কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শিক্ষক বাবার লাশ বাড়িতে রেখে পরীক্ষা দিল আভা


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, সোমবার, ৮:৪৭ | এক্সক্লুসিভ 


বাবা-মা’র একমাত্র সন্তান খাইরুন নাহার আভা। নিকলী শহীদ স্মরণিকা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসেবে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে সে। বাবা খাইরুল ইসলাম কাজল মিঠামইন উপজেলার ঘাগড়ার চমকপুর দাখিল মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক।

আদরের সন্তান আভা’র এসএসসি পরীক্ষা চলছে। তাই মাদ্রাসা থেকে ছুটি নিয়ে বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে নিজ বাড়ি নিকলী উপজেলা সদরের বড়হাটি গ্রামে আসেন খাইরুল ইসলাম কাজল।

স্ত্রী-কন্যাকে নিয়ে মধুময় সময় পার করছিলেন মাদ্রাসা শিক্ষক খাইরুল ইসলাম কাজল। কিন্তু কে জানতো! তাঁর স্ত্রী-কন্যাকে মুখোমুখি হতে হবে এমন নিষ্ঠুর বাস্তবতার।

রোববার (১৬ ফেব্রুয়ারি) রাত সোয়া ৮টার দিকে ফ্রেন্ডস ফোরাম প্রাঙ্গণে বন্ধুদের সাথে আড্ডা আর ক্যারাম খেলার সময় হঠাৎ করেই বুকে ব্যথা অনুভব করেন খাইরুল ইসলাম কাজল।

দ্রুত তাকে নেয়া হয় নিকলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। সেখান থেকে নেয়া হয় বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

কিন্তু ততক্ষণে পৃথিবীর মায়া কাটিয়ে তিনি চলে গেছেন না ফেরার দেশে। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

রাত ৯টার দিকে জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তাঁর এমন আকস্মিক মৃত্যুতে কান্নার রোল ওঠে পরিবারে। স্ত্রী হোসনে আরা বার বার মূর্চ্ছা যান। কন্যা আভার আহাজারিতে ভারি হয়ে ওঠে এলাকার পরিবেশ। শোকের ছায়া নেমে আসে পুরো এলাকায়।

রাতভর আহাজারি আর মাতম শেষে সোমবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে খাইরুন নাহার আভাকে বসত হয় পরীক্ষায়। বাবার লাশ বাড়িতে রেখে সকলের অনুরোধ-উপদেশে আভাকে যেতে হয় নিকলী জিসি পাইলট মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে।

সেখানে পিতা হারানোর শোক বুকে নিয়ে এসএসসি পরীক্ষার পদার্থ বিজ্ঞান বিষয়ে পরীক্ষায় অংশ নেয় আভা। বাবাকে শেষবারের মতো একবার দেখতে, তাকে ছুঁতে কোনরকমে পরীক্ষা শেষ করেই ছুটে আভা।

নিকলী উপজেলা সদরের বড়হাটি গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজ এর তিন ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে সবার বড় ছিলেন খাইরুল ইসলাম কাজল।

কাজলের ছোট দুই ভাইয়ের মধ্যে খায়রুল ইসলাম বাদল কিশোরগঞ্জের শিল্প-সংস্কৃতি অঙ্গণের এক প্রিয়মুখ। আর একেবারে ছোট ভাই খাইরুল মোমেন স্বপন নিকলীতে সাংবাদিকতা করছেন।

৫৪ বছর বয়সী খাইরুল ইসলাম কাজল তাঁর জীবনের সুদীর্ঘ ৩০টি বছর পার করেছেন শিক্ষকতার মতো মহান পেশায়। ছিলেন খুবই বন্ধুবৎসল আর প্রাণোচ্ছ্বল। তাকে হারানোর বেদনায় কাঁদছে তাঁর বন্ধুমহল।

তাঁর মৃত্যুতে কিশোরগঞ্জ-৫ (বাজিতপুর-নিকলী)আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আফজাল হোসেন, নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শামছুদ্দিন মুন্না সহ উপজেলার রাজনৈতিক ও সামাজিক ব্যক্তিবর্গ গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

বাদ জোহর নিকলী কেন্দ্রিয় ঈদগাহে তাঁর নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। নামাজে জানাজা শেষে পশ্চিমগ্রাম গোরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর