কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


তিন বছরেও কটিয়াদীর ঢাকের হাটের শেড নির্মাণ শেষ হয়নি


 মো. রফিকুল হায়দার টিটু, স্টাফ রিপোর্টার, কটিয়াদী | ২ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার, ৮:১৫ | কটিয়াদী 


কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে বাৎসরিক ঢাকের হাটের শেড তিন বছর পূর্বে শুরু হলেও অদ্যাবধি শেষ হয়নি এর নির্মাণ কাজ। প্রতি বছর দুর্গাপূজার পূর্বে এই ঐতিহ্যবাহী শত বছরের হাটে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ঢাকিদের আগমণ ঘটে। নির্মাণ কাজ শেষ না হওয়ায় তারা দুর্ভোগে পড়েছেন।

দেশের একমাত্র ঢাক ঢোলের এই ঐতিহ্যবাহী হাটের জন্য উপজেলার পৌর এলাকার পুরাতন বাজারে বিগত তিন বছর পূর্বে একটি শেড নির্মাণের জন্য তৎকালীন সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সোহরাব উদ্দিন ৯ লাখ টাকা বরাদ্দ দেন। কিন্তু অদ্যাবধি শেডটি সম্পন্ন না হওয়ায় এবং এর চারপাশে কাঁদা মাটি আর ময়লা আবর্জনায় সয়লাব থাকায় শেডে দুর দূরান্ত থেকে আগত ঢাকিরা আশ্রয় নিতে পারছেন না। ফলে তারা আশ্রয় নিয়েছেন পার্শ্ববর্তী শ্রী শ্রী লক্ষ্মীনারায়ণ জিওর আশ্রমে।

বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) ও শুক্রবার (৪ অক্টোবর) দুইদিন চলবে এই ঢাক ঢোলের হাট। শনিবার (৫ অক্টোবর) থেকে সপ্তমী পুজার মধ্যদিয়ে শুরু হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় এবং জাঁকজমকপূর্ণ উৎসব দুর্গাপূজা। দুই দিনের হাটকে ঘিরে বুধবার (১ অক্টোবর) সন্ধ্যা থেকে দল বেঁধে আসতে শুরু করেছেন ঢাকি ও বাদ্যিযন্ত্রিরা।

বিক্রমপুর থেকে আগত ঢাকি জীবন দাস বলেন, দুপুরে এসেছি। কিন্তু ঢাক ঢোল বা বাদ্যিযন্ত্র রাখার কোন স্থান পাচ্ছি না। অবশেষে আশ্রমের ভিতর আশ্রয় নিয়েছি। রাতের মধ্যে ব্যাপক সংখ্যক ঢাকিদের আগমণ ঘটবে। তাদের অবস্থানের জন্য সুব্যবস্থা না থাকায় দুর্ভোগ পোহাতে হবে।

কটিয়াদী উপজেলা পুজা কমিটির সাবেক সভাপতি বেনী মাধব ঘোষ বলেন, বরাদ্দ না থাকায় শেডের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করা যাচ্ছে না। তবে কটিয়াদী ঢাকের হাটের শত বছরের ঐতিহ্য রয়েছে।এই হাটে বৃহত্তর ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, সিলেট, ঢাকা, ব্রাহ্মনবাড়িয়া, নরসিংদী, গাজিপুর, নারায়ণগঞ্জ, হবিগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বিপুল সংখ্যক দুর্গাপূজার আয়োজক ও বাদ্যিযন্ত্রিদের আগমন ঘটে। আয়োজকরা তাদের পছন্দমত ঢাকি, বাঁশি, বাদ্যিযন্ত্রি নিতে পারেন।

বাদ্যযন্ত্রিরা নাচসহ বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গিতে পূজা আয়োজকদের আকৃষ্ট করে মোটা অংকের চুক্তিতে আবদ্ধ হয়ে থাকেন। সাধারণত একটি ঢাক ১০ থেকে ১২ হাজার, ঢোল ৭-৮ হাজার, বাঁশি প্রকারভেদে ৫ থেকে ৭ হাজার টাকা, ‘ব্যান্ডপার্টি’ ছোট ৩০ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা এবং বড় ৬০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা পর্যন্ত ভাড়া হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসরাত জাহান কেয়া ও ওসি আবু শামা মো. ইকবাল হায়াত বলেন, ঢাকিদের নিরাপত্তার যাবতীয় ব্যবস্থা ইতোমধ্যে নেয়া হয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর