কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বাংলা শিশুসাহিত্যের পথিকৃৎ উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী


 মু আ লতিফ, সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক | ৬ নভেম্বর ২০১৯, বুধবার, ১১:৩৯ | ব্যক্তিত্ব 


ঢাকা বিভাগের একটি অন্যতম জেলা কিশোরগঞ্জ। হাওর-বাঁওরে ঘেরা বৈচিত্র্যময় ভূ-প্রকৃতির এক অনন্য জনপদ কিশোরগঞ্জ। চন্দ্রাবতী, মহুয়া-মলুয়ার দেশ এই কিশোরগঞ্জ।এই জেলার ভৌগোলিক আয়তন প্রায় ২,৬৮৯ বর্গ কিলোমিটার। জেলার ১৩টি উপজেলার পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে ইতিহাস আর ঐতিহ্যের নিদর্শন। শিল্প-সাহিত্য আর লোকসংস্কৃতির এক সমৃদ্ধ ও উর্বর জনপদের নাম কিশোরগঞ্জ।

কিশোরগঞ্জ অসংখ্য কীর্তিমান মানুষের জন্মস্থান। মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান, বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রয়াত মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, র্যাংলার আনন্দমোহন বসু, পণ্ডিত শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরী, মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী, উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী, বিপ্লবী রেবতী মোহন বর্মন, শিক্ষানুরাগী মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ, শহীদ ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী, শাহনামা অনুবাদক কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ এর মতো অনেক বিখ্যাত লোকের জন্মস্থান কিশোরগঞ্জ।

আমরা ধারাবাহিকভাবে পরিচিত হবো এমনই কিছু বিখ্যাত ব্যক্তিদের সাথে। আজ ষষ্ঠ পর্বে আমরা তুলে ধরছি বাংলা শিশুসাহিত্যের পথিকৃৎ ও বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী এঁর সংক্ষিপ্ত জীবনালেখ্য। লিখেছেন সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক মু আ লতিফ

বাংলা শিশুসাহিত্যের পথিকৃৎ ও বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী কিশোরগঞ্জ জেলার কটিয়াদী উপজেলার মসূয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তবে তাঁর পূর্বপুরুষদের আবাসভূমি ছিল আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশে। ঐতিহাসিকদের মত হচ্ছে, মসূয়ার বিখ্যাত ‘রায়চৌধুরী’ পরিবারটির পূর্বপুরুষদের আবাস ছিল পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার চাকদহ গ্রামে। এটা প্রায় সাড়ে চারশ বছর আগের কথা। জানা যায়, এর আরো আগে এঁরা ভারতের বর্তমান বিহার রাজ্যের অধিবাসী ছিলেন। জাতে এঁরা ছিলেন রাঢ়ী কায়স্থ এবং তাঁদের পদবি ছিল ‘দেও’ বা ‘দেব’।

আনুমানিক ১৬০০ খ্রিস্টাব্দেরও আগে রামসুন্দর দেব নামে উপেন্দ্রকিশোরের একজন পূর্বপুরুষ ভ্রমণ-পিপাসা চরিতার্থ করার মানসে অথবা আর্থিক উন্নয়নের আশায় দেশ ছেড়ে পূর্ববাংলায় পাড়ি জমান। দিল্লির সিংহাসনে তখন সম্রাট আকবর। বারো ভূঁইয়া প্রধান ঈসা খাঁ তখন বাংলার মসনদে আসীন। ওই সময় রামসুন্দর দেব শেরপুর গ্রামে (বর্তমান শেরপুর জেলা) এসে পৌঁছান। রামসুন্দরের সুন্দর চেহারা ও আচার-ব্যবহারে সন্তুষ্ট হয়ে শেরপুরের তৎকালীন জমিদার তাকে জমিদারির সেরেস্তায় চাকরি দিলে স্বল্প সময়েই তিনি তাঁর কাজে যথেষ্ট সুনাম অর্জন করতে সক্ষম হন।

শেরপুরের জমিদারের সাথে কিশোরগঞ্জের যশোদলের জমিদার গুণিরাম রায়ের সখ্যর কারণে একবার তিনি শেরপুরে বেড়াতে গিয়ে রামসুন্দরের দেখা পান। ওই সময় তিনি তাঁর  ব্যবহার ও কাজে মুগ্ধ হয়ে তাঁকে জামাই নির্বাচন করে বাড়ি নিয়ে আসেন। এরপর থেকেই রামসুন্দর স্থায়ীভাবে যশোদলে বসবাস করতে থাকেন। পরবর্তীকালে রামসুন্দরের নাতি রামনারায়ণ কটিয়াদীর মসূয়ায় বসতি স্থাপন করেন।

যতদূর জানা যায়, রামসুন্দরের নাতি রামনারায়ণ ও তাঁদের বংশপরম্পরা তৎকালীন সরকারি চাকরিতে যথেষ্ট সুনাম অর্জন করে। এছাড়া তাঁদের অনেকেই অত্যন্ত প্রতিভাবান ও বহু ভাষাবিদ হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছিলেন। সময়ের বিবর্তনে তাঁদের পরিবারের ‘দেব’ পদবি ‘রায়’ উপাধিতে রূপান্তরিত হয়। তাঁদের পরবর্তী প্রজন্ম ব্রজরাম ও বিষ্ণুরামের মধ্যে বিষ্ণুরাম ছিলেন বৈষয়িক। তিনি এলাকায় বহু জমিজমা কিনেছিলেন। তার পুত্র সোনারাম পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করেন এবং আরো প্রচুর সম্পত্তি কিনে জমিদারি লাভ করেন।

জানা যায়, তাঁর বংশই ‘রায়চৌধুরী’ নামে পরিচিতি লাভ করে। এ পরিবারের সদস্যরা অনেকেই সুপণ্ডিত ছিলেন। তাঁরা আরবি, ফারসি ও সংস্কৃতে পারদর্শী ছিলেন। এই পরিবারের এক অধস্তন পুরুষ ছিলেন শ্যামসুন্দর বা কালীনাথ রায়। তাঁর স্ত্রীর নাম জয়তারা। তাঁদের ঘরে আটটি সন্তান জন্মেছিল। এঁর তৃতীয় সন্তানের নাম কামদারঞ্জন, যিনি পরবর্তীকালে উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী হিসেবে বিখ্যাত হন।

উপেন্দ্রকিশোর ১৮৬৩ খ্রিস্টাব্দের ১০ মে কটিয়াদী উপজেলার মসূয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বয়স যখন চার-পাঁচ বছর, তখন তাঁর বাবা শ্যামসুন্দর তাঁকে তাঁরই আত্মীয় হরিকিশোর রায়চৌধুরীর কাছে দত্তক প্রদান করেন। সেখানেই তাঁর নাম রাখা হয় উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী।

ঐতিহাসিকভাবে স্বীকৃত রায় পরিবার আমাদের গর্ব। উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী তাঁর সাহিত্যকর্ম দিয়ে বাংলা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন। তিনি ছিলেন একাধারে শিশুসাহিত্যিক, সঙ্গীতজ্ঞ ও যন্ত্রকৌশলী। বাংলা শিশুসাহিত্যের প্রাথমিক বিকাশ তাঁর হাতেই ঘটেছিল। বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী উপেন্দ্রকিশোর রায়ের কর্মজীবনে বিজ্ঞান ও শিল্পে প্রাচ্য ও প্রতীচ্যের উল্লেখযোগ্য সমন্বয় ঘটেছিল।

জানা যায়, তিনি বাড়ির ছাদে বসে দুরবিন চোখে আকাশের তারা দেখতেন এবং এসব নিয়ে সহজ-সরল ভাষায় ছোটদের জন্য পৌরাণিক কাহিনী ও উপকথা লিখতেন। তাছাড়া তিনি পাশ্চাত্য নিয়মে তেলরঙ ও জলরঙ এবং কালিকলমে ছবি আঁকতেন।

উপেন্দ্রকিশোরের শিশুসাহিত্যের প্রথম প্রকাশ ১৮৮৩ সালে ‘সখা’ পত্রিকায়। তাঁর লেখা প্রকাশিত প্রথম বইয়ের নাম ‘ছেলেদের রামায়ণ’। উক্ত বইয়ের সব ছবিই ছিল তাঁরই হাতে আঁকা। ফটোগ্রাফি, বিজ্ঞান ও সঙ্গীতে তাঁর যথেষ্ট দক্ষতা থাকলেও তাঁর শ্রেষ্ঠ কীর্তি হচ্ছে শিশুসাহিত্যের ক্ষেত্রে। তাঁর সম্পাদনায় প্রকাশিত মাসিক পত্রিকা ‘সন্দেশ’ বাংলা সাহিত্যে এক উল্লেখযোগ্য সংযোজন। এটি ১৯১৩ খ্রিস্টাব্দের মে মাসে প্রকাশিত হয়। তিনি ব্রাহ্মমতে বিশ্বাসী ছিলেন।

উপেন্দ্রকিশোরের বাল্যকাল কেটেছে ময়মনসিংহ শহরে। তিনি ময়মনসিংহ স্কুলের ছাত্র ছিলেন। পড়াশোনার সময় থেকেই তিনি বাঁশি বাজাতে অভ্যস্ত হয়ে পড়েন। এরপর বাঁশির সাথে বেহালা বাজাতেন। মেধাবী ছাত্র হিসেবেও তাঁর সুনাম ছিল। তিনি অংক ও বিজ্ঞানে সবসময় ভালো ফল করতেন। তিনি ময়মনসিংহ জেলা স্কুল থেকে বৃত্তিসহ প্রবেশিকা পরীক্ষায় পাস করেন। পরে তাঁকে উচ্চতর শিক্ষার জন্য কলিকাতায় যেতে হয়। সেখানে তিনি প্রেসিডেন্সি কলেজে ভর্তি হন এবং হোস্টেলে জায়গা নেন।

এখানে পড়াশোনার সময়ই তিনি উপলব্ধি করেন সাহিত্য-সংস্কৃতি ও সঙ্গীত-শিল্প হচ্ছে বাঙ্ময় জীবনের অবিচ্ছেদ্য অবলম্বন এবং কলকাতা হলো এর অন্যতম পীঠস্থান। জীবনের এ উপলব্ধি থেকে তিনি নানা বিষয়ে জ্ঞানার্জনে মনোনিবেশ করেন।

একুশ বছর বয়সে তিনি বিএ পাস করেন। এরপর সম্ভবত ছবি আঁকায় মনোনিবেশ করেন। এছাড়া তিনি ব্রাহ্মসঙ্গীত রচনা ও মুদ্রণশিল্প নিয়ে মৌলিক গবেষণা শুরু করেন। ছবি আঁকা, ছবি ছাপা ইত্যাদি নিয়ে বহুদিন কাজ করার পর তিনি ১৮৯৫ সালে বিলাত থেকে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি নিয়ে এসে ‘ইউ রায় এন্ড সন্স’ নামে প্রেস প্রতিষ্ঠা করেন। ফটোগ্রাফি, ফটোগ্রাফিতে স্ক্রিন বসানো, সঙ্গীত, বিজ্ঞান ইত্যাদি বিষয়ে তিনি সিদ্ধহস্ত হয়ে উঠেন। তাঁর জলরঙের ওয়াশ দিয়ে ছবি আঁকার পদ্ধতি, হাফটোনে এর ছাপার নিয়ম এ দেশে প্রকাশনাশিল্পে নতুন মাত্রা যুক্ত করে।

বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী উপেন্দ্রকিশোর রায় তাঁর স্বল্পায়ু জীবনে সাহিত্য ক্ষেত্রে, মুদ্রণ জগতে ও চিত্রকলাসহ বিজ্ঞান ও শিল্পকলায় যে আধুনিকতার সূত্রপাত ঘটিয়েছিলেন পরবর্তীকালে তা-ই ফুলে-ফলে বিরাট-ব্যাপকতায় জীবন ও জগৎকে উদ্ভাসিত করেছিল।

কিশোরগঞ্জের সুসন্তান এই মনীষী ডায়াবেটিক রোগে আক্রান্ত হয়ে মাত্র বায়ান্ন বছর বয়সে ১৯১৫ খ্রিস্টাব্দের ২০ ডিসেম্বর পরলোক গমন করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর