কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বাহেরবালী (SESDP) মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বরখাস্ত


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, ৭:৩৭ | বাজিতপুর 


কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলার বাহেরবালী (SESDP) মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আবুল কাসেমকে নানা অনিয়ম এবং দুর্নীতির অভিযোগে বরখাস্ত করা হয়েছে। বিদ্যালয়ের অর্থ আত্মসাৎ, বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিতরণের জন্যে বই বিক্রি ও বঙ্গবন্ধুর ছবি নামানোসহ তার বিরুদ্ধে ১১টি অভিযোগ রয়েছে। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে গত বৃহস্পতিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) বাহেরবালী (SESDP) মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদ আবুল কাসেমকে সাময়িকভাবে বরখাস্তের আদেশ দেন।

জানা গেছে, অভিযুক্ত শিক্ষক ২০১৪ সালে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিতে প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। যোগদানের পর থেকেই নানা অনিয়ম ও দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ে। ফলে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ বার বার তাকে সতর্ক করলেও তিনি কর্ণপাত করেননি।

পরে বিদ্যালয়ের অর্থ আত্মসাৎ, বই বিক্রি করে দেয়াসহ অফিস কক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর ছবি নামিয়ে ফেলার কারণে শিক্ষার্থী ও স্থানীয়দের মনে ক্ষোভের সঞ্চার হয়। পরে অনিয়ম ও দুর্নীতি বন্ধে প্রতিকার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে প্রধান শিক্ষক আবুল কাসেমের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করে এলাকাবাসী।

২০১৭ সালে তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বিদ্যালয়ের সভাপতি ভাস্কর দেবনাথ বাপ্পী এসব অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়ে তদন্ত শুরু করেন। কিন্তু তদন্ত শেষ হওয়ার আগেই তিনি (উপজেলা নির্বাহী অফিসার) বদলী হয়ে অন্যত্র চলে যাওয়ার কারণে প্রধান শিক্ষক আবুল কাসেমের স্বেচ্ছাচারিতা ও অপরাধের মাত্রা আরো বেড়ে যায়।

অবশেষে এলাকাবাসী ও সচেতন মহলের লোকজন মিলে নতুন পরিচালনা পর্ষদ গঠন করে। এতে মো. আ. বাছির মিয়াকে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়। পরে নতুন কমিটি প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ১১টি অভিযোগের সত্যতা পায়। ফলে প্রধান শিক্ষককে দুই দফা সময় দিয়ে উপযুক্ত জবাব দিতে বলা হয়। কিন্তু নির্দিষ্ট সময় পেরিয়ে গেলেও উপযুক্ত জবাব দিতে না পারার কারণে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ।

অন্যদিকে প্রায় ৬ বছর আগে প্রধান শিক্ষক আবুল কাসেম তার নিজের হাতে গড়া এবং নিজের নামে প্রতিষ্ঠিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে সেখান থেকেও তাকে অপসারণ করা হয়েছে।

অভিযোগ অস্বীকার করে শিক্ষক আবুল কাসেম বলেন, এরই মধ্যে আমি শোকজের জবাব দিয়েছি। তাছাড়া অন্য কোনো বিষয়ে আমি কোনো চিঠি বা কাগজপত্র পায়নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মো. আ. বাছির মিয়া বলেন, অভিযুক্ত শিক্ষককের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হয়েছে। ফলে তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর