কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে পূজায় আনসার নিয়োগে ফের বাণিজ্যের অভিযোগ


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ৭ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার, ১০:৪৭ | ভৈরব 


ভৈরবে হিন্দু ধর্মালম্বীদের শারদীয় দুর্গাপূজা মণ্ডপ নিরাপত্তার জন্য আনসার সদস্য নিয়োগে ফের বাণিজ্যের অভিযোগ ওঠেছে। উপজেলা আনসার ও ভিডিপি অফিসের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এর আগে জাতীয় সংসদ ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও আনসার সদস্য নিয়োগে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ ওঠে। আবার অনেকে টাকা দিয়েও নিয়োগ না পাওয়ায় ওই সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পায়নি।

ফলে দিন দিন উপজেলা আনসার ও ভিডিপি অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বেপরোয়া হয়ে ওঠেছে। আর নানা ইস্যুকে পুঁজি করে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা।

জানা গেছে, প্রতিবারের মতো এবারও উপজেলার ২১টি পূজা মণ্ডপে নিরাপত্তার স্বার্থে ১৪০ জন আনসার সদস্য নিয়োগ দেয় উপজেলা আনসার ও ভিডিপি অফিস। এসব পূজা মণ্ডপে টানা ৫ দিন দায়িত্ব পালনের ফলে জনপ্রতি ২ হাজার টাকা করে সম্মানী ভাতা পাবেন তারা।

কিন্তু আনসার সদস্য নিয়োগ দেয়ার সময় জনপ্রতি ১ হাজার টাকার করে দিতে হয়েছে। চণ্ডিবের এলাকার দলনেতা সানি এবং পঞ্চবটি এলাকার দুলালের মাধ্যমে উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা আব্দুল আজিজ এই টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ ওঠেছে।

এছাড়াও জাতীয় সংসদ, উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে শত শত আনসার সদস্য নিয়োগ করা হয়। আর এসব আনসার সদস্য নিয়োগের সময় তারা লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়। অফিসের টিআই বশির আহমেদ ও জিপা সুলতানাসহ অসৎ কর্মকর্তা আব্দুল আজিজের যোগসাজসে উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের একাধিক দলনেতা বা দলপতির মাধ্যমে এসব টাকা হাতিয়ে নেয় তারা। ফলে উপজেলা আনসার ও ভিডিপি অফিস দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে।

শহরের পাওয়ার হাউজে পূজা মণ্ডপে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা আনসার সদস্য রাসেল ও রানা জানান, তারা উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের বাসিন্দা। বড় স্যারকে টাকা দিতে হবে বলে সানি জনপ্রতি ১ হাজার করে টাকা নিয়েছেন। আর টাকা না দিলে পূজায় দায়িত্ব পালনের নিয়োগ দেয়া হবে না। তাই তাদের মতো সবাই টাকা দিয়েই নিয়োগ পেয়েছে বলেও জানান তারা। একই কথা জানান জগন্নাথপুরে অন্য পূজা মণ্ডপে দায়িত্বে থাকা আনসার সদস্যরা।

এ প্রসঙ্গে জানতে ভৈরব উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তার অস্থায়ী কার্যালয়ে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি। এসময় অফিসের লোকজন জানান তিনি বাইরে আছেন। কিন্তু কর্মকর্তার ব্যবহৃত মুঠোফোনে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোনটি রিসিভ করেন নি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর