কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বাবাকে অপহরণ করে মেয়েকে ধর্ষণের ফাঁদ, পুলিশের তৎপরতায় রক্ষা, গ্রেপ্তার এক


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৮ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার, ১১:৩৭ | সারাদেশ 


নাটক কিংবা সিনেমার গল্পকেও হার মানিয়ে কুমিল্লায় ভুয়া ডিবি পুলিশ পরিচয়ে অটোচালক বাবাকে অপহরণ করে মেয়েকে ধর্ষণের পরিকল্পনা করে একদল দুর্বৃত্ত। কুমিল্লার পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম (বার) পিপিএম এর দ্রুত হস্তক্ষেপে পুলিশের তৎপরতায় ধর্ষণের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে মেয়েটি। মাত্র দুই ঘন্টার মধ্যে মেয়েটির অপহৃত বাবাকে উদ্ধার করা ছাড়াও অপহরণকাণ্ডে জড়িত জামাল মিয়া নামে এক দুর্বৃত্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

রোববার (১৭ নভেম্বর) দুপুরে কুমিল্লা সদর সার্কেল এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভীর সালেহীন ইমন পিপিএম এক ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে সাংবাদিকদের এই তথ্য দেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভীর সালেহীন ইমন পিপিএম জানান, শনিবার (১৬ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৬টার দিকে কুমিল্লা কোতয়ালী থানাধীন দৌলতপুর এলাকার নিজ বাড়ি থেকে বোনের বাড়ি সদর দক্ষিণ থানার রাজারখলা যাওয়ার পথে চিশতিয়া জুট মিলের সামনে সাদা রংয়ের প্রাইভেট কারে চার ব্যক্তি অটোচালক আজাদ হোসেন (৪৫) এর গতি রোধ করে গামছা দিয়ে চোখ বেঁধে ভুয়া ডিবি পুলিশ পরিচয়ে গাড়িতে করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়।

পরবর্তীতে সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে আজাদ হোসেনের কন্যা রিয়া আক্তারের মোবাইলে ফোন দিয়ে তাকে একা ৫০ হাজার টাকাসহ নেওড়া এলাকায় যেতে বলে অপহরণকারীরা। এ সময় তারা রিয়ার সাথে অপহৃত বাবা আজাদ হোসেনকে কথাও বলিয়ে দেয়।

রাত পৌনে ৯টার দিকে রিয়া আক্তার বিষয়টি কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানায় গিয়ে জানালে পুলিশ সুপার কুমিল্লা সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম (বার) পিপিএম তাঁর সহকর্মীদের তাৎক্ষণিক দুইটি দলে বিভক্ত করে অপারেশন পরিচালনা করার জন্য প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা প্রদান করেন।

রিয়া আক্তারকে সাথে নিয়েই কোতয়ালী থানা পুলিশ অপরাধীদের অবস্থান নিশ্চিত করে নাটকীয় অভিযান পরিচালনা করে নেওরা ইকো পার্কের পাশে একটি ছয়তলা বিল্ডিং এর নিচ তলা হতে শেকলে বাধা অবস্থায় অপহৃত আজাদ মিয়াকে উদ্ধার করে।

এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তিনজন অপহরণকারী পালিয়ে গেলেও ঘটনাস্থল থেকে জামাল মিয়া নামে এক অপহরণকারীকে পুলিশ হাতেনাতে গ্রেপ্তার করে।
গ্রেপ্তার হওয়া জামাল মিয়া কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের বারেশ্বর গ্রামের বাচ্চু মিয়ার ছেলে। সে নগরীর নেউড়া এলাকায় জহিরুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে ভাড়ায় থাকে।

অন্যদিকে উদ্ধার হওয়া আজাদ হোসেন কুমিল্লা কোতয়ালী থানাধীন দৌলতপুর এলাকার আব্দুর রশিদের ছেলে। তিনি ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চালান।

উদ্ধারের পর রিয়ার বাবা আজাদ হোসেন জানান যে, মূলত তাকে জিম্মি করে তার মেয়ে রিয়া আক্তারকে ধর্ষণের উদ্দেশ্যে অপহরণকারী এই ফাঁদ সৃষ্টি করে এবং এ বিষয়ে তারা পারস্পরিক আলোচনা করছিল।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভীর সালেহীন ইমন পিপিএম আরো জানান, এ ঘটনায় চার জনকে আসামি করে কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ সংক্রান্ত আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এছাড়া অপর আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর