কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


‘বিউটি অব পলিটিক্স’ সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম


 মু আ লতিফ, সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক | ১৪ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার, ১২:৫৫ | ব্যক্তিত্ব 


ঢাকা বিভাগের একটি অন্যতম জেলা কিশোরগঞ্জ। হাওর-বাঁওরে ঘেরা বৈচিত্র্যময় ভূ-প্রকৃতির এক অনন্য জনপদ কিশোরগঞ্জ। চন্দ্রাবতী, মহুয়া-মলুয়ার দেশ এই কিশোরগঞ্জ।এই জেলার ভৌগোলিক আয়তন প্রায় ২,৬৮৯ বর্গ কিলোমিটার। জেলার ১৩টি উপজেলার পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে ইতিহাস আর ঐতিহ্যের নিদর্শন। শিল্প-সাহিত্য আর লোকসংস্কৃতির এক সমৃদ্ধ ও উর্বর জনপদের নাম কিশোরগঞ্জ।

কিশোরগঞ্জ অসংখ্য কীর্তিমান মানুষের জন্মস্থান। মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান, বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রয়াত মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, র্যাংলার আনন্দমোহন বসু, পণ্ডিত শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরী, মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী, উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী, বিপ্লবী রেবতী মোহন বর্মন, শিক্ষানুরাগী মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ, শহীদ ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী, শাহনামা অনুবাদক কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ এর মতো অনেক বিখ্যাত লোকের জন্মস্থান কিশোরগঞ্জ।

আমরা ধারাবাহিকভাবে পরিচিত হবো এমনই কিছু বিখ্যাত ব্যক্তিদের সাথে। আজ দ্বিতীয় পর্বে আমরা তুলে ধরছি সৎ ও স্বচ্ছ রাজনীতির আদর্শ প্রয়াত জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এঁর সংক্ষিপ্ত জীবনালেখ্য। লিখেছেন সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক মু আ লতিফ

প্রচলিত রাজনীতির বাইরে আধুনিক ও অগ্রসর চিন্তার জননেতা সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তিনি তাঁর পিতা শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের যোগ্য উত্তরসূরি, সৎ ও দুর্নীতিমুক্ত রাজনীতিবিদ হিসাবে পরিচিত। পিতার কর্মস্থল ময়মনসিংহ শহরে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈতৃক নিবাস কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার যশোদল ইউনিয়নের বীরদামপাড়া গ্রামে।

১৯৬৮ সালে ময়মনসিংহ জেলা স্কুল থেকে এসএসসি, ১৯৭০ সালে আনন্দমোহন কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি ভারতে চলে যান এবং মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। স্বাধীনতা-উত্তর ১৯৭২ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে অনার্স কোর্সে ভর্তি হন। ১৯৭৫ সালে তিনি এক শিক্ষা সফরে লন্ডন যান। এ সময় ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পিতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম শহীদ হলে তিনি লন্ডনে থেকে যান।

ছাত্রজীবন থেকেই তিনি রাজনীতির সাথে জড়িত। ময়মনসিংহ শহরে স্কুল ও কলেজজীবনে তিনি ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। পরবর্তীকালে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ছাত্ররাজনীতি শেষে তিনি আওয়ামী লীগে যোগদান করেন।

১৯৯৬ সালে সাধারণ নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসাবে কিশোরগঞ্জ সদর আসন থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং আওয়ামী লীগ সরকারের বিমান, পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। ২০০১ সালে সাধারণ নির্বাচনে পুনরায় তিনি জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।

এক-এগারোতে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা গ্রেফতার হলে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও দলীয় মুখপাত্র হিসাবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিল কারাগারে থাকায় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব নেন ‘মিস্টার ক্রাইসিস ম্যান’ খ্যাত সৈয়দ আশরাফ। তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে সাধারণ নির্বাচনে বাধ্য করা, দেশে জরুরি অবস্থা প্রত্যাহার এবং গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে তার কূটনৈতিক তৎপরতা ছিল উল্লেখযোগ্য। দৃঢ়চিত্ত আর রাজনৈতিক প্রজ্ঞায় আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন হওয়া থেকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনাকে মুক্ত ও আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় ফিরিয়ে আনতে অবিস্মরণীয় ভূমিকা রাখেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

২০০৮ সালের সাধারণ নির্বাচনে তিনি পুনরায় কিশোরগঞ্জ সদর ও হোসেনপুর নির্বাচনী এলাকা থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরে তিনি আওয়ামী লীগ সরকারের স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সর্বশেষ তিনি জনপ্রশাসন মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৫২ সালের পহেলা জানুয়ারি জন্ম নেয়া সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের চার ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে সবার বড় ছিলেন। সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের একমাত্র সন্তান সৈয়দা রিমা ইসলাম লন্ডনের এইচএসবিসি ব্যাংকে চাকরি করেন।

যোগ্য পিতার যোগ্য সন্তান হিসেবে যুক্তরাজ্যের মূলধারার রাজনীতিতে জায়গা করে নেওয়া সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার ডাকে বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে ফিরে এসেছিলেন। দেশে ফেরার পর অংশ নিয়েছিলেন ১৯৯৬ সালের ১২ জুনের সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে।

১৯৯১ সালে বিএনপির কাছে হারানো কিশোরগঞ্জ সদর (তৎকালীন কিশোরগঞ্জ-৩) আসনটি ১৯৯৬ সালের ১২ জুনের নির্বাচনে পুনরুদ্ধারের মাধ্যমে রাজনীতিতে অবিস্মরণীয় প্রত্যাবর্তন হয় সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের। এই প্রত্যাবর্তনের পর একজন ভদ্র, বিনয়ী ও অজাতশত্রু রাজনীতিবিদ হিসেবে দলের সবার শ্রদ্ধা ও স্নেহ কুড়াতে বেশি সময় নেননি সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে অতিকথন ও ক্ষমতার দম্ভ তাঁকে স্পর্শ করতে পারেনি। একজন উদার পশ্চিমা গণতান্ত্রিক রাজনীতিবিদের মতোই তিনি নীরবে নিভৃতে পথ হেঁটেছেন। তদবিরবাজ, মতলববাজ, সুবিধাবাদীরা যেমন তাঁর কাছে ভিড়তে পারেননি, তেমনি দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি, ক্ষমতার অপব্যবহারে নুন্যতম কলঙ্কের ছিটেফোটাও তাঁর গায়ে লাগেনি।

কিশোরগঞ্জ সদর আসন থেকে টানা পাঁচবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। থাইল্যান্ডে চিকিৎসাধীন থাকায় ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি সশরীরে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিতে পারেননি। তাঁর পক্ষে পরিবারের সদস্যরা এবং জেলা আওয়ামী লীগ ও দুই উপজেলার আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছিলেন। এছাড়া ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাও সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের পক্ষে প্রচারণায় অংশ নিয়েছিলেন। সৈয়দ আশরাফ নির্বাচনী মাঠে অনুপস্থিত থাকলেও বিপুল ভোটের ব্যবধানে তিনি বিজয়ী হন।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের স্ত্রী সৈয়দা শিলা ইসলাম ২০১৭ সালের ২৩ অক্টোবর লন্ডনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এরপর থেকেই অন্তরালে চলে যান সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে ২০১৮ সালের ৩ জুলাই তাঁকে থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে ছয় মাস চিকিৎসাধীন থাকার পর ২০১৯ সালের ৩ জানুয়ারি রাত সাড়ে ৯টার দিকে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন রাজনীতির এই বরপুত্র।

কিশোরগঞ্জের আধুনিকায়নে তাঁর ভাবনা ছিলো অসাধারণ। এ মাটির ফুসফুস বা প্রাণপ্রবাহ নরসুন্দার নাব্যতা ফিরে পেতে তাঁরও আন্তরিকতার কোনো অভাব ছিলো না। এজন্যে উদ্যোগও তিনি গ্রহণ করেছিলেন।  শহরের উন্নয়ন, সৌন্দর্যবর্ধন ও আধুনিকায়নে একটি মহপরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে এসেছিলেন তিনি। কিন্তু কূটিল-জটিল রাজনীতি ও সীমাহীন লোভ-লালসার অন্তরালে অধিকাংশ আশাই তাঁর পুরণ হয়নি।

তাঁর একান্ত আগ্রহ ও বলিষ্ঠ ভূমিকার কারণে কিশোরগঞ্জে গড়ে উঠেছে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল। যেমনটি তাঁর বাবা শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্বাধীনতার পর একটি যুদ্ধবিদ্ধস্থ সময়ে কিশোরগঞ্জ টেক্সটাইল মিল প্রতিষ্ঠা করে হাজার হাজার শ্রমজীবীর কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছিলেন। একটি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন পুরণের পূর্বেই তাঁকে চির বিদায় নিতে হয়েছে।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম মনে করতেন, জনগণই রাজনৈতিক দলের গণভিত্তি হবে, শুধুমাত্র কোনো পোষাকী বাহিনীর উপর নির্ভর করে গণতান্ত্রিক সরকার পরিচালনা ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়। সততা ও সহিষ্ণুতা রাজনৈতিক নেতাদের আদর্শ হওয়া বাঞ্চনীয় বলেও তিনি বিশ্বাস করতেন। তিনি  ছিলেন একজন সৎ ও অসাধারণ ব্যক্তিত্বসম্পন্ন রাজনৈতিক নেতার রোলমডেল।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর