কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত কিশোরগঞ্জের কৃতী সন্তান কমান্ডার আব্দুর রউফ


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, ৫:৩৭ | জাতীয় 


দেশের সর্বোচ্চ সম্মানজনক স্বাধীনতা পুরস্কার পেয়েছেন ঐতিহাসিক আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম অভিযুক্ত ও মহান মুক্তিযুদ্ধের তুখোড় সংগঠক কমান্ডার আব্দুর রউফ। মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানের জন্য মরণোত্তর স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন তিনি। কমান্ডার আব্দুর রউফ ৮২ বছর বয়সে ২০১৫ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি ইন্তেকাল করেন।

জাতীয় পর্যায়ে গৌরবজ্জ্বল ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে মরহুম কমান্ডার আব্দুর রউফ সহ ৯ বিশিষ্ট  ব্যক্তি ও এক প্রতিষ্ঠান এ বছর স্বাধীনতা পুরস্কার পাচ্ছেন। বৃহস্পতিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির বরাত দিয়ে তথ্য অধিদফতরের তথ্য বিবরণীতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

কমান্ডার আব্দুর রউফ ১৯৩৩ সালের ১১ নভেম্বর ভৈরবে জন্ম গ্রহণ করেন। পিতা আলহাজ্ব আবদুল লতিফ ছিলেন স্থানীয় পৌরসভার প্রথম চেয়ারম্যান।

কমান্ডার আব্দুর রউফ ছাত্রজীবনে ছাত্র রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন।তিনি ছিলেন ঢাকা কলেজ ছাত্র সংসদের ক্রীড়া সম্পাদক (১৯৫১-৫২), কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের সাধারণ সম্পাদক (১৯৫৩-৫৪) ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক হলের সাধারণ সম্পাদক (১৯৫৫-৫৬)।

তিনি ১৯৬২ সালে পাকিস্তান নৌবাহিনীতে যোগদান করেন। সেখানে কর্মরত থাকা অবস্থায় স্বাধীন বাংলা আন্দোলনের সাথে জড়িত হন। ১৯৬৮ সালে এ কারণে গ্রেপ্তার হন তিনি।

পরবর্তীতে তাকে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় অভিযুক্ত করা হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে ১৪ মাস কারাগারে কাটান। ১৯৬৯ সালে গণ-অভ্যুত্থানের ফলে ওই মামলার অন্য অভিযুক্তদের সাথে মুক্তি পান।

এরপর তিনি নরসিংদী কলেজে অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭১ সালে একজন মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হিসেবে তার অবদান ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

বাংলাদেশের কমিউনিষ্ট পার্টি, অধ্যাপক মোজাফফর আহমেদের নেতৃত্বাধীন ন্যাপ ও ছাত্র ইউনিয়নের তরুণদের নিয়ে যে বিশেষ গেরিলা বাহিনী গঠিত হয়েছিল সেই বাহিনীর তিন-সদস্যবিশিষ্ট পরিচালকমণ্ডলীর তিনি ছিলেন অন্যতম সদস্য।

স্বাধীনতার পর পুনরায় ১৯৭২ সালের আগস্ট মাসে তিনি বাংলাদেশ নৌ-বাহিনীতে যোগদান করেন এবং নৌবাহিনী পুনর্গঠনে বিশেষ অবদান রাখেন। ১৯৭৩ সালে তিনি কমান্ডার পদে উন্নীত হন। বঙ্গবন্ধু নিহত হওয়ার পর তৎকালীন সামরিক সরকার তাকে কারারুদ্ধ করেন। ১৯৭৬ সালে কারাগার থেকে মুক্তি পান।

মুক্তিযুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য ২০১৩ সালে বাংলা একাডেমি কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরবের এই কৃতী সন্তানকে সম্মানসূচক ফেলোশিপ প্রদান করে।

একজন সুলেখক হিসেবে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা ও আমার নাবিক জীবন, আমার ছেলেবেলা ও ছাত্র রাজনীতিসহ ৭টি গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থের রচয়িতা ছিলেন কমান্ডার আব্দুর রউফ।

১৯৯৩ সালে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন গণফোরাম প্রতিষ্ঠার সঙ্গে সক্রিয়ভাবে যুক্ত থাকা ছাড়াও মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত গণফোরামের সভাপতিমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য ছিলেন।

প্রয়াত কমান্ডার আব্দুর রউফ আদর্শের প্রতি অবিচল ছিলেন। স্বাধীন সার্বভৌম ও শোষণহীন স্বদেশ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন ছিল তাঁর। যে কারণে শত প্রলোভনেও তিনি মাথা নত করেননি।

আগতরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় কারারুদ্ধ অবস্থায় দিনের পর দিন তিনি অভুক্ত থেকেছেন। একাত্তরের মুক্তিসংগ্রামে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

পঁচাত্তরে সপরিবারে বঙ্গবন্ধু নিহত হওয়ার পরও গ্রেপ্তার হয়ে কারাবরণ এবং অন্যায়ভাবে চাকুরিচ্যুত হয়েছেন। সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে।

নির্মোহ চিত্তের অধিকারী আপাদমস্তক এই রাজনীতিকের প্রস্থান আমাদের জাতীয় জীবনের এক অপূরণীয় ক্ষতি। মানুষের প্রতি তার মমত্ববোধ, দেশপ্রেম ও আদর্শ বাঙ্গালি জাতির ইতিহাসে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর