কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সেই মাকে দেখতে ইউএনও গেলেন নিজের মাকে নিয়ে


 আশরাফুল ইসলাম ও মিছবাহ উদ্দিন মানিক | ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১:১৯ | সম্পাদকের বাছাই  


অবস্থাপন্ন ছেলেরা পরিচ্ছন্ন পরিপাটি সুন্দর ঘরে থাকলেও গোয়ালঘরে আশ্রয় নিতে হয়েছিল ৯০ বছরের বৃদ্ধা সমলা খাতুনকে। বিষয়টি জেনেই হোসেনপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সোনাহর আলী দাঁড়িয়েছিলেন সেই মায়ের পাশে। গণমাধ্যমে সংবাদ দেখে ছুটে গিয়েছিলেন হোসেনপুরের ইউএনও শেখ মহি উদ্দিন। ইউএনও শেখ মহি উদ্দিন এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সোনাহর আলীর উদ্যোগ আর তৎপরতায় গোয়ালঘরে আশ্রিত সেই মায়ের ঠাঁই হয়েছে এখন ছেলেদের সংসারে। জীবন সায়াহ্ণে এসে কাছে পেয়েছেন ছেলে-মেয়ে আর নাতি-নাতনীদের। তাদের কাছে পাওয়াটাই যেন সমলা খাতুনের কাছে এক পরম আনন্দের বিষয়।

সেই সমলা বিবি’র খোঁজখবর নিতে সোমবার (২৩ সেপ্টেম্বর) আবারও উপজেলার সাহেদল গ্রামে গেছেন হোসেনপুরের ইউএনও শেখ মহি উদ্দিন। ইউএনও শেখ মহি উদ্দিন সাথে নিয়ে গেছেন তার গরবিনী মা তাহেরা খাতুনকে। মা-ছেলে মিলে নিয়েছেন সমলা খাতুনের ভাল-মন্দের খোঁজখবর।

এর ফাঁকেই সমলা খাতুনের জন্য নিয়ে যাওয়া হুইল চেয়ারটি হস্তান্তর করেন ইউএনও শেখ মহি উদ্দিন। বয়সের ভারে ন্যুজ সমলা খাতুনের চলাফেরার জন্য ইউএনও’র উদ্যোগে হুইল চেয়ারটি দেয়া হয়েছে। হুইল চেয়ারে বসে সমলা খাতুন আনন্দে কেঁদে ফেলেন।

এসময় সেখানে উপস্থিত উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. খলিলুর রহমান সরকার, ইউপি সদস্য মো. সেলিম ও সাইফুল ইসলাম এবং এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গও আবেগতাড়িত হন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) শেখ মহি উদ্দিন জানান, এর আগে বৃদ্ধা সমলা বিবিকে বয়স্ক ভাতা ও কিছু নগদ আর্থিক সহায়তা করা হয়েছে। সোমবার (২৩ সেপ্টেম্বর) বিকালে তাঁর (সমলা খাতুন) চলাফেরার সুবিধার্থে একটি হুইল চেয়ার দেয়া হয়েছে। সমলা খাতুনের ভরণ-পোষণসহ সার্বিক বিষয়ে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে খোঁজখবর রাখা হবে বলেও ইউএনও শেখ মহি উদ্দিন জানান।

চার ছেলে ও চার মেয়ের জননী সমলা খাতুন হোসেনপুর উপজেলার সাহেদল গ্রামের নবী হোসেনের স্ত্রী। তার চার মেয়েই স্বামীর সংসারে। স্বামী নবী হোসেন আরেক স্ত্রী গ্রহণ করায় খোঁজ নেন না সমলা খাতুনের। তার নামে থাকা দুই শতক জায়গাও লিখে দিয়েছেন ছোট দুই ছেলে হেলাল উদ্দিন ও নিজাম উদ্দিনের নামে। এরপর থেকে ছেলেরাও আর তার কোন খোঁজ নিত না। স্বামী-সন্তান থেকেও যেন কেউ ছিল না সমলা খাতুনের।

স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে ছেলেরা পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন আর পরিপাটি সুন্দর ঘরে বসবাস করেন। কিন্তু মায়ের স্থান হয়নি তাদের সাথে। অগত্যা পরিত্যক্ত মালামালের মতো তারও ঠাঁই হয় বাড়ির গোয়ালঘরে। গোয়াল ঘরের এক কোণে মাথা গুজে খেয়ে না খেয়ে দিন কাটছিল সমলা খাতুনের।

গত দুই বছর ধরে গোয়ালঘরে গরুর পাশাপাশি নোংরা পরিবেশের মধ্যে একটি ভাঙা চৌকিতে শুয়ে দিন পার করেছেন এই সর্বংসহা নারী। সেই গোয়ালঘরে জ্বলতো না কোন বৈদ্যুতিক বাতি। এক অন্ধকার প্রকোষ্ঠের মতোই দিন-রাত অন্ধকারের মধ্যে গোয়ালঘরে কেটেছে তার দিন। গোয়াল ঘরের গোমূত্রের গর্ত, আবর্জনা আর নোংরা পরিবেশে মশার অসহনীয় উৎপাতকে সঙ্গী করে ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুকেই নিয়তি হিসেবে ভেবে নিয়েছিলেন এই জনমদুঃখী মা।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর একটি অভিযোগের সূত্র ধরে বিষয়টি জানতে পারেন হোসেনপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সোনাহর আলী। অভিযোগ দেখে হোসেনপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সোনাহর আলী সেই মাকে দেখতে হোসেনপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ মো. মোস্তাফিজুর রহমান ও অফিসার ফোর্সসহ ওইদিন বিকালেই ছুটে যান উপজেলার সাহেদল গ্রামে। তিনি স্থানীয় দুই ইউপি সদস্যসহ স্থানীয় লোকজনের উপস্থিতিতে সমলা খাতুনকে ছোট ছেলে নিজাম উদ্দিনের ঘরে তুলে দেন। সমলা খাতুনের ভরণপোষণের দায়িত্ব নেন দ্বিতীয় ছেলে ইমান উদ্দিনের ব্যবসায়ী ছেলে ওমর ফারুক।

এছাড়া চার ছেলে গিয়াস উদ্দিন, ইমান উদ্দিন, হেলাল উদ্দিন ও নিজাম উদ্দিন দশ দিনের মধ্যে নতুন ঘর নির্মাণ করে দেয়ার লিখিত অঙ্গীকার করেন। এরপরও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সোনাহর আলীর উদ্যোগে পুলিশের পক্ষ থেকে এই দুখিনী মায়ের থাকার জন্য একটি নতুন ঘর নির্মাণ এবং যাবতীয় বেডিং এর জিনিসপত্রের ব্যবস্থা করেন।

বিষয়টি নিয়ে গত ১৫ সেপ্টেম্বর দুপুরে কিশোরগঞ্জ নিউজ এ সংবাদ প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত এই সংবাদের মাধ্যমে বৃদ্ধা সমলা খাতুনের চরম অসহায়ত্বের কথা জেনে ১৬ সেপ্টেম্বর তার বাড়িতে ছুটে যান হোসেনপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) শেখ মহি উদ্দিন। ৯০ বছর বয়সী বৃদ্ধা সমলা খাতুনের হাতে ইউএনও শেখ মহি উদ্দিন সেদিন তুলে দেন বয়স্ক ভাতার বই ও কিছু নগদ অর্থ। এবার নিজের মাকে নিয়ে বৃদ্ধা সমলা খাতুনকে দেখতে গেলে মানবিক এই ইউএনও।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর