কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


একজন নন্দিত মাশরুকুর রহমান এবং কিছু অপ্রকাশ্য হৃদয়ের কথা


 মো. আব্দুল বাতেন | ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার, ৪:৫৮ | মত-দ্বিমত 


চেহারাটা সুন্দর তাই না? আর হাসিটা তো কথাই নেই! এক কথায় অসাধারণ। তার থেকে বেশি সুন্দর তার ব্যবহার, সেটা অধীনস্ত পুলিশ সদস্যের সাথে হোক বা অফিসে আগত একজন সাধারণ রিকশাওয়ালা হোক। সবার সাথেই তার হাসিমুখে মিষ্টি কথা। বলছিলাম মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ, বিপিএম(বার) পুলিশ সুপার কিশোরগঞ্জ মহোদয়ের কথা।

মানুষ হিসেবে তিনি অত্যন্ত মানবিক, কোমল মনের। আনুমানিক ২০১৪ কিংবা ২০১৫ সালের দিকে স্যার তখন ডিএমপি'তে ডিসি ডিবি দক্ষিণের দায়িত্বে, তখন আমি ডিবিতে কয়েক মাস কাজ করার সুযোগ পাওয়ায় স্যারকে সেখানে দেখেছি। সবার সাথে সুন্দর সুমিষ্ট ভাষায় কথা বলতেন। কোন কন্সটেবলের সাথেও স্যারকে কখনো রাগ করতে দেখিনি। সবার প্রতি তখন থেকেই স্যার খুব আন্তরিক ছিলেন।

ঘটনা-১: ২০১৫ সালের নভেম্বর সম্ভবত। আমি তখন থেকেই ফেসবুকে নিয়মিত অনেক লেখালেখি করতাম। লিখলে সবাই তা ভালোভাবেই নিত। বেশ প্রশংসা করতো অনেকে। আমাদের পুলিশের অনেক সিনিয়র স্যার, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ আমার বন্ধু তালিকায় যুক্ত ছিলেন।

একদিন রাত দুইটা-তিনটা হবে! হঠাৎ আমার ফেসবুক আইডি হ্যাক। তখন বাংলাদেশে ঐশিকে নিয়ে তুমুল আলোচনা চারিদিকে। সাংবাদিক, টিভি চ্যানেল সবার নজরই ওইদিকে। হ্যাকার আইডি হ্যাক করে তখনি ঐশিকে নিয়ে একটা পোস্ট দেয়, যা রাষ্ট্রদ্রোহীতার শামিল।

পোস্ট দেখে কি করবো বুঝতে পারছিলাম না, কি-ই বা করার ছিলো। যাই লেখা হোক সমস্ত প্রকার দায়দায়িত্ব আমার। কেননা আইডিটা আমার নাম, ছবি দিয়ে খোলা। উপায়ন্তর না পেয়ে আমার মোবাইলে সেভ করা মাশরুক স্যারকে ফোন করলাম।

স্যার আমার সমস্ত কথা শুনলেন। বললেন, ভয় পেয়ো না বাতেন, জিডি করো, জিডির কপি তোমার কাছে রাখো। আমি বললাম, স্যার যেসব কথা লিখছে আমার চাকরি থাকবে তো স্যার? হাসলেন অনেকক্ষণ, তোমার চাকরির কিছুই হবে না যাও। আর তখনি স্যার আমাকে একজন আইটি এক্সপার্টের ফোন নাম্বার দিলেন। তাকে তখনি বলে দিলেন আমার সাথে কথা বলার জন্য। আমি তার পরের দিন সকালে আমার আইডি ফিরে পেলাম।

ঘটনা-২: আমি গত ১৩ সেপ্টেম্বর টাংগাইল জেলা থেকে বদলিসুত্রে কিশোরগঞ্জ জেলায় যোগদান করি। যোগদান করার পর ভাবলাম, পুলিশ সুপার স্যারকে যেহেতু আমি চিনি সেহেতু পরিচয় দিয়ে একটু দেখা করলে দোষ কিসের? স্যার যদি পরিচয় দিলে চিনে চিনবে, না চিনলে চলে আসবো।

পুলিশ অফিসের ওয়েটিং রুমে বসে আছি। অফিস ডিউটিকে বললাম আমি স্যারের সাথে দেখা করো। অফিস ডিউটি বললো হবে না। মনটা মারাত্মক খারাপ হয়ে গেল। আমি চলে আসবো, আসার আগে ভাবলাম, স্যারকে একটা টেক্সট মেসেজ দেই, দিলামও।

মেসেজ দিলাম ১১.৩৪ মিনিটে স্যার মেসেজ পেয়ে তখনি অফিস ডিউটিকে দিয়ে আমাকে ভেতরে ডাকলেন। ভেতরে গেলাম। গিয়ে দেখলাম আমার সেই প্রিয় মানুষটি ভেতরে বসে আছেন চেয়ারে। স্যার বললেন,_তোমাকে চেনা চেনা লাগছে। কোথায় দেখেছি বলো তো! আমি বললাম, স্যার আমি বাতেন, ডিএমপি'তে ছিলাম।
স্যার বললেন, ওহ্। কেমন আছো তুমি? কোন জেলায় আছো তুমি? আমি স্যারকে জানালাম, টাংগাইল থেকে কিশোরগঞ্জ বদলি হইছে। স্যার বললেন, আচ্ছা। থাকো আসছো। এভাবে প্রায় ১০ মিনিট সময় স্যার আমার সাথে কথা বললেন। কোন সমস্যা হলে সরাসরি ফোন করতে বললেন।

আমি একজন কনস্টেবল হিসেবে খুব গর্ব হলো যে, স্যারের জেলায় আমি হয়তো কিছুদিন চাকরি করতে পারবো। লাইনের ভেতর এসে অনেক কিছু জানলাম একদিনেই, সবার একই কথা স্যারের মত মানুষ খুব কম আছে দুনিয়ায়। খুব ভালো মানুষ। একটা ছেলেকে দেখলাম, স্যারের কথা বলতে বলতে কান্নাই করলো।

পরিশেষ, আমরা সবাই বাবা-মা, স্ত্রী-সন্তান রেখে চাকরি করি। এমন একজন অভিভাবক পেলে সবারই ভালো লাগে। যাকে মনের গভীরের দুঃখ কষ্টের কথাও বলা যায়। ভালো থাকবেন স্যার। আপনার মত মানুষ পাওয়া সত্যিই খুব কঠিন। আপনার ভেতরে বাহিরে সবই সুন্দর। মানুষ হিসেবে আপনি অনন্য একজন মানুষ। আল্লাহ আপনার ভালো করুন। নেক হায়াৎ বাড়িয়ে দিন। আল্লাহ ভালো রাখূন আপনার পরিবারের সবাইকে।

# মো. আব্দুল বাতেন, কনস্টেবল ৮৯৯, জেলা পুলিশ, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর