কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শুভ জন্মদিন হানিফ সংকেত


 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ২৩ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার, ৯:৩৩ | রকমারি 


যিনি বাংলাদেশের মাটি ও আকাশ ছুঁয়েছেন তাঁর জাদুকরি উপস্থাপনা দিয়ে। সমাজের অসঙ্গতির চিত্র তুলে ধরছেন অবলীলায়, এক নিজস্ব স্টাইলে। তিনি হানিফ সংকেত। আজ (২৩ অক্টোবর) তাঁর শুভ জন্মদিন।

‘ইত্যাদি’ খ্যাত হানিফ সংকেত এর পুরো নাম এ কে এম হানিফ। জন্ম ১৯৫৮ সালের ২৩ অক্টোবর। বরিশালে জন্ম নেওয়া হানিফ সংকেত প্রয়াত ফজলে লোহানী’র ‘যদি কিছু মনে না করেন’ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে প্রথম খ্যাতি লাভ করেন। আশির দশকে ‘ইত্যাদি’ শুরু হওয়ার পর থেকেই এটি ছিলো জনপ্রিয়তার শীর্ষে।

বাংলাদেশের বিনোদন অঙ্গনের জনপ্রিয় এই ব্যক্তিত্ব নন্দিত তাঁর অনবদ্য সব সৃজনশীল কর্ম দিয়ে। তবে আলাদাভাবে তিনি মানুষের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন একটি অনন্য ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানের জন্য। এক নামে যেটি পরিচিত- ‘ইত্যাদি’।

ইত্যাদি প্রতিনিয়ত আমাদের হাসিয়ে চলেছে, কাঁদিয়ে চলেছে, আমাদের আবেগের স্রোতে ভাসিয়ে চলেছে। শুরু থেকেই ‘ইত্যাদি’ ছিলো জনপ্রিয়তার শীর্ষে। ইন্টারনেট সংস্কৃতির এই সময়ে চার দশকে পা রেখেছে ‘ইত্যাদি’। এই সময়েও ‘ইত্যাদি’ ইত্যাদিই। বাংলাদেশের জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকা এক টেলিভিশন অনুষ্ঠানের নাম ‘ইত্যাদি’।

আর ‘ইত্যাদি’ যাকে ঘিরে আবর্তিত তিনি হানিফ সংকেত। ইত্যাদি’র হানিফ সংকেত। এই সময়েও ‘ইত্যাদি’ নিজস্বতা আর স্বকীয়তায় উজ্জ্বল। প্রাণের নির্যাসে পরিপূর্ণ এক অনন্য অনুষ্ঠানের নাম ইত্যাদি।

হাজারো অনুষ্ঠানের মাঝ থেকেও যেটিকে খুব সহজেই আলাদা করা যায়, সেটি হচ্ছে ইত্যাদি। শুধু কি অনুষ্ঠান, এটি একটি শিল্পী তৈরিরও অনবদ্য প্লাটফর্ম। এখান থেকে জন্ম হয়েছে অসংখ্য গায়ক আর নামিদামিদের।

হানিফ সংকেত তাঁর ‘ইত্যাদি’তে সূক্ষ হাস্যরসের মধ্য দিয়ে তুলে ধরে চলেছেন আমাদের যাপিত জীবন, সঙ্গতি-অসঙ্গতিকে। তিনি তাঁর অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থান ও স্থাপনাকে তুলে ধরেছেন ভিন্ন আঙ্গিকে। তিনি একাধারে উপস্থাপক, পরিচালক, লেখক ও প্রযোজক।

একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে তাঁর জনপ্রিয় এই ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে তিনি সমাজের ছোটবড় অসঙ্গতি পর্দায় তুলে ধরার প্রয়াস পেয়েছেন। অর্থের পেছনে ছুটেন নি বলেই, মোবাইল কোম্পানীর মডেল হওয়ার প্রস্তাব গ্রহণ করেন নি তিনি।

হানিফ সংকেত এর অনবদ্য উপস্থাপনাই তাকে সাধারণের মাঝে অসাধারণ করে তুলেছে। তাঁর সামাজিক কার্যক্রমের জন্য তিনি ২০১০ সালে একুশে পদকে ভূষিত হন। এছাড়াও দেশ-বিদেশে বিভিন্ন সম্মানে তিনি ভূষিত হয়েছেন।

হানিফ সংকেত ‘ইত্যাদি’র মাধ্যমে আনন্দ বিলিয়ে সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনের চেষ্টা করছেন। বিভিন্ন সামাজিক অসঙ্গতি, অফিস-আদালতের দুর্নীতি এর বিপরীতে এবং মানবিকতার পক্ষে তার কার্যক্রম চলমান রয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর