কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারিদের 'বে' উপসর্গের বিলুপ্তি চাই


 এম এ বাতেন ফারুকী | ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, ১২:২৩ | মত-দ্বিমত 


বেসরকারি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার শিক্ষক-কর্মচারিগণকে সর্বপ্রথম ১ জানুয়ারি ১৯৮০ তারিখ থেকে জাতীয় স্কেলের অন্তর্ভুক্ত করা হয়। পরবর্তীতে ১ জুন ১৯৮৪ তারিখ থেকে বেসরকারি শিক্ষকদের প্রথম এমপিও (মান্থলি পে অর্ডার) ভুক্ত করা হয়। এখানে সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মোহিতের কথা স্মরণ করতেই হয়। তাঁর মতে, এমপিও সিস্টেম একটি বাজে সিস্টেম,ইহা বন্ধ করা উচিত। এমপিওভুক্তির পর থেকেই বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারিগণ সরকারি কোষাগার থেকে বেতন-ভাতা বাবদ অনুদান পেয়ে আসছিলেন। একটু বাঁকাভাবে চিন্তা করলে সাহায্যই (....) বলা চলে। প্রতি তিন মাস সময়ের জন্য একটি থোক বরাদ্দের মতো দেয়া হতো। তাও যে তিন মাসের বরাদ্দটা দেয়া হতো এর আরও তিন মাস পরে টাকা ব্যাংকে আসতো। সেক্ষেত্রে বন্টনকারী ব্যাংকও আবার নির্ধারিত ব্যাংক হতে হতো।

সে কী ঝামেলা! এমন উপজেলাও ছিল যেখানে নির্ধারিত ব্যাংকের শাখা ছিল না। তদ্রূপ উপজেলা বা থানার ক্ষেত্রে পার্শ্ববর্তী যে উপজেলায় নির্ধারিত ব্যাংক শাখা ছিল সেখান থেকেই তথাকথিত সাহায্যরূপ অনুদান গ্রহণ করতে হতো। আমি নিজেও এই ঝক্কি ঝামেলাটি মোকাবেলা করেছি। আনন্দেরই হউক আর বিষাদেরই হউক হেডস্যারসহ অধিকাংশ স্যারদের প্রিয় ছাত্র থাকার দরুন অনুদান উত্তোলনের কাজটি বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই আমাকেই করতে হয়েছে।

‘বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (বিদ্যালয়সমূহ)-এর শিক্ষক ও কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদির সরকারি অংশ প্রদান এবং জনবল কাঠামো সম্পর্কিত নীতিমালা’-১৯৯৫ এ সর্বপ্রথম বেসরকারি শিক্ষকদের বেতন-ভাতাকে সাহায্য বা অনুদানের পরিবর্তে বেতন-ভাতাদির সরকারি অংশ হিসেবে লিখিত স্বীকৃতি প্রদান করা হয়। পরবর্তীতে আবার ভুলক্রমে অনুদান শব্দটির পুনরাবৃত্তি হলেও বর্তমানে বেসরকারি শিক্ষকগণ বেতন-ভাতাদির সরকারি অংশই পাচ্ছেন। এখন আর বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারিগণ তথাকথিত সাহায্য বা অনুদান পাচ্ছেন না।

১ জানুয়ারি ১৯৮০ সন থেকে জাতীয় স্কেলে অন্তর্ভুক্তির পর থেকে বেসরকারি শিক্ষকগণ প্রতিটি পে-স্কেলেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন এবং সুবিধাদি পেয়েছেন। বিশেষ করে চলমান জাতীয় স্কেলে বেসরকারি শিক্ষকদের একটি নাটকীয় তথা অভাবনীয় অর্জন হয়েছে। এখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একক কৃতিত্ব বা দূরদর্শিতার কথাই বলতে হয়। এমপিওভুক্তির দীর্ঘ ৩৮ বছর পর এই প্রথম বেসরকারি শিক্ষকগণ নিয়মিত বার্ষিক বর্ধিত বেতন বা তৎকালীন ইনক্রিমেন্ট লাভের সুবর্ণ সুযোগ পেয়েছেন।

মোট কথা সরকার কর্তৃক প্রদত্ত জাতীয় বেতন স্কেলে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারিগণ বেতন ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা আংশিকভাবে হলেও পাচ্ছেন। তাঁরা আংশিক  বাড়িভাড়া ভাতা,  চিকিৎসা ভাতা ও উৎসব ভাতা   এবং  বার্ষিক প্রবৃদ্ধি ও বৈশাখী ভাতা পে-স্কেল অনুযায়ীই পাচ্ছেন। সুতরাং তাঁদের নামের আগে 'বে' শব্দটি আর বোধ করি জুতসই হচ্ছে না। সরকারকে এ বিষয়ে নূতন করে কিছু ভাবার অনুরোধসহ সুপারিশ করি।

তার আগে আরেকটি সম্পুরক বিষয়ে সুপারিশ রাখতে চাই, যেহেতু বর্তমানে এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারিদের বেতন-ভাতাদি প্রতি মাসে স্ব স্ব ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে প্রদত্ত হচ্ছে,সুতরাং সংবাদ মাধ্যমে তাঁদের বেতন-ভাতাদি ছাড়করণের খবর প্রচার করার কোনো প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না। ইহা এখন সরকারের বা সংশ্লিষ্ট বিভাগের রুটিন কাজ। আর রুটিন বা নিত্য কাজের জন্য সংবাদ মাধ্যমে প্রচার করার তো কোনো অর্থ নেই। তাছাড়া কোনো মাসের বেতন না দেয়ার বা ছাড় না করার কোনো সম্ভাবনা আছে বলে তো মনে হয় না। তবে কেন একই রকমের নিত্য খবর সংবাদ মাধ্যমে প্রচার করতে হবে? সাংবাদিক ভাইদেরও বিষয়টি একটু ভেবে দেখার অনুরোধ করছি।

মূল কথায় আসা যাক, বে উপসর্গটি না-বোধক অর্থে ব্যবহৃত হয় এবং কোনো মূল শব্দের বিপরীত অর্থবোধক শব্দ ও নেতিবাচক শব্দদ্যোতনা তৈরিতে এ উপসর্গটি ব্যবহৃত হয়ে থাকে। সরকারি শব্দের বিপরীত বা না-বোধক শব্দ বেসরকারি। সে অর্থে যেসব প্রতিষ্ঠানে বা যেসব ব্যক্তির উপর সরকারের কোনো আর্থিক বা প্রশাসনিক কোনোটারই সরাসরি অবদান বা নিয়ন্ত্রণ থাকে না সেসব প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তিকে বেসরকারি বলা যেতে পারে।  NGO বা  Non-governmental Organisation, Private University বা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, ব্যক্তি মালিকানাধীন স্কুল- কলেজ-মাদরাসা,প্রাইভেট কোম্পানি এ জাতীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে বেসরকারি বলা যায়। এগুলোর উপর সরকারের না আছে সরাসরি নিয়ন্ত্রণ না আছে সরাসরি আর্থিক কন্ট্রবিউশনের আইনগত বাধ্যবাধকতা। সুতরাং এগুলো পুরোপুরি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান।

কিন্তু কোনো আমলা বা এ জাতীয় কোনো সংস্থা বা কমিটি কর্তৃক কলমের এক খোঁচায় লিখে দেয়া তথাকথিত বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে তো কোনো যুক্তিতে বা কোনো মানদন্ডেই উপরে উল্লেখিত বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কাতারে মেলানো যাচ্ছে না। পূর্বে বর্ণিত প্রাপ্ত সুযোগে-সুবিধার নিরিখে বিচার করলে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে বর্তমানের আধা-সরকারি তো বটেই বরং  প্রায় সরকারি বা সরকারির মতো কিংবা সরকারির কাছাকাছি অর্থাৎ উপসরকারি বলা যেতে পারে।

সরকার নিয়ন্ত্রিত এবং সরকারের অংশীদারিত্বে যেসব প্রতিষ্ঠান আছে সেসব প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারিগণ জাতীয় পে-স্কেলের অন্তর্ভুক্ত। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, কওমি মাদরাসা, কিন্ডারগার্টেন, প্রাইভেট স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, ব্যাংক, বীমা, অর্থলগ্নি প্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন প্রাইভেট কোম্পানি, কারখানা সর্বোপরি প্রাইভেট ব্যবসায়-বাণিজ্য প্রভৃতি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারিগণ জাতীয় স্কেলের অন্তর্ভুক্ত নয়। সেক্ষেত্রে তারা বা এ প্রতিষ্ঠানগুলো বেসরকারি - ইহা অনস্বীকার্য। কিন্তু এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রাথমিক অবকাঠামো (কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান নামমাত্র অবকাঠামো দিয়ে শুরু হয়েছিল) যদিও ব্যক্তি পর্যায়ে বা সামাজিক পর্যায়ে গড়ে ওঠেছিল তথাপি পরবর্তীতে সরকার কর্তৃক উন্নয়নের ফলেই প্রতিষ্ঠানগুলো আজকের এই পরিপূর্ণ অবস্থানে পৌঁছেছে। বর্তমানেও রুটিনমাফিক এমনকি দ্রুতগতিতে উন্নয়ন কাজ চলছে। সে হিসেবে প্রতিষ্ঠানগুলোকেও তো সরকারি বলা না যাক, বেসরকারি বলারও তো সুযোগ নেই।

এ তো গেল প্রতিষ্ঠানের কথা। এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের তো বেসরকারি বলে আখ্যায়িত করার কোনোই সুযোগ নেই। সরকারি, আধা সরকারি, রাষ্ট্রায়ত্ত ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্মকর্তা-কর্রমচারিগণ জাতীয় স্কেলের অন্তর্ভুক্ত আবার এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারিগণও জাতীয় স্কেলের অন্তর্ভুক্ত। সুতরাং তাঁদের বেসরকারি বলার তো কোনো যুক্তি নেই। স্কেল সম্পর্কে আগেই বলা হয়েছে। সরকারের প্রশাসনিক আদেশ, অনুশাসন, বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পরিকল্পনা ও এজেন্ডা বাস্তবায়নে, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের আদেশ, অনুশাসন, পরিপত্র, প্রজ্ঞাপন বাস্তবায়ন  ও প্রতিপালনে বেসরকারি শিক্ষকগণ অগ্রণী ভুমিকা পালন করেন এবং তাঁরা এসব পালনে ও   বাস্তবায়নে বিধিবদ্ধভাবে বাধ্য। সরকারের গৃহীত সকল জাতীয় প্রোগ্রাম ও জাতীয় দিবসগুলোর যাবতীয় প্রোগ্রাম বাস্তবায়নে এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারিগণ অগ্রণী ভুমিকা পালন করে থাকেন।  এরপরও কি তাঁদের বেসরকারি বলা সমীচীন হবে? মোটেই না, এজন্যই এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারিদের দাবি একটাই, তা হলো জাতীয়করণ।

সরকার ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে বিশেষ অনুরোধ, জাতীয়করণ করার আগ পর্যন্ত এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারিদের বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারি না বলে অন্য কোনো নামে বা বিশেষনে বিশেষায়িত করার সুপারিশ রাখছি। এক্ষেত্রে প্রস্তাব হতে পারে, ফারসি উপসর্গ 'বে'- এর পরিবর্তে বাংলা উপসর্গ 'আড়>আধা' অথবা তৎসম উপসর্গ 'উপ' ব্যবহার করা যেতে পারে এবং ইংরেজি হবে যথাক্রমে  Semi অথবা Sub. ফলে নূতন বিশেষণ দাঁড়ায় আধাসরকারি বা উপসরকারি এবং ইংরেজি দাঁড়ায় Semi-government বা Sub-government. তবেই কাজে ও নামে এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারিগণ কিছুটা হলেও তৃপ্তির ঢেঁকুর তুলতে পারবেন।

লেখক - এম এ বাতেন ফারুকী, প্রধান শিক্ষক, সৈয়দ হাবিবুল হক উচ্চ বিদ্যালয়, কিশোরগঞ্জ সদর।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর