কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই চলছে সিগারেট কারখানা


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৭ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১:০৪ | ভৈরব 


কিশোরগঞ্জের ভৈরবে সরকারের পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়াই একটি সিগারেট তৈরির কারখানা তাদের উৎপাদন কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। ‘তারা ইন্টারন্যাশনাল টোবাকো’ নামের প্রতিষ্ঠানটির কারখানা উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের সম্ভুপুর এলাকার টেকনিকেল স্কুল এন্ড কলেজ সংলগ্ন ভৈরব-ময়মনসিংহ সড়কের পশ্চিম পাশে অবস্থিত।

জানা গেছে, কোম্পানিটি নকল ব্যান্ডরোল ব্যবহার করে দীর্ঘদিন ধরে সরকারের বিপুল অংকের শুল্ক ও ভ্যাট ফাঁকি দিয়ে আসছে।

কিশোরগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের ২১ মার্চ তারা ইন্টারন্যাশনাল টোব্যাকো নরসিংদীর পরিবেশ অধিদপ্তরে পরিবেশ ছাড়পত্রের জন্য আবেদন করে। কিন্তু পরিবেশগত ছাড়পত্রের আবেদনের প্রেক্ষিতে পরিবেশ অধিদপ্তর, নরসিংদী হতে অবস্থানগত ছাড়পত্র গ্রহণ না করায় কারণ দর্শানো নোটিশ ও অতিরিক্ত কাগজপত্রাদি চেয়ে পত্র প্রদান করা সত্ত্বেও প্রতিষ্ঠানটি তা আমলে নেয়নি প্রতিষ্ঠানটি। পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়াই কারখানাটি উৎপাদন কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

কিশোরগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তরের সিনিয়র কেমিস্ট কাজী সুমন জানান, কারণ দর্শানো নোটিশের জবাব ও চাহিদ কাগজপত্রাদি দাখিল না করে পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়াই কারখানার উৎপাদন কার্যক্রম পরিচালনা করায় তারা গত ২৪ সেপ্টেম্বর একটি কারণ দর্শানো নোটিশ দিয়েছেন। কারণ দর্শানো নোটিশে সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিষ্ঠানটিকে লিখিত ব্যাখ্যা প্রদান করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছিল।

কিন্তু নির্ধারিত এই সময় পেরিয়ে গেলেও প্রতিষ্ঠানটি কারণ দর্শানো নোটিশের কোন জবাব দেয়নি। কারণ দর্শানো নোটিশের জবাব না দেয়ায় ‘তারা টোব্যাকোর’ বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনি পদক্ষেপ নেয়া হবে বলেও তিনি জানান।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, কারখানাটির প্রধান গেইট সবসময় বন্ধ থাকে। চারিদিকে দেয়াল উপরে টিনের চালা দিয়ে তৈরি ঘরে কারখানার মেশিনপত্র রয়েছে। ভেতরে গোপনে সিগারেট উৎপাদন হয়। দীর্ঘদিন যাবত কারখানায় গোপনে নকল ব্যান্ডরোল তৈরি করে নিম্নমানের অবৈধ সিগারেট উৎপাদন হচ্ছে।

এখানকার নিরাপত্তাকর্মী আলাউদ্দিন জানান, প্রতিদিন বিভিন্ন ব্রান্ডের সিগারেট কারখানায় উৎপাদন হয়। উৎপাদিত সিগারেট গভীর রাতে মিনি ট্রাক দিয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকায় পাঠানো হয়। কারখানার জায়গার মালিক ভৈরব উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. গিয়াস উদ্দিন। তিনিও কারখানাতে পার্টনার আছেন।

তবে পরিবেশ অধিদপ্তরের নথিতে উল্লেখ আছে মো. আবদুস সবুর লিটন ও মো. ওমর ফারুক ছিদ্দিকী নামে দুজন এই প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী।

এ ব্যাপারে ভৈরব উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. গিয়াস উদ্দিন বলেন, কারখানায় নতুন যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হবে। কারখানার বৈধ লাইসেন্স ও যাবতীয় কাগজপত্র আছে বলে তিনি দাবি করেন।

তবে কারখানায় কি কি ব্র্যান্ডের সিগারেট উৎপাদন হয় তা জানাননি তিনি। এছাড়া কারখানার মূল মালিকের বাড়ি চট্টগ্রাম বললেও তাঁর নাম ঠিকানা পরিচয় জানাননি গিয়াস উদ্দিন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর