কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ঐতিহাসিক শোলাকিয়া দক্ষিণ এশিয়ার শ্রেষ্ঠতম ঈদগাহ ও মুসলিম সংস্কৃতির শ্রেষ্ঠতম শিকড়


 আহসান জামিল | ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার, ১০:০০ | মত-দ্বিমত 


কিশোরগঞ্জ জেলার দর্শনীয় স্থান সমূহের মধ্যে ঐতিহাসিক শোলাকিয়া শ্রেষ্ঠতম। দূর দূরান্ত থেকে মানুষ এ মাঠটিকে দেখার জন্য ছুটে আসেন। এটি দক্ষিণ এশিয়ার শ্রেষ্ঠতম ঈদগাহ। কিশোরগঞ্জবাসীর ঐতিহ্যের শিকড়, গৌরবের ধন। এটি দেশ ও দেশের বাইরে পরিচিতি লাভ করেছে ঈদগাহ হিসেবে। আধুনিক কোন মসজিদ বা স্থাপনা হিসেবে নয়।

তাই শত বছর ধরে সে মাঠটি কিশোরগঞ্জবাসীর বুকের উপর দাড়িয়ে আছে ঐতিহ্যবাহী ধর্মীয় উপাসনালয় ঈদগাহ হিসেবে। এবং যারা জমি দিয়েছেন তারা ঈদের মাঠের জন্য, ঈদগাহের জন্য দিয়েছেন, অন্য কোন উদ্দেশ্যে নয় । তাই হঠাৎ করে সেই ঈদগাহ মাঠের জন্য ওয়াকফকৃত জায়গায় আধুনিক কোন স্থাপনা, মসজিদ বা অন কোন কিছু নির্মাণ করা জায়েজ আছে কিনা!

যারা এই ধরনের মহৎ কাজের উদ্যোগ নিয়েছেন, তাদের ভেবে দেখা দরকার। বিজ্ঞ ওলামায়ে কেরামের সাথে পরামর্শ করা দরকার। কিশোরগঞ্জবাসীর মনের অভিব্যক্তিটাকে যাচাই করা দরকার। তবে কিশোরগঞ্জবাসীর রুচিবোধ থেকে বলতে পারি যে মাঠটি কিশোরগঞ্জবাসীর এক ধরনের অস্তিত্বের শিকড়। শত শত বছরের ঐতিহ্য সেটাকে নষ্ট করে বা সেই অস্তিত্বে ফাটল ধরিয়ে কিশোরগঞ্জবাসী উক্ত মডেল মসজিদ নির্মাণের পক্ষে মত দিবেন না।

মসজিদ হচ্ছে সিজদার স্থান। সকল মূমীনেরই মসজিদের প্রতি আবেগ, অনূভূতি, ভাললাগা, ভালবাসা, মমতা, উদারতা, ত্যাগ তীতিক্ষার মাত্রা অনেক বেশী। কিশোরগঞ্জবাসীও এ থেকে ভিন্ন নয়, তারাও চান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মডেল মসজিদ নির্মাণের যে মহৎ উদ্যোগ নিয়েছেন, তা থেকে কিশোরগঞ্জবাসী কোনভাবেই যাতে বঞ্চিত না হন। কিন্তু শত বছরের অস্তিত্বকে, ঐতিহ্যকে ধ্বংস করে নয়। অন্য কোথাও। যাতে ঐতিহাসিক শোলাকিয়ার ঐতিহ্যও ঠিক থাকবে, মডেল মসজিদও হবে।

এক্ষেত্রে অন্যত্র মডেল মসজিদ নির্মাণের অনেক উপায়ও রয়েছে। আর এখন কিশোরগঞ্জবাসী ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ বাড়াবার চিন্তা করে, কমাবার নয়। কারণ এতে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে এত লোকের সমাগম হয় যে, এখন যে মাঠটি আছে তা পূরোপূরি লোক কাভার দেবার জন্য আরো দুয়েকটি মাঠ প্রয়োজন। কারণ এত লোকের সমাগম হয় যে, আশেপাশের বাড়ি থেকে শুরু করে বহু দূর দূরান্ত এমনকি মাঠের একেবারে পশ্চিম দিকে ইমাম সাহেবের সামনে যে ইচ্ছাগঞ্জ গরুর হাট আছে, সব ভরপূর হয়ে যায়।

হাজার হাজার আবেগপ্রাণ মুসল্লীর ভীড়ের কারণে বা লোকসমাগম না ধরার কারণে ইমাম সাহেবের সামনে ইকতেদা শুরু করেন। এতে করে প্রতি বছর হাজার হাজার মুসল্লীর জামাত! যারা গরুর মাঠে ইকতেদা করছে তাদের নামাজ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে । তাই এক্ষেত্রে ইচ্ছাগঞ্জ মাঠসহ শোলাকিয়ার কিছু পরিধি বাড়ালে হাজারো মুসল্লী ইমামের সামনে ইকতেদা করবেন না, নামাজ নষ্ট হবে না।

কিন্ত সেটা বল্লেও কতটুকুন সম্ভব! এটা চিন্তার বিষয়। তবে সেটা না করলেও যদি মডেল মসজিদটি শোলাকিয়ার সামনে গরুর মাঠে নির্মাণ করা হয়, এতে কিশোরগঞ্জবাসীর জনসমর্থন থাকবে অনেক। শত বছরের ঐতিহাসিক ঈদগাহও বেঁচে যাবে অনেক বিশাল ক্ষতি থেকে। কিশোরগঞ্জবাসীর আবদারকেও প্রাধান্য দেয়া হবে ।

আর কোন ওয়াকফকৃত জায়গা ঈদগাহের জন্য যা ওয়াকফ করা হয়েছে, তাতে মসজিদ বা কোন স্থাপনা নির্মাণ করা যাবে কি-না তা বিজ্ঞ ওলামাদের কাছ থেকে জেনে নেওয়ারও দরকার ছিল।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ফতোয়া বলছে, ঈদগাহের জন্য ওয়াকফকৃত জায়গা যাতে ওয়াকফ করার সময় মসজিদের জন্য জায়গা রাখা হয়নি তাতে মসজিদ নির্মাণ করা জায়েজ নেই। তাই উক্ত বিষয়গুলো বিবেচনায় নিয়ে মডেল মসজিদ নির্মাণ কর্তৃপক্ষের উচিৎ শহরের বিভিন্ন স্থানে সরকারি জায়গা বা পরিত্যক্ত কোন স্থানে মডেল মসজিদ নির্মাণ করলে কিশোরগঞ্জবাসী বা গোটা দেশবাসীর মতকে প্রাধান্য দেয়া হবে।

এর ফলে জনগণের মতও প্রাধান্য পেল, মসজিদও হল, মসজিদ আবাদও হবে । শোলাকিয়াও তার ঐতিহ্য ধংসের হাত থেকে রক্ষা পাবে। মহান আল্লাহ এ ব্যাপারে মডেল মসজিদ নির্মাতাদের সঠিক সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়ার তাওফিক দিন। আমিন।

# আহসান জামিল, প্রভাষক, আইয়ূব হেনাপলিটেকনিক ইন্সটিটিউট।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর