা রহস্য উদঘাটন করেন।

অন্যদিকে ৩ মাস পর জামাল হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করে পুলিশ। পরকিয়ায় আসক্ত নিহত জামাল প্রেমিকাকে বিয়ে করতে চাওয়ায় তাকে ফোনে ডেকে নিয়ে হত্যা করা হয়।

পরে নিহতের মরদেহ একটি নির্জন বাগানে ফেলে পালিয়ে যায় হত্যাকারীরা। একই সঙ্গে জামালের পুরুষালঙ্গ কেটে নিয়ে যায় তারা।

নির্মম এই হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত প্রেমিকা আয়েশা বেগম আশা ও হত্যকাণ্ডের মূলহোতা টিটু চন্দ্র বিশ্বাস ওরফে পবন এবং তার সহযোগী মুক্তার হোসেন ও বাবুল মিয়াসহ ৪ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

গত ৩ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় কিশোরগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতের বিচারক আশিকুর রহমানের কাছে প্রেমিকা আয়েশা বেগম আশা ও হত্যাকাণ্ডের মূলহোতা টিটু চন্দ্র বিশ্বাস ওরফে পবন ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে হত্যাকাণ্ডের বর্ণনা দেয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর