কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কেন মহিলা আওয়ামী লীগের কমিটিতে নেই জানতে চেয়েছেন সার্জেন্ট জলিল কন্যা ন্যান্সি


 স্টাফ রিপোর্টার | ৯ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার, ১২:১৩ | রাজনীতি 


তাঁর বাবা আবদুল জলিল ছিলেন তৎকালীন পাকিস্তান বিমান বাহিনীর একজন চৌকস ফ্লাইট সার্জেন্ট। সরকারি চাকরি করেও বাঙালির স্বাধিকার ও স্বাধীনতা প্রশ্নে সার্জেন্ট জলিল বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখেছিলেন। যে কারণে পাকিস্তান সরকার কর্তৃক বঙ্গবন্ধু ও অন্যান্যের বিরুদ্ধে রুজুকৃত আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় সার্জেন্ট জলিলও অভিযুক্ত হিসেবে রাষ্ট্রীয় হয়রানির শিকার হন।

সার্জেন্ট জলিলের গর্বিত উত্তরাধিকার ফৌজিয়া জলিল ন্যান্সি। সার্জেন্ট জলিল কন্যা ফৌজিয়া জলিল ন্যান্সি বর্তমানে কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদের নির্বাচিত সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া জেলার বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথেও তিনি নিবিড়ভাবে সম্পৃক্ত রয়েছেন।

কিন্তু বেশ কিছুদিন আগে গঠিত কিশোরগঞ্জ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটিতে ঠাঁই হয়নি ফৌজিয়া জলিল ন্যান্সি। শুক্রবার (৮ নভেম্বর) রাতে ফেসবুকে ফৌজিয়া জলিল ন্যান্সি তার আইডি থেকে দেয়া এক পোস্টে কমিটিতে তাঁর না থাকার ব্যাপারে ব্যাখ্যা চেয়েছেন।

‘কোন যোগ্যতার অভাব আমার আমি জানতে চাই’ শিরোনামে ফৌজিয়া জলিল ন্যান্সি লিখেছেন, “অত্যন্ত গোপনীয়তায় একটি মামলার বিচার শুরু হয়েছিল ঢাকার কুর্মিটোলা সেনানিবাসের একটি সুরক্ষিত কক্ষে। ১৯৬৮ সালের ১৯ জুন তৎকালীন পাকিস্তান দণ্ডবিধির ১২১-ক ধারা এবং ১৩১ ধারায় শুরু হয়েছিল মামলাটির শুনানি। আসামী ৩৫ জন। ১নং আসামী শেখ মুজিবুর রহমান। মামলাটি শুরু হয়েছিল রাষ্ট্র বনাম শেখ মুজিবুর৷ রহমান গং নামে। পরে সরকারের নির্দেশে নাম বদলে আখ্যায়িত করা হয় আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা নামে।

ঐতিহাসিক আগরতলা মামলার অভিযুক্তগণ ছিলেন প্রথম স্বাধীনতার বীজ রোপনকারী বা বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পথিকৃত।

আগরতলা মামলার অভিযুক্ত ২৯ নং ফ্লাইট সার্জেন্ট(অব) আঃ জলিল আমার পরম শ্রদ্ধেয় বাবা। পাকিস্তানি বিমান বাহিনীর করঙ্গী ক্রীক বিমান ঘাঁটির অস্ত্রাগার হতে কর্পোরাল এ কে আঃ হাই এর মারফতে সুকৌশলে লুকিয়ে এনেছিলেন ফ্লাইট সার্জেন্ট মফিজুল্লাহ একটি তাজা হ্যান্ড গ্রেনেড। যার প্রশিক্ষক ছিলেন শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক।

১৯৬৪ সাল থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতাকামী সদস্যদের অস্ত্র ব্যবহার ও তাজা গ্রেনেড নিক্ষেপের ট্রেনিং চলতো আমার আব্বার করাচীর বাসায় গোপনে। আগরতলা মামলার ষড়যন্ত্রকারী আসামী হিসেবে বন্দী করার সময় পুলিশ তাজা গ্রেনেডটিকে জব্দ করে এবং আগরতলার মামলার আলামত হিসেবে দাখিল করে। ঐতিহাসিক এই হ্যান্ডগ্রেনেডটি বর্তমানে ঢাকা সেনানিবাসে বিজয়কেতন মুক্তিযুদ্ধের জাদুঘরে স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রস্তুতিপর্বের (আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার) নিদর্শন হিসেবে রক্ষিত আছে।

১৯৬৯ সালের ২২ ফেব্রুয়ারী জনগণের উত্তাল দাবীর মুখে পাকিস্তান সরকার এই মামলা প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয়। দীর্ঘ ৮মাস অমানুষিক কারাভোগ, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখেছিলেন এবং মুক্তিযুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছিলেন।

এসব আজ ইতিহাস। আজ আওয়ামী লীগের জেলা উপজেলা কাউন্সিলে বিতর্কিতদের পদ না দিতে তৃণমূলে চিঠি দিবে কেন্দ্রীয় ভাবে। কিন্তু আমাদের শরীরে, রক্তে, চেতনায় আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ রয়েছে তাহলে কিশোরগঞ্জ মহিলা আওয়ামী লীগের যে আহবায়ক কমিটি হয়েছে তাতে আমার নাম নেই কেন?? যারা আছেন তারা কি বিতর্কের উর্ধ্বে??

আমার কি খাঁটি আওয়ামী লীগ হতে আরো কিছু নমুনা দরকার?? এই কমিটি কারা করেছে এর উদ্দেশ্য জানতে চাই। আমি জেলা পরিষদের নির্বাচিত একজন সদস্য। কিশোরগঞ্জ মহিলা আওয়ামী লীগে কয়জন জন প্রতিনিধি আছে, আমি জানতে চাই আর আমি কোন যোগ্যতার অভাবে আমি বাদ পড়লাম এটাও আমার জিজ্ঞাসা??? পরীক্ষিত খাঁটি দেশপ্রেমিক মুক্তিযোদ্ধার মেয়েও কি আমার যোগ্যতার মাপকাঠি নয়??”




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর