কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে পাঁচ জনে মিলে কিশোরী ধর্ষণ, গ্রেপ্তার এক


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ২৭ জানুয়ারি ২০২০, সোমবার, ৪:৩৪ | অপরাধ 


গাজীপুরের টঙ্গীতে খালার বাসা থেকে সুনামগঞ্জের বাড়িতে যাওয়ার পথে ভৈরব বাসস্ট্যান্ডে নেমে গণধর্ষণের শিকার হওয়া কিশোরীকে পাঁচ জনে মিলে ধর্ষণ করে। ভৈরব বাসস্ট্যান্ড থেকে সিলেট বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে ধর্ষকদল জগন্নাথপুর রেললাইনের নিকটবর্তী স্থানে কিশোরীকে নিয়ে যায়। পরে পার্শ্ববর্তী জঙ্গলে নিয়ে কিশোরীকে জোরপূর্বক পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

গত ১৫ জানুয়ারি দিবাগত রাত সাড়ে ৮টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত সংঘটিত এই গণধর্ষণের ঘটনায় জড়িত অভিযোগে অপু ওরফে বাবু মিয়া (১৭) কে আটকের পর র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে সে গণধর্ষণে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে র‌্যাবকে এসব তথ্য জানায়।

রোববার (২৬ জানুয়ারি) দিবাগত রাত তিনটার দিকে ভৈরবের জগন্নাথপুর এলাকায় র‌্যাব-১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্পের একটি টিম অভিযান চালিয়ে অপু ওরফে বাবু মিয়াকে আটক করে। র‌্যাব-১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের এবং সিনিয়র এডি চন্দন দেবনাথ এই অভিযানে নেতৃত্ব দেন।

আটক হওয়া অপু ওরফে বাবু মিয়া জগন্নাথপুর এলাকার হাবিবুর রহমানের ছেলে।

র‌্যাব-১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের জানান, র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অপু ওরফে বাবু মিয়া স্বীকার করে যে, সে সহ পাঁচ জন মিলে ১৩ বছরের ওই কিশোরীকে ভৈরব বাসস্ট্যান্ড থেকে সিলেট বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে জগন্নাথপুর রেললাইনের নিকটবর্তী এলাকায় নিয়ে যায় এবং পার্শ্ববর্তী জঙ্গলে নিয়ে কিশোরীকে জোরপূর্বক পালাক্রমে গণধর্ষণ করে।

জিজ্ঞাসাবাদে অপু ওরফে বাবু মিয়া আরো জানায়, ভৈরবের কয়েকজন শীর্ষ ছিনতাইকারীর নেতৃত্বে তারা মাঝে মাঝে এ ধরনের ঘৃণ্যতম অপরাধে লিপ্ত হয় এবং ছিনতাই, চুরি, ডাকাতির মাধ্যমে মানুষের মোবাইল, স্বর্ণালংকার ও টাকা-পয়সাসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ সরঞ্জামাদি হাতিয়ে নেয়।

গণধর্ষণে জড়িত বাকিদের ধরতে র‌্যাব জোর তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে প্রেস ব্রিফিংয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের সাংবাদিকদের জানান, কিশোরী গাজীপুরে তার খালার বাসায় থাকত। গত ১৫ জানুয়ারি খালার সাথে কথা কাটিকাটি হলে সে তার নিজ বাড়ি সিলেটের সুনামগঞ্জে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হয়ে যায়।

পরে কিশোরী সিলেটের বাসে না ওঠে ভুলে ভৈরবের বাসে উঠে পড়ে। এই সময় বাসে এক ছেলের সাথে তার কথা হলে সেই ছেলে কিশোরীকে নিজের কথার ফাঁদে ফেলে দেয়। সে কিশোরীকে ভৈরবে নেমে তাকে সিলেটের বাসে তুলে দিবে বলে আশ্বস্ত করে।

ভৈরবে এসে বাস থেকে ভৈরব বাসস্ট্যান্ডে নামার পর কিশোরীকে সিলেটের বাসে তুলে না দিয়ে ব্যাটারিচালিত একটি ইজিবাইক যোগে পৌর শহরের জগন্নাথপুর রেলওয়ে স্টেশনের নির্জন এলাকায় নিয়ে যায়। পরে সেখানে তার অন্য বন্ধুদের সহযোগিতায় কিশোরীর মুখে চেপে ধরে পাশের জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে পাঁচজন মিলে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

কিশোরী গণধর্ষণের ঘটনায় গত ১৬ জানুয়ারি ভৈরব রেলওয়ে থানায় মামলা দায়েরের পর থেকে র‌্যাব অভিযুক্তদের ধরতে জোর তৎপরতা চালিয়ে আসছিল। এর ধারাবাহিকতায় রোববার (২৬ জানুয়ারি) দিবাগত রাত তিনটার দিকে ভৈরবের জগন্নাথপুর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে তারা সন্দিগ্ধ হিসেবে অপু ওরফে বাবু মিয়াকে আটক করেন। র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে সে গণধর্ষণে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে গণধর্ষণের ঘটনার বিবরণ দেয়।

মামলা ও ভৈরব রেলওয়ে পুলিশ সূত্র জানায়, গণধর্ষণের শিকার কিশোরীর বাড়ি সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার বোয়ালি গ্রামে। কিশোরী গাজীপুরের টঙ্গীতে খালার বাসায় থাকতো। মাতৃহীন হওয়ায় খালা গত পাঁচ বছর ধরে কিশোরীকে তার বাসায় রেখে লালন পালন করে আসছিলেন।

খালার বাসা থেকে কথা কাটাকাটি করে বেরিয়ে যাওয়ার পর গত ১৫ই জানুয়ারি রাতে গণধর্ষণের শিকার হয় মেয়েটি। গণধর্ষণের পর মেয়েটিকে অন্য জায়গায় নিয়ে যেতে চাইলে স্থানীয় এক ব্যক্তিকে দেখে ধর্ষকরা পালিয়ে যায়।

রাত দেড়টার দিকে ওই ব্যক্তি মেয়েটিকে রেলওয়ে থানায় নিয়ে যায়। পরে কিশোরীকে চিকিৎসার জন্য ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায় রেলওয়ে পুলিশ। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনায় পরদিন ১৬ই জানুয়ারি বিকালে কিশোরীর খালা বাদী হয়ে রেলওয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর