কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


একজন যোগ্য অভিভাবক এবং পরিবর্তনের নায়ক


 মো. আব্দুল বাতেন | ৩১ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১২:৫১ | মত-দ্বিমত 


ওসির মাথার টুপি ঠিক করে দিচ্ছেন এসপি।

কিশোরগঞ্জ জেলা পুলিশের এক স্বর্ণযুগের শুভ সূচনা হয় ২০১৮ সালের ১৯ মার্চ তারিখ থেকে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের পুলিশ শাখা-২ এর উপসচিব ফারজানা জেসমিন স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে যেদিন মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ (বিপিএম) কিশোরগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

কুড়িগ্রাম জেলার গর্বিত সন্তান রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি স্বরূপ পুলিশের সর্বোচ্চ পদক (বিপিএম) প্রাপ্ত মেধাবী, চৌকস, সুক্ষ্ম কর্মদক্ষতা, সৎ, মানবিক, জনবান্ধব ও সাহসী, স্মার্ট এবং ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন ব্যক্তির যোগদানের মাধ্যমে জনগণের শুভ প্রাপ্তির হাতেখড়ি হয়।

বাংলাদেশে প্রতি এক লাখ মানুষের জন্য ৩২ জন পুলিশ নিয়োজিত রয়েছে। সেখানে কিশোরগঞ্জ জেলার সার্বিক আইন শৃঙ্খলা বিবেচনা করলে দেখা যাবে কিশোরগঞ্জবাসী কোন উন্নত দেশের জনগণের মত জীবনযাপন করছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলা পুলিশের কাছ থেকে অগণিত প্রাপ্তি এ জেলার মানুষের জনগণের মনে আশার আলো সঞ্চার করেছে। পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ নামক একটি পরশ পাথরের ছোঁয়ায় জেলার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির ব্যপক উন্নতি সাধিত হয়েছে।

কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠের ২০১৬ সালের জঙ্গী হামলার পুনরাবৃত্তি যাতে না ঘটতে পারে সেদিকে নজর রেখে প্রথমবারের মত সংযোজন করা হয় দুটি ড্রোন ক্যামেরা। জঙ্গি হামলার পরের বছর থেকে জেলার সাধারণ মানুষসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা ধর্মপ্রাণ মুসল্লীদের নির্বিঘ্নে নামাজ আদায় করার উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করে সাধারণ মানুষের মনে আস্থার জায়গা করে নিয়েছে কিশোরগঞ্জ জেলা পুলিশ। যার পুরো কৃতিত্বের ক্রেডিট আমাদের সবার মধ্যমনি পরিবর্তের নায়ক চেঞ্জ মেকার ‘মাশরুকুর রহমান খালেদ’ মহোদয়।

সুপরিকল্পিত নিরাপত্তা ব্যবস্থা শুধু ড্রোন ক্যামেরাতেই সীমাবদ্ধ ছিলো না। মাঠের ভেতরে এবং বাইরে ৬৪টি ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা (সিসিটিভি), ৮টি ওয়াচ টাওয়ার, মাঠের আশেপাশে ৫ প্লাটুন এপিবিএন এবং বিজিবি মোতায়েন ছিলো।

এছাড়া সুক্ষ্ম নিরাপত্তা বিধানে এলাকার বিভিন্ন বাড়িওয়ালাদের নতুন ভাড়াটিয়া নিয়ে সচেতনতা গড়ে তোলাসহ সকল মুসল্লীদের মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে দেহ তল্লাসি করে মাঠে প্রবেশ, ভেতরে বাইরে ইউনিফর্ম ও সাদা পোশাকে বিপুল সংখ্যক পুলিশী সহায়তা নজিরবিহীন প্রাপ্তি কিশোরগঞ্জের সাধারণ জনগনের জন্য। যার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পরিকল্পনা ছিলো পুলিশ সুপার মহোদয়ের।

জননন্দিত পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ আরেকটি উল্লেখযোগ্য অবদানের স্বাক্ষর রেখেছেন ‘১০০ টাকায় পুলিশের চাকরি সম্বলিত একটি প্রচারণা এবং তার শতভাগ বাস্তবায়ন। এটা জেলার সাধারণ গরীব মেধাবী সন্তানদের জন্য একটি অনন্য উপহার। কিশোরগঞ্জ জেলা পুলিশের সম্মানিত অভিভাবক এ টু জেড তা করে দেখিয়েছেন।

মেধার মূল্যায়ন হয়েছে, আমার সুদুর বিস্তৃত জানার ভেতর সবাই অকপটে স্বীকার করেছেন, তারা ১০০ টাকায়ই চাকরি পেয়েছেন মেধা, যোগ্যতার বিচারে। তারই ফলশ্রুতিতে কিশোরগঞ্জ জেলার বাসিন্দা ৯০ জন পুরুষ এবং ৬৩ জন নারীসহ মোট ১৫৩ জন কোন ধরনের আর্থিক লেনদেন, তদবীর ছাড়াই নিয়োগপ্রাপ্ত হয়। যা কিশোরগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদের প্রাপ্ত প্রশংসার অংশ বিশেষ।

বিখ্যাত ফরাসি লেখক ও পর্যটক এন্টনি ডি সেইন্ট বলেছিলেন, "জাহাজ বানাতে চাইলে তোমার লোকদের কাজ ভাগ করে দিয়ে নির্দেশ দিতে থাকার বদলে তাদের সমুদ্রের অপার সম্ভাবনার স্বপ্ন দেখাও"। তেমনি প্রশংসা প্রাপ্তির হাত ধরে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ এবং জেলা পুলিশ কিশোরগঞ্জ।

এমন বিচক্ষণ জনবান্ধব মানুষ পুলিশে বড় দরকার যার কাছে কোন অন্যায় অনিয়মের কোন স্থান নেই। একজন ভিন্ন ধাতুতে গড়া মানুষ পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) মহোদয়। যাকে একজন ইউনিট প্রধান হিসেবে পাওয়া ভাগ্যের ব্যপার। যিনি ছোট বড় সবার কাছেই সম্মানিত।

আমরা জানি একজন মানুষ সবার কাছে ভালো হতে পারে না। কিন্তু আমার দুই মাসের জানা শোনা সেটা ভুল প্রমাণ করে দিলো। পুলিশ সুপার মহোদয় হিন্দু মুসলিম, ধনী-গরীব সবার কাছেই দেবতাতুল্য মানুষ। যাকে মানুষ সম্মান করেন, ভয় পান না। যার ভেতর ক্ষমতার গরম, অপব্যবহার এসবের বিন্দুমাত্র নেই। সব সময় হাসিমুখে সকল কিছুর সমাধান করে থাকেন তিনি।

মাশরুকুর রহমান খালেদ মহোদয়ের আন্তরিকতা আর স্মার্ট পুলিশিং এর জন্য মানুষ এখন কিশোরগঞ্জ জেলা পুলিশকে ভয় পায় না, ভালোবাসে। স্যারের চিন্তাধারা এবং পুলিশিং এর ফলে কিশোরগঞ্জ জেলা পুলিশ অন্য জেলার ঈর্ষার কারণ হবে..............।

আসুন আমরা সবাই স্যারের আলো ছড়ানোর কাজের অংশীদার হই, এ মহান পুণ্যের কাজ। স্যারের সুস্থতা কামনা করছি। আল্লাহ্ স্যারকে ভালো রাখুন, সুন্দর রাখুন।

# মো. আব্দুল বাতেন, কনস্টেবল ৮৯৯, জেলা পুলিশ, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর