কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সাধুদের মিলনমেলায় ভরে উঠে পূর্ণিমাতিথি


 মাইন সরকার | ১০ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৩:৪৯ | রকমারি 


ফাল্গুন বা চৈত্র মাসের পূর্ণিমা তিথীতে শ্রীকৃষ্ণের মানব রুপী অবতার শ্রীচৈতন্যদেব নদিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন। তাই ফাল্গুন বা চৈত্র মাসের এই পূর্ণিমাকে অনেকে গৌর পূর্ণিমাও বলে থাকেন কিন্তু দোল শব্দের বিশেষ্য পদ ঝুলন, শ্রীকৃষ্ণের দোলযাত্রা যাকে বলা হয় আর পূর্ণিমা এর বিশেষ্য পদ হল যে তিথীতে চন্দ্রের ষোলকলা পূর্ণ হয় অর্থাৎ পূর্ণচন্দ্রের উদয় হয়। দোল উৎসবের কারণে ফাল্গুনী  পূর্ণিমাকে দোলপূর্ণিমা বলা হয়।

প্রতিবছরই এই দিনে কালীগঙ্গা নদীর তীরে দোলপূর্ণিমায় মেতে ওঠে লালন অনুসারী এবং নব্য সাধুরা, সাধুদের মিলনমেলায় ভরে উঠে বাউল ফকির লালন শাহের আখড়া বাড়ি। লালনের জীবন কালে লালন নিজেও ছেঁউড়িয়ার এই আখড়া বাড়িতে দোলপূর্ণিমা রাতে বাউলদের নিয়ে সাধু সঙ্গ উৎসবে মেতে থাকতেন। তারই রেশ ধরে ১লা কার্তিক তাঁর দেহদানের পর প্রতি বছরই এ উৎসব পালন করে তাঁর অনুসারী ও ভক্তরা।

আমরাও চৈত্রের রোদ ঠেলে যাচ্ছি কুষ্টিয়ার দিকে- যাচ্ছি লালনের কালিগঙ্গা নদীর কাছে। তাই খুব সকালে ঘুম থেকে তুললেন কবি প্রদীপ দত্ত। মাইন ওঠ! তারাতাড়ি ফ্রেশ হ! পরে গাড়ি চলে যাবে আমাদের রেখে। আগেই হানিফ পরিবহনের টিকেট কেটে রেখেছে ইলা আপুর এসিস্ট্যান্ট। দশটা ত্রিশ মিনিটে কল্যানপুর থেকে ছাড়বে হানিফ পরিবহন। আমরা ঘুম থেকে উঠেই চলে গেলাম কল্যানপুর। নাস্তা করে আমি এবং প্রদীপ দত্ত অপেক্ষা ইলা আপুর জন্য। আমি ডাক্তারদের সাথে খুব বেশি ভ্রমণ করিনি।

তবে একজন ডাক্তার আমাকে কবি হওয়ার কারণে খুব পছন্দ করতেন। ডাক্তার বুলবুল সরওয়ার, যিনি একজন পিএইচডি হোল্ডার এবং একজন জনপ্রিয় ভ্রমণ রাইটার। তাঁর লেখা ভ্রমণের বইয়ের নাম 'ঝিলাম নদীর দেশ' তাঁর মুখে শুনেছি বইটি নাকি ৫৪ বার প্রিন্ট হয়ে ছিলো। এছাড়াও তাঁর বিশ্বসাহিত্যের অনুবাদই আছে প্রায় দেড় ডজন। তাঁর সাথে গল্প করে ভালো লাগতো আমার।

আজ আবার গল্প করতে করতে যাচ্ছি আরেক ডাক্তারের  সাথে। তবে এ ডাক্তার কোনো লেখক নয়। তবে অনেকটা ঝগড়াটে টাইপের রাগী মহিলা! আমরা পাঁচজন সন্ধ্যায় নামলাম কুমারখালি। কুমারখালি থেকে অটোরিকশা করে চলে এলাম প্রদীপ দত্তের গুরুর বাড়ি, দবিরমোল্লার গেইট।

অনেকদিন পর গুরুকে পেয়ে প্রদীপ দত্ত জড়িয়ে ধরে গুরুর আশীর্বাদ নিচ্ছে। তখন আমরা ছয়জন, যেখানে বাস বিরতি দিয়ে ছিলো সেই সিরাজগঞ্জ থেকে আমাদের অনুসরণ করে আসছে ছেলেটা, মাঝে মাঝে এই মোটকু ছেলেটাই গল্প করার চেষ্টা করছে আমার সাথে। ছেলেটার একাকিত্ব দেখে ইলা আপুও আমাদের দল ভারি করলেন, এখন আমরা ছয়জন। আমিসহ সবার হাতেই তখন পাপর ভাজা আর প্রদীপ দত্ত তখনও তাঁর গুরু খেয়ালে।

আমাদের রাতে থাকার জায়গা হলো গুরুর তিনতলা বাড়ি। বাড়িটা সামনের গেইটে লেখা আছে 'সদর আশ্রম'। আমরা গুরুর সদর আশ্রম বাড়িতে রাত্রি যাপন করবো। সারাদিন রোদের পর একটু হালকা শিতল বাতাস বয়ে যেতে শুরু করলো এক এক করে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে সদর আশ্রমে  চলে আসছে সাধুরা, আমরা ব্যাগটেক রেখে ভ্যানগাড়িতে করে যাচ্ছি লালনের মাঝারের দিকে।

মাজার গেইটে যেয়ে সবাই ছবি তুলায় বিজি। আখড়া বাড়িতে তখন সাধুদের লাইন পরে গেছে, লাইন ঠেলে আমরা যাচ্ছি লালনের প্রতিমূর্তির দিকে। ঠিক তখনই ইলা আপু তাঁর নাম বদল করেছে, খেতে খেতে নিজের নাম নিজেই দিলেন খাদক। তখন আমার রবিউল আলম নবীর কথা মনে পরে গেল সে একবার আমার নাম দিয়ে ছিলো খাদক, তখন খাদক আপু যেখানে যা পাচ্ছে  তাই খাচ্ছে- পাপর ভাজা, চিংড়ি, ঝালমুড়ি, সরবত, সন্দেশ, খেঁজুর আরও কত কি!

ইলা আপু যেমন ঝগড়াটে মহিলা তেমন মেধায়ও স্মার্ট। আমার এক বন্ধু এমরানুর রেজা বলেছিলো- বাংলাদেশে স্মার্ট মেয়ে মানুষ খুব বেশি নেই। কারণ  স্মার্ট বলতে বাঙালি মেয়েরা বুঝে আটা ময়দা মাখা। কিন্তু চিন্তায়, মেধায় স্মার্ট মেয়ে মানুষ খুব কম। ইলা আপু চিন্তায় স্মার্ট, তাঁর লাবণ্যময় শরীরের দিকে তাকালে বয়স বোঝা যায় না। মাজারে দেখলাম সবগুলো চোখ আপুর দিকে চোখের চর্চায় মেতে উঠেছে। এমনকি আপুকে আমাদের সাথে আশ্রমে দেখে অনেকেই আমাদের পাত্তা দিতে শুরু করলো, গল্প করতে শুরু করলো।

আশ্রমে আমরা দেয়ালে হেলান দিয়ে বসে আছি, আমার বিপরীতে বসে আছে কলকাতার শুদ্ধতম সাধু রক্তিম। রক্তিম সাধু এবার কলকাতা থেকে আসার পথে শিল্পী পুতুলের  জন্য কাপড় নিয়ে এসেছেন আর ওদিক দিয়ে পুতুল অসুস্থ। তখন আমি ইলা আপুর ভান্ডার থেকে খেঁজুর নিয়ে বিলি করার দায়িত্বে আছি সদর আশ্রমে। জীবনে এই প্রথমবার সাধুদের আশ্রমে আমি তোবারক বিলি করছি। রক্তিম সাধু আমাকে দেখেই বললেন- আমি কিন্তু উঠলাম। আমিও উনাকে ইশারা করে বুঝালাম যান আমি আসতেছি রাত আরও একটু গভীর হউক। হাজার সাধুর ভেতরে উনাকে একটু আলাদা ও ব্যাতিক্রম মনে হলো। খুবই সহজিয়া এবং মেধাবী সাধু।

যশোর থেকে আমার ছড়াকার বন্ধু কামাল মোস্তফা রাত একটায় এসে হাজির হলো দবির মোল্লার গেইটে। এসেই সে বায়না ধরলো, রাত যতোই হউক আমাকে তাঁর সাথে আবার যেতেই হবে মাজারে, সারাদিনের ক্লান্তি নিয়েই আবার রওনা হলাম। তখন মধ্য রাত, জমে ওঠেছে  সাধুসঙ্গ। আমি যেনো সাধুদের কারখানায় এসে পরেছি। কাফেলায় কাফেলায় কল্কির ধোঁয়া, ধোঁমায়িত পুরো মাঠ, কিছুক্ষণ পর সেখান থেকে বের হয়ে রঙ চায়ে চুমুক দিচ্ছি আমরা তিনজন আমি, কামাল ও তার আরেক বন্ধু।

আমি চায়ে চুমুক দিতেই দেখলাম রক্তিম সাধু আসছে। ধবধবে সাদা পোষাক আর হাত ভর্তি বেসলাইট। তাঁকে দেখেই আমি একটি রঙ চায়ের  অফার করলাম আর সেও আমাকে দেখে চা খেতে রাজি হলো, চিনি ছাড়া  রঙ চা পান করতে করতে গল্প জমে উঠেছে আমাদের। কামাল তো নাছোড়বান্দা সাধুর সাথে ক্যামেরা, ছবি তুলা নিয়ে একের পর এক প্রশ্ন করেই যাচ্ছে। বিষয় সেটা না সে চাচ্ছে গল্প করতে করতে সারা রাত কেটে যাক।

তখন রাত চারটা ছুঁইছুঁই, দূর থেকে তখনও লালনের গান বেজে উঠে- 'আমি কি সন্ধানে যাই সেখানেমনের মানুষ যেখানে, যেতে পথে কাম নদীতে..।' সাধু কামালের এই চঞ্চলতা দেখে ব্যাগ থেকে এক বান্ডিল বিশ টাকার নোট থেকে আমাকে একটি দিয়ে বললো, এক প্যাকেট বিড়ি নাও, এক প্যাকেট বিড়ির দাম পনেরো টাকা, আর ফেরত পাঁচ টাকা যদি কয়েন দেয় বলবে নোট দিতে। আমি এক প্যাকেট বিড়ি কিনে সাধুর হাতে দিলাম। সাধু প্যাকেট থেকে বের করে সবাইকে একটি করে বিড়ি দিলো আর আমাকে দিলো দুটি- বললো একসাথে ধরিয়ে আমাকে একটা দাও।

আমি সাধুকে বিড়ি ধরিয়ে দিলাম। তখন ফেরার সময় অল্প কিছুক্ষণের ভেতরই আযান হবে ফজরের। আমি আর সাধু যেহেতু একই রুমে উঠেছি তাই কামালকে মাঠে রেখেই চলে আসতে হলো। আমি আর সাধু হেঁটে হেঁটে আশ্রমের দিকে রওনা দিলাম। অনেক দিন পর শেষ রাতের ঝাপটা বাতাস আমার বাদামি বর্ণের দেহ শীতল করে দিল। আর কি রুপ সাধুর!

আশ্রমের পাশে আসতেই আযান হয়ে গেল। আশ্রমের চারপাশে নিয়ন আলো আর সামনেই রেললাইন সমান্তরাল। তখন পূর্ণিমাও উঁকি দিয়ে আছে আমাদের দিকে। আমি আর সাধু বিড়ি খাচ্ছি, সাধু আমাকে বললো কালকে এক ফাঁকে পুঁড়াদাহ স্টেশনে যাবো ক্যামেরাটা নিয়ে। মানুষগুলো যে ট্রেনে ঝুলে ঝুলে আসে, ইস! তার একটি ছবিও যদি নিতে পারি, আমি আর সাধু আশ্রমে ঢুকে গেলাম।

সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি আমার শরীরে  চাদর! বৈদ্যুতিক পাখার বাতাসে হয়তো হালকা শীত পড়েছিলো আর এই চাদরটি সাধুর কিন্তু ইলা আপু কখন যে আমার শরীরে দিয়েছিলো ঘুমে মাতাল আমি টেরই পাইনি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর