কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


আন্তর্জাতিক তথ্য জানার অধিকার দিবসে কিশোরগঞ্জে র‌্যালি আলোচনা


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রবিবার, ৯:৫২ | বিশেষ সংবাদ 


“তথ্যের অধিকার, সুশাসনের হাতিয়ার; তথ্যই শক্তি, দুর্নীতি থেকে মুক্তি” -এ শ্লোগানকে সামনে রেখে রোববার (২৯ সেপ্টেম্বর) কিশোরগঞ্জে জাঁকজমকপূর্ণভাবে পালন করা হলো “আন্তর্জাতিক তথ্য জািনার অধিকার দিবস ২০১৯”। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিলো “তথ্য সবার অধিকার, থাকবেনা কেউ পেছনে আর”।

জেলা প্রশাসন ও সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), কিশোরগঞ্জ, টিআইবি’র এর যৌথ আয়োজনে সকালে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আব্দুল্লাহ আল মাসউদ এর নেতৃত্বে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালির মাধ্যমে কর্মসূচি শুরু হয়। র‌্যালি শেষে জেলা প্রশাসন সম্মেলন কক্ষে বিভিন্ন সরকারে ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আব্দুল্লাহ আল মাসউদ। তিনি তার বক্তৃতায় বলেন, সুশাসন নিশ্চিতের পূর্বশর্ত হলো স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা। স্বচ্ছতা থাকলে জনগণ তথ্য জানতে পারে আর জনগণের জানতে চাওয়ার মাধ্যমে সেবাদানকারী কর্তৃপক্ষ জবাবদিহিতার আওতায় চলে আসে। ফলে দুর্নীতির সুযোগ কমে আসে।

স্বজন সদস্য হুমায়ুন কবীরের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় ধারণা পত্র উপস্থাপন করেন সনাক সদস্য আব্দুল গনি। দিবসটি উপলক্ষে আলোচনা সভার প্রথম অংশে তিনটি প্রতিষ্ঠান, সনাক কিশোরগঞ্জ, সমাজসেবা অধিদপ্তর ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর প্রাতিষ্ঠানিক সেবার বিবরণ তুলে ধরে।

আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে সনাক সভাপতি সাইফুল হক মোল্লা দুলু, সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা মো. শামসুল হক, জেলা মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মায়া ভৌমিক, জেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোস্তফা কামাল, ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল প্রতিনিধি ডা. মো. আতাউর রহমান, সহযোগী অধ্যাপক সামিউল হক মোল্লা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

সনাক সভাপতি সাইফুল হক মোল্লা দুলু উপস্থিত সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, তথ্যের অবাধ প্রবাহ নিশ্চিত করার মাধ্যমে জনগণকে ক্ষমতায়িত করার লক্ষ্যে তথ্য অধিকার আইনকে কার্যকরী করণের বিকল্প নেই, তবে এ আইন যাদের অধিকারের কথা বলে তারাই এ আইন সম্পর্কে জ্ঞাত নয়। জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে “আন্তর্জাতিক তথ্য জানার অধিকার দিবস”কে কেন্দ্র করে সনাক, কিশোরগঞ্জ বিবিধ কর্মসূচির আয়োজন করে এর মধ্যে তথ্য অধিকার সপ্তাহ পালন ছিলো প্রশংসনীয়।

কর্মসূচিতে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, সাংবাদিক, সাধারণ জনগণ,  সনাক ও স্বজন সদস্য, ইয়েস গ্রুপের সদস্য, টিআইবি কর্মী ছাড়াও স্কুল কলেজের শিক্ষক এবং প্রায় দুই শতাধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর