কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


যে ছবি হাওরের দিন বদলের কথা বলে


 সিম্মী আহাম্মেদ, সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ৩ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১:৫৭ | এক্সক্লুসিভ 


পাশাপাশি দু’টি ছবি ঘুরছে সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে। একটি ছবিতে দেখা যায়, কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক একটি গ্রামের আড়ার বাঁশ বেয়ে উপরে ওঠছেন। ফেসবুকে একজন জানালেন, এই ছবিটি ইটনা উপজেলার ধনপুর ইউনিয়নের বলরামপুর গ্রামের।

গ্রামটিতে কোন ঘাট না থাকায় তখন এভাবেই রাষ্ট্রপতির বড় ছেলে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিককে বাঁশ ধরে ধরে গ্রামটিতে যেতে হয়েছিল। এটি কয়েক বছর আগের ছবি। কিন্তু বর্তমান ছবিটা একেবারেই অন্যরকম। সেই গ্রামটিতে নির্মাণ করা হয়েছে একটি পাকা ঘাট। এখন আর পরিশ্রম করে আড়ার বাঁশ বেয়ে লোকজনকে গ্রামের বাড়িঘরে পৌঁছুতে হয় না। মিটেছে নৌযান নোঙর করার ঝামেলাও। এখন অনায়াসেই ঘাটে ভিড়ে নৌযান। সহজেই পরিবহন করা যায় মালামাল।

হাওরের দিন বদলের এটি একটি সহজ উদাহরণ মাত্র। আর এই চিত্রই বলে দেয় এক সময়ে উন্নয়ন বঞ্চনার শিকার হাওরবাসীর বর্তমান অবস্থা। যেখানে উন্নয়ন কেবল কথার কথাই নয়, বরং তাক লাগানো বাস্তবতা। হাওর জনপদে শিক্ষা, যোগাযোগ, স্বাস্থ্য ব্যবস্থার যে আমূল পরিবর্তন ঘটেছে, সেটা এখন চরম বিরুদ্ধবাদীরাও স্বীকার করতে বাধ্য। শুধু কি শিক্ষা, যোগাযোগ, স্বাস্থ্য? আমূল পরিবর্তন এসেছে হাওরের জীবনযাত্রার মানেও। হাওরের ঘরে ঘরে পৌঁছে গেছে বিদ্যুৎ। সেই বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত আজ দুর্গম সব হাওর গ্রাম।

হাওরের এই বদলে যাওয়া দিনের সূচনা যার হাত ধরে এসেছে তিনি বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। আর রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এর যোগ্য উত্তরসূরী হিসেবে তাঁর বড় ছেলে টানা তিন বারের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক সেই উন্নয়নের ধারাকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। পিতা-পুত্রের জনকল্যাণমূলক সব উদ্যোগ আর তৎপরতাতেই হাওরের জেগেছে নতুন প্রাণের উচ্ছ্বাস।

মূলত বাবার আদর্শ বুকে ধারণ করে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিকের রাজনৈতিক যাত্রা শুরু হয়। সংসদ নির্বাচনে পিতার একজন কর্মী হিসেবে হেঁটেছেন হাওরের মাঠ-ঘাট, জনপদ। হাওর অধ্যুষিত তিন উপজেলা ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম নিয়ে গঠিত কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সাতবারের সংসদ সদস্য মো. আবদুল হামিদ অ্যাডভোকেট। জনতার দেয়া উপাধি ‘ভাটির শার্দুল’ থেকে এই জননেতা এখন রাষ্ট্রের অভিভাবক।

২০১৩ সালের ২৪শে এপ্রিল মো. আবদুল হামিদ প্রথম মেয়াদে রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নেন। ফলে তাঁর আসনটি শূণ্য ঘোষণা করে উপনির্বাচনের তফসিল দেয় নির্বাচন কমিশন। শূণ্য এই আসনের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী হিসেবে বেছে নেয় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের বড় ছেলে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিককে। উপনির্বাচনে সহজ জয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক তাঁর মার্জিত ব্যবহার ও সদালাপি আচরণ দিয়ে ক্রমেই জিতে নেন হাওরবাসীর হৃদয়।

২০১৩ সালের ৩রা জুলাই অনুষ্ঠিত সেই উপনির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার মাত্র ছয় মাস আসে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন। জনপ্রিয় এই এমপি দ্বিতীয় বার পান দলের টিকিট। দশম জাতীয় সংসদের মেয়াদে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক এমপি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্যের দায়িত্ব পালন করেন।

এই দায়িত্বটিকে তিনি প্রতিশ্রুতি পূরণে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র হিসেবে নিয়ে হাওরের যোগাযোগ ব্যবস্থার বৈপ্লবিক পরিবর্তনে মনোযোগী হন। হাওরে সূচিত হয় যোগাযোগ ব্যবস্থার এক নতুন দিগন্ত। রাষ্ট্রপতি বাবার ঐকান্তিক সহযোগিতায় এমপি তৌফিকের হাত ধরে বাস্তবায়িত হচ্ছে ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম অলওয়েদার সড়কের মতো একটি মেগা প্রকল্প।

নিজের কর্মদক্ষতা আর হাওরের মানুষের প্রতি দায়বোধের মাধ্যমে পিতার যোগ্য উত্তরসূরী হিসেবে হাওরের রাজনীতিতে স্বমহিমায় নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে চলেছেন। নিজেকে সকল লোভ, মোহ এবং বির্তকের ঊর্ধ্বে রেখে একালের রাজনীতিতে এক ব্যতিক্রমি চরিত্র রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক। হাওরের মানুষের মনের মণিকোঠায় ঠাঁই করে নেয়া এই রাজনীতিবিদ হয়ে ওঠেছেন জনতার তৌফিক।

ফলশ্রুতিতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও দলের টিকিট লাভ করেন রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক। ২০১৮ সালের ৩০শে ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ৪৯ বছর বয়সী রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক প্রতিদ্বন্দ্বী হেভিওয়েট প্রার্থী বিএনপির অ্যাডভোকেট মো. ফজলুর রহমানকে বিপুল ভোটে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। কেবল তাই নয়, নৌকা প্রতীক নিয়ে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক কিশোরগঞ্জের ছয়টি আসনের মধ্যে সর্বোচ্চ ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য হন।

হাওর অধ্যুষিত কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের টানা তিন বারের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক ১৯৬৯ সালের ২৭ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেন। ইতিহাস গড়ে টানা দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়া রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এর যোগ্য উত্তরসূরী হিসেবে বেড়ে উঠা রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক ২০১৩ সালের ৩রা জুলাই অনুষ্ঠিত উপনির্বাচনে বিজয়ী হয়ে সংসদে হাওরের প্রতিনিধিত্ব করা শুরু করেন। ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের মাধ্যমে হ্যাট্রিক বিজয় লাভ করেন তিনি।

রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক এমপি বর্তমানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য। বাংলাদেশ কৃষক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা। তিনি পার্লামেন্ট মেম্বারস ক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচিত সদস্য। দ্বিতীয় বারের মতো সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। এছাড়া তিনি ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিরও সদস্য।

সাদামাটা, নির্লোভ, নিরাভরণ জীবন নিয়ে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক যেন রাজনীতিতে তার পূর্বসূরী পিতা রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদেরই উজ্জ্বল প্রতিচ্ছবি। রাষ্ট্রপতি বাবার সততার রাজনীতির আর্দশকে লালন করে তিনি ক্লান্তিহীন ছুটে চলেছেন হাওরপাড়ের মানুষের কাছে। হাওরের ব্যাপক উন্নয়নযজ্ঞে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন তিনি। কিন্তু কোন অসততা কিংবা কোন বিতর্ক নম্র, বিনয়ী এই মানুষটিকে ছুঁতে পারেনি। মানুষের সেবক হওয়ার দীক্ষা নিয়ে খোলা বইয়ের মতোই তিনি তাঁর জীবন মানুষের সামনে উন্মুক্ত রেখেছেন। আজকের রাজনীতির সময়ে তিনি এক বিরল জনপ্রতিনিধি।

হাওরের লোকজনের মতে, রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক ব্যক্তি হিসেবে সৎ, নির্লোভ, নিরহংকারী, সহজ-সরল এবং সাধারণ জীবনযাপনে অভ্যস্ত। এছাড়া দলমত নির্বিশেষে সব মানুষকে আপন করে নেয়ার এক অসাধারণ গুণ রয়েছে তাঁর। তাঁর রাজনীতিও গণমূখী। হাওরবাসীর জীবন সংগ্রাম, কষ্ট-বেদনা তাঁকে প্রতিনিয়ত ছুঁয়ে যায়। তাদের দুঃখ-দুর্দশায় সব সময়ে বাড়ানো থাকে তাঁর পরম মমতার হাত। অসহায়ের সহায় হয়ে তিনি পাঁশে দাঁড়ান তাদের। যা হাওরে তাঁর নির্বাচনী এলাকায় শক্তিশালী গণভিত্তি গড়ে তুলতে সাহায্য করেছে।

দলীয় নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক দলীয় নেতাকর্মীদের সুখে-দু:খে, সমস্যার সমাধানে আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করে চলেছেন। আওয়ামী লীগকে তিনি হাওরের তিন উপজেলায় সাংগঠনিকভাবে সুসংসহ অবস্থানে নিয়ে যেতে পেরেছেন। দলকে আরও শক্তিশালী অবস্থানে নিয়ে যেতে হাওরের প্রত্যন্ত গ্রামে গ্রামে প্রতিনিয়ত ছুটে যাচ্ছেন তিনি। দলীয় নেতাকর্মীদের জন্য তাঁর দরজা দিনরাত খোলা থাকে। নেতাকর্মীরা সরাসরি, যখন-তখন তার সঙ্গে দেখা করেন, টেলিফোনে কথা বলেন, সমস্যার কথা জানান। তিনিও মন দিয়ে শোনেন এবং নেতাকর্মীদের সমস্যা সমাধানের জন্য আন্তরিক প্রচেষ্টা চালান। এই কারণে তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝেও ব্যাপক জনপ্রিয়।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, মো. আবদুল হামিদ অ্যাডভোকেট ২০১৩ সালের ২৪শে এপ্রিল প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেয়ার পর তাঁর শূণ্য আসনে ২০১৩ সালের ৩রা জুলাই উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেই উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক উন্নয়নের ধারবাহিকতা রাখার অঙ্গীকার করেন। নির্বাচিত হওয়ার পর গত ছয় বছরেরও বেশি সময় ধরে তিনি তাঁর সেই অঙ্গীকার পূরণ করার পথেই হেঁটে চলেছেন।

এসব প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিকের কণ্ঠে ঝরে পড়ে সেই সহজাত বিনয় আর ভাবাবেগ। বলেন, ‘হাওরবাসীর কল্যাণের কথা চিন্তা করেই আমি রাজনীতিতে এসেছি। তাদের উন্নয়ন আর সমৃদ্ধিই আমার স্বপ্ন। হাওরের মানুষকে নিয়ে আমার সেই স্বপ্ন বাস্তবায়িত করতে পারলেই, আমি ধন্য হবো। আমি চাই, হাওরবাসীর সঙ্গে আমার যে আজন্মের বন্ধন রয়েছে, সেই বন্ধন আমি যেন আমার কাজের মধ্য দিয়ে আমৃত্যু অটুট রাখতে পারি।’




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর