কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শাটল ট্রেনের দরজায় পাহাড়ি মেয়েটা


 মাইন সরকার | ২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১২:১৪ | সাহিত্য 


তখন ঘড়ির কাঁটায় রাত প্রায় দুইটা ছুঁইছুঁই। বৃষ্টি হচ্ছে রাতের আকাশে। জানালার পাশেই বসেছি। জানালার ফাঁক দিয়ে দেখছি বৃষ্টি। জ্যৈষ্ঠের বৃষ্টি দেখে আমার রবীন্দ্রনাথের কথা মনে হলো। রবীন্দ্রনাথ খুব সহজে বলেছিলেন --- "হে সুন্দর তুমি ভুবনে ভুবনে, গান গেয়ে যাও গোপনে গোপনে"।

সকাল দশটায় জোনায়েত আমাকে রিসিভ করলো চট্টগ্রাম জিইসির মোড় থেকে। বাসে আমার সামনের সিটগুলোতে জোড়া মিল হয়ে বসেছিলো তরুণ-তরুণীরা। আমার পাশের সিটটা স্বভাবতই খালি ছিলো। একটা ছেলেকে দেখলাম, দুনিয়া কাঁপানো সুন্দরী এক মেয়ের স্তনে হাত রেখে ফিসফিস গল্প করছে।তখন গভীর রাত। বাহিরে বৃষ্টি। আমি জানালা দিয়ে অন্ধকার রাতের আকাশের দিকে তাকিয়ে শুনছি ঝুম বৃষ্টির শব্দ।

জোনায়েতের বাসায় এসে ইলেকট্রিক পাখা ছেড়ে অল্প কিছুক্ষণ রেস্ট করি। দুপুরে রৌদ্র-ছায়ার লুকোচুরি খেলা চলছিলো চট্টগ্রামের দিগন্তের আকাশে। আমি, জোনায়েত ও তার তিন বন্ধুসহ উঠে বসলাম শাটল ট্রেনে। গন্তব্য তখন ঠিক করেছি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় স্টেশন। বাংলাদেশে যে কয়টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে, তার মধ্যে আয়তনে সর্ববৃহৎ হলো রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়। তারপরই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

রাজশাহীতে আমার এক কাজিন পুলিশ অফিসারের সৌজন্যে একত্রিশ দিন থাকার সুযোগ হয়ে ছিলো। ঐ সময়টায় সর্বনাশা পদ্মায় হুইল ছিপ নিয়ে মাছ ধরেছি। পদ্মার পাড়ে ছিপ নিয়ে বসে আমার খুব মনে হতো মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কপিলা চরিত্রের কথা। কপিলার হৃদয়ভাঙা কথাটা আমার কানে বাজে-- "আমারে নিবা মাঝি লগে"।

শাটল ট্রেন থেকে নেমে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় স্টেশনে এসে রীতি মতো অবাক। তরুণ-তরুণীরা কেমন লাফিয়ে লাফিয়ে ট্রেনে উঠছে শহরে যাবার জন্যে। ছোটো ছোটো পাহাড়ের পথ ধরে জোনায়েত আমাকে জিরো পয়েন্ট থেকে নিয়ে গেলো শাহজালাল হলের বর্ধিত অংশে। জোনায়েতের বন্ধু মাজহার থাকে সেখানে। সন্ধ্যায় ধূমায়িত আড্ডায় গান গেয়ে শোনালো মাজহার। 'অরণ্য জঙ্গলের মাঝে আমার একখান ঘর, ভাইও নাই বন্ধুও নাই মোর কে লইবো খবর।'

ধূমায়িত অন্ধকারে বারবার আমার চোখে ভেসে ওঠেছিলো শাটল ট্রেনের দরোজায় বসা বকুলফুলের ঘ্রাণ-ছড়ানো পাহাড়ি মেয়েটা। ঐ রাতটা প্রচণ্ড মজা করে হলেই কাটিয়ে দিলাম। দুইশত ছয় নাম্বার রুমে শিমুল তুলার বালিশে ঘুমিয়েছি। খাবারের আয়োজনে ছিলো হিদল ভর্তা, আলু ভর্তা আর টেঙরা মাছের টক।

বালিশে গা এলিয়ে গল্প করছিলাম। হোসেন বলতে শুরু করলো-- "ভাই এই জঙ্গলে থেকে মনটাও কেমন জঙ্গল হয়ে গেছে; আর ভাল ভাল্লাগে না। পাহাড়ে ওঠাও নিষেধ। বিষাক্ত সাপ থাকে পাহাড়ে"। আরেক বন্ধু বলে ওঠলো-- "হরিণও আছে এই পাহাড়ে"।

জোনায়েত তাদের থামিয়ে বলতে শুরু করলো-- "সুযোগ পেলেই মহেশখালি যাই। রাখাইনদের সাথে গল্প করি, সেলফি তুলি; মন ভালো হয়ে যায়। কক্সবাজার থেকে মহেশখালি হোটেল ভাড়াও খুব কম। তবু রাতে থাকি না ভয়ে। সেবার যখন গেলাম, তুমুল আড্ডা মেরেছিলাম রাখাইন এক মেয়ের সাথে। সোহান তো আসতেই চায় না"।

একবার  সাদা মাটির পাহাড় দেখতে গিয়েছিলাম। কবিবন্ধু দুনিয়া মামুন তার বাইকে করে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে দেখিয়েছিলেন পাহাড়। উপজাতিদের বাসায় গভীর রাত পর্যন্ত হান্ডি পান করেছিলাম। গল্প করেছিলাম উপজাতিদের সাথে।

প্রকৃতির মাঝে গেলে নিজেকে শিশু মনে হয়। আর, আমি তো নিজেকে হারিয়েই ফেলি...




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর