কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরব এখন ছিনতাইয়ের শহর


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রবিবার, ১২:৩০ | ভৈরব 


ভৈরবে সন্ধ্যা নামলেই সবার মনে জাগে ভয় মানে ‘ছিনতাই আতঙ্ক’। কেননা শহরের বিভিন্ন স্থানে গেল দু’সপ্তাহে ঘটেছে ২৫টিরও বেশি ছিনতাইয়ের ঘটনা। শুধুমাত্র নগদ টাকা আর দামী মোবাইল ফোন হাতিয়ে শান্ত হয়নি ছিনতাইকারীরা। তাদের ধারালো দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। হঠাৎ করে ছিনতাইকারীদের দৌঁরাত্ম বেড়ে যাওয়ায় ছিনতাই আতঙ্কে শহরের ব্যবসায়ী ও পথচারীরা। ফলে বিষয়টি ভাবিয়ে তুলছে সুশীল সমাজের লোকজনকে।

এদিকে পুলিশি হয়রানির ভয়ে ছিনতাইয়ের কবলে পড়েও থানায় অভিযোগ করেন না অনেকেই। অতীতে ছিনতাইয়ের কবলে ও বাসা বাড়িতে চুরির অভিযোগ করার পরও কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি পুলিশ। সাংবাদিকরা থানা পুলিশকে ছিনতাইয়ের ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলে তাদের একটি সহজ উত্তর কোন অভিযোগ নেই, অভিযোগ পেলেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে ছিনতাইয়ের ঘটনায় পুলিশ বলছে, দু’এক দিন পর পর একের পর এক ছিনতাইকারীকে আটক করে জেল হাজতে পাঠানো হচ্ছে। তারপরও কেন কমছে না শহরে ছিনতাই বা ছিনতাইকারীর সংখ্যা? এমন প্রশ্নের জবাবে ভৈরব থানার ওসি মো. মোখলেছুর রহমান বলেন, শহরে প্রায় অর্ধশতাধিক চিহ্নিত ছিনতাইকারী থাকলেও এদের অনেকেই এখন জেলে রয়েছে। তারা সুযোগ বুঝে ছিনতাই শেষে আবার সটকে পড়ে। তাছাড়া ছিনতাইয়ের ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ না দেয়ার কারণেও সহজে কাউকে আটক করা সম্ভব হচ্ছে না।

জানা গেছে, দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের কেন্দ্রবিন্দু বন্দরনগরী ভৈরব। একই সাথে সড়ক, রেল ও নৌ-পথের রয়েছে অবাধ যোগাযোগ। ফলে শহর এবং শহরের আনাচে-কানাচে গড়ে ওঠেছে অসংখ্য কল-কারখানাসহ শত শত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এছাড়াও এই ভৈরবে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম মাছের আড়তসহ কয়লার একটি বড় মোকাম রয়েছে। ফলে শহরে প্রতিদিন কোটি কোটি টাকার মালামাল আমদানী-রপ্তানী করা হয়। আর এসব নগদ টাকা লেনদেনের জন্য শহরে ৩৫টিরও বেশি বাণিজ্যিক ব্যাংকের শাখা রয়েছে। এসব ব্যাংকে সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টার মধ্যে টাকা জমা না দিতে পারলে বিপাকে পড়েন ব্যবসায়ীরা।

এছাড়াও শহরে রেল এবং সড়ক পথের অগণিত যাত্রীদের অবাধ চলাচল রয়েছে। ফলে এসব যাত্রী ও ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নগদ টাকা এবং দামী মোবাইল ফোন হাতিয়ে নিতে ছিনতাইকারীদের রয়েছে একাধিক চক্র। তারা সুযোগ বুঝে অতর্কিত হামলা চালিয়ে কেড়ে নেয় নগদ টাকা এবং দামী মোবাইল ফোন। আর এসব মালামাল দিতে সামান্য দেরি করলেই ছিনতাইকারীদের হাতে থাকা ধারালো দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে আহত হতে হচ্ছে। এতে একের পর এক দিনের পর দিন বাড়ছে হতাহতের ঘটনাও।

গত ৩০ আগস্ট শহরের মনামরা ব্রীজ এলাকায় রাত ৯টার দিকে পিয়াস নামে এক ব্যবসায়ীর বুকে ছুরিকাঘাত করে নগদ ১ লাখ ২০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় স্বপন নামে এক ছিনতাইকারী। পরে গুরুতর আহত পিয়াসকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। গত ৮ সেপ্টেম্বর শহরের নাটাল মোড়ে রাত ১০টার দিকে এক পথচারীকে ছুরিকাঘাত করে নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। পরে স্থানীয়রা তাকে হাসপাতালে পাঠায়।

৯ সেপ্টেম্বর রাত ১টার দিকে পৌর কবরস্থানের সামনে দু’জনকে ছুরিকাঘাত করে নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়া হয়। শহরের শুভ নামে এক চিহ্নিত ছিনতাইকারীর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ ওঠে। গত ১১ সেপ্টম্বর রাত সাড়ে ১০টার দিকে ভৈরব বাজারস্থ দৈনিক পূর্বকণ্ঠ অফিস থেকে কাজ শেষে রিয়াদ হোসেন ও তার বন্ধু আক্রাম আহমেদ রিকশা যোগে বাড়ি ফেরার পথে শহীদ আইভি রহমান পৌর স্টেডিয়ামের সামনে ছিনতাইকারীর কবলে পড়ে। এসময় তাদেরকে ছুরি ঠেকিয়ে স্যামসাং ব্র্যান্ডের দামী দু’টি মোবাইল ফোনসহ ৩টি মোবাইল ফোন ও নগদ ৩০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় ছিনতাইকারীরা।

গত ১২ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে একই এলাকায় পথচারী আব্দুস সালাম নামে এক ব্যক্তিকে ছুরিকাঘাত করে নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয়া হয়। এছাড়াও রাত ৯টার পলাশের মোড় এলাকায় এক রিকশা চালককে ছুরিকাঘাত করে ছিনতাইকারীরা।
অনুসন্ধানে জানা যায়, শহরের রেল স্টেশন সড়কের পলাশের মোড় থেকে পৌর কবরস্থান, নাটাল মোড় থেকে ফেরিঘাট, রেলওয়ে উচ্চ বিদ্যালয় থেকে রেলওয়ে কলোনী মন্দির, মেঘনা জ্বালানী তেলের ডিপো ঘাট থেকে মনামরা ব্রীজ, ভৈরব বাজারের হলুদপট্টি থেকে লালপুর ঘাট, উপজেলা পরিষদ থেকে শম্ভুপুর রেল গেইট, শহীদ আইভি রহমান পৌর স্টেডিয়াম থেকে চণ্ডিবের শহীদ আইভি রহমান চত্বর সড়ককে ছিনতাইয়ের নিরাপদ জোন হিসেবে বেছে নিয়েছে ছিনতাইকারীরা। ফলে এসব সড়কে প্রতিনিয়ত ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে।

এছাড়াও শহরের অন্ধকারাছন্ন বিভিন্ন অলি-গলিতে সুযোগ পেলে ছিনতাইকারী হাতিয়ে নেয় নগদ টাকাসহ মূল্যবান জিনিসপত্র। যদিও ভৈরবে বেঙ্গল, হাইওয়ে, রেলওয়ে থানাসহ ভৈরব বাজার ফাঁড়ি ও নৌ-পুলিশ ফাঁড়ি রয়েছে। শুধু তাই নয়, এই শহরে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পও রয়েছে। এরপরও নিয়ন্ত্রণের বাইরে রয়েছে ছিনতাইকারীরা।

এসব ছিনতাইকারীদের অধিকাংশ সদস্যের বয়স ১৫ থেকে ২৫ বছর। ফলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পুলিশ প্রশাসনের ভূমিকা এবং ছিনতাইকারীদের একের পর এক ঘটনা নিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনার ঝড়। কেউ কেউ আবার এসব ঘটনার জন্য রাজনৈতিক মহলের নেতাদের ভূমিকা নিয়ে সমালোচনা করছেন। আবার কেউ নাগরিক আন্দোলনের জন্যও ডাক দিচ্ছেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ভৈরব থানার ওসি মো. মোখলেছুর রহমান জানান, প্রায় প্রতিদিনই একজন, দু’জন আবার কখনো তার চেয়েও বেশি সংখ্যায় ছিনতাইকারীকে আটক করছে পুলিশ। তাছাড়া গেল এক বছরে পুলিশের হাতে প্রায় ৩ শতাধিক ছিনতাইকারী ধরা পড়েছে। পরে মামলা দিয়ে তাদের সবাইকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

তাহলে ছিনতাইকারীদের আসল সংখ্যা কত হবে? এমন প্রশ্নের জবাবে ওসি মো. মোখলেছুর রহমান বলেন, প্রতিদিনই ছিনতাইকারীর সংখ্যা বাড়ছে। এর পেছনের কারণ হলো মাদক। আর মাদকের বা নেশার টাকা যোগাড় করতেই এসব ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। তাছাড়া থানায় লিখিত অভিযোগ না দেয়ায় এবং হাতেনাতে আটক করতে না পারার কারণে অনেকেই রয়েছে পর্দার আড়ালে। তাই সবাইকে সচেতন হতে হবে। ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

বিশেষ করে সমাজের প্রতিটি পরিবারের অভিভাবকরা যদি তাদের সন্তানের প্রতি নজর রাখেন, কখন সে বাসা থেকে বেরোচ্ছে, কখন বাসায় ফিরছে, কার সাথে মিশছে। তাহলে সমাজ থেকে যেমনিভাবে কমবে শিশু-কিশোর অপরাধ। তেমনিভাবে কমবে ছিনতাইয়ের ঘটনা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর