কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নিজ উপজেলা বাজিতপুরে সংবর্ধিত হলেন সুইড বাংলাদেশ মহাসচিব


 স্টাফ রিপোর্টার | ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রবিবার, ৮:১৫ | বাজিতপুর 


“বর্তমান প্রধানমন্ত্রী হলেন প্রতিবন্ধী শিশুদের ‘মা’। সুযোগ পেলেই তিনি প্রতিটি প্রোগ্রামে প্রতিবন্ধী শিশুদের কাছে টেনে মায়ের মতো জড়িয়ে ধরেন এবং ভালাবাসা-আদর-সোহাগে তাদের ভরিয়ে দেন। এটা আমাদের মতো প্রতিবন্ধী শিশুদের অভিভাবকদের কাছে সবচেয়ে বড় পাওয়া। তাদের আলোকিত জীবন গঠনে প্রধানমন্ত্রী প্রতিটি উপজেলায় কমপক্ষে একটি বিশেষায়িত বিদ্যালয়ের দেখভালো করবেন, এটা আমার বিশ্বাস এবং চরম বাস্তবতা।”

এসব কথা বলেছেন সুইড বাংলাদেশের নবনির্বাচিত মহাসচিব ডা. অজন্তা রানী সাহা। গত শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) বাজিতপুরে ‘মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী ফাউন্ডেশন’ নবনির্বাচিত মহাসচিবকে সংবর্ধনা প্রদানের আয়োজন করে। সেখানে সংবর্ধিত অতিথির বক্তৃতায় ডা. অজন্তা রানী সাহা এসব কথা বলেন।

এমরান উদ্দিন ভূঁইয়া এংরাজ এর সভাপতিত্বে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সুইড বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য রাশিদা বেগম, মো. জামাল উদ্দিন ছুটু, মো. সালেহ, ঢাকা জজ কোর্টের এপিপি ও মৃত্তিকার সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হক ভূঁইয়া এবং মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী শিশু পাঠশালার প্রধান শিক্ষক নূরে হায়াত।

অনুষ্ঠানের শুরুতে নবনির্বাচিত মহাসচিবসহ সকল অতিথিকে ফুল ও ক্রেস্ট দিয়ে বরণ করে নেন মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী শিশু পাঠশালার শিক্ষকবৃন্দ। অনুষ্ঠানে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিশু মাহফুজ ও তার দল পাঠশালার দলীয় সঙ্গীত এবং  সহকারী শিক্ষক মোছা. ঝুমুর আক্তারের নেতৃত্বে শ্রবণ ও বাক প্রতিবন্ধী শিশুরা ইশারা ভাষা প্রর্দশন করে।

আলোচনার শুরুতে মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারপারসন ম. মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া নবনির্বাচিত মহাসচিবের জীবন ও কর্মধারা উপস্থিত শতাধিক প্রতিবন্ধী শিশু, তাদের অভিভাবক ও এলাকাবাসীর সামনে তুলে ধরেন। তিনি উল্লেখ করেন, ডা. অজন্তা রানী সাহা শুধু একজন ডাক্তার নন, তিনি দেশের অধিকার বঞ্চিত প্রতিবন্ধী শিশু পরিবারের অতি আপন জন। নিজ কর্তব্যের বাইরে এসে তিনি প্রতিবন্ধী শিশুদের আলোকিত জীবন সৃজনে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন।

সুইড বাংলাদেশের মহাসচিব নির্বাচিত হওয়ায় তাঁর এ কাজের পরিধি ও দায়িত্ব আরো বহুগুণ বেড়ে যাবে বলে তিনি মনে করেন। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন, তাঁর সহযোগিতায় মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী শিশু পাঠশালা একদিন জাতীয় পর্যায়ে অবদান রাখতে সক্ষম হবে।

উল্লেখ্য যে, ডা. অজন্তা রানী সাহা কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলার সরারচর এলাকার ঐতিহ্যবাহী সাহা পরিবারের সন্তান। তিনি বর্তমানে সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল, ঢাকা এ শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ হিসেবে কর্মরত আছেন। তিনি একজন প্রতিবন্ধী শিশুর গর্বিত মাতা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর