কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


২০১৬-১৭ সালের জন্য কিশোরগঞ্জের যে ছয় গুণী সংস্কৃতিজন সম্মাননা পেলেন


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, ৫:০৮ | সংস্কৃতি 


কিশোরগঞ্জ জেলার বিগত পাঁচ বছরের গুণী সংস্কৃতিজনদের জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাতে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এমপি। জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান শাহজাহান ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ আফজল।

অনুষ্ঠানে বিগত পাঁচ বছরের ২৬ গুণী সংস্কৃতিজনকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। সম্মাননাপ্রাপ্ত ২৬ গুণী সংস্কৃতিজনের মধ্যে ২০১৬-২০১৭ সালের জন্য পাঁচটি ক্যাটাগরিতে ছয় গুণী সংস্কৃতিজনকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। তারা হলেন, এম.এ. কাইয়ুম, শহীদুজ্জামান স্বপন, সৈয়দা মোনালিসা ইসলাম শিলা, ফৌজিয়া জলিল ন্যান্সি, মো. শামছুজ্জামান সেলিম এবং নাসিরউদ্দীন ফারুকী।

এম.এ. কাইয়ুম: ১৯৪২ সালের ১ অক্টোবর কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বিন্নাটি ইউনিয়নের পাটাবুকা গ্রামের মাতুলালয়ে চিত্রশিল্পী এম. এ. কাইয়ুম এর জন্ম। বাল্যকাল থেকেই তিনি কিশোরগঞ্জ শহরের পুরাতন কোর্ট রোড এলাকার নিজস্ব বাড়িতে বসবাস করেছেন। ১৯৬৩ সালে ঢাকা আর্ট কলেজ থেকে ফাইন আর্টস-এ স্নাতক ডিগ্রি গ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের সরাসরি ছাত্র। শিক্ষাজীবন শেষ করে তিনি তদানীন্তন পাকিস্তান সরকারের শিক্ষা ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে সিনিয়র আর্টিস্ট হিসেবে চাকরিতে যোগ দেন; কর্মস্থল ছিল করাচিতে।

১৯৭১ এর মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় শিল্পী এম.এ. কাইয়ুম পাকিস্তানি জান্তার রোষানলে পড়ে গ্রেপ্তার হয়ে পেশোয়ার সেন্ট্রাল জেলে দীর্ঘ আট মাস কারারুদ্ধ থাকেন। জেল থেকে মুক্তি পাওয়ার পর পাকিস্তান থেকে কৌশলে আফগানিস্তানে পালিয়ে আসেন এবং ভারত সরকারের সহায়তায় কাবুল থেকে দিল্লিতে পৌঁছান। দেশে ফেরার পর তিনি শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন প্রতিষ্ঠিত সোনারগাঁ লোকশিল্প জাদুঘরের জন্মলগ্ন থেকে ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত আর্টিস্ট কাম ডিসপ্লে অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এই জাদুঘরের প্রবেশ দ্বারের পাশে শিল্পাচার্যের বিখ্যাত চিত্রকর্ম ‘সংগ্রাম’-এর ভাস্কর্যে রূপান্তরের মূল রূপকারও শিল্পী এম.এ. কাইয়ুম।

১৯৯০ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘরে সিনিয়র ডিসপ্লে অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। সেখান থেকে অবসরে আসার পর কিশোরগঞ্জ শহরের নিজ বাসায় অবস্থান করে স্থানীয় শিল্প-সাহিত্য ও সংস্কৃতি জগতের সাথে নিবিড়ভাবে সম্পৃক্ত হন। শিল্পকর্ম ছাড়াও তিনি একজন গবেষণাধর্মী লেখক ও প্রাবন্ধিক হিসেবেও পরিচিত। তিনি কিশোরগঞ্জ জেলার ইতিহাস প্রণয়ন কমিটির একজন অন্যতম সদস্য ও এই গ্রন্থের লোকজ শিল্প-সংস্কৃতি বিষয়ক অধ্যায়ের রচয়িতা।

চারুকলা ও চিত্রশিল্পে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় ২০১৬-২০১৭ সালে চারুকলা ক্যাটাগরিতে চিত্রশিল্পী এম. এ. কাইয়ুমকে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়। উল্লেখ্য যে, তাঁকে এই সম্মাননায় ভূষিত করার পর গত ২৩ মে আকস্মিক এই কৃতী শিল্পী পরলোক গমন করেন।

শহীদুজ্জামান স্বপন: কবিতা, ছড়া ও প্রবন্ধ রচনার পাশাপাশি একজন গীতিকবি, সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক হিসেবেই সমধিক পরিচিতি অর্জন করেছেন শহীদুজ্জামান স্বপন। ১৯৫৯ সালের ৬ সেপ্টেম্বর ভৈরবে জন্ম নেন এই কৃতী সঙ্গীত পরিচালক। ভৈরবের কমলপুর গ্রাম থেকে উঠে আসা শহীদুজ্জামান স্বপন একজন লব্ধ প্রতিষ্ঠিত সুরকার হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন। নিজের লেখা গান ছাড়াও অন্যান্য গীতিকারের অনেক গানেও তিনি সুরারোপ করেছেন। তিনি বাংলাদেশ বেতার ও বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রথম শ্রেণির গীতিকার, সুরকার, কণ্ঠশিল্পী ও বিশেষ শ্রেণির সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে তালিকাভুক্ত। সঙ্গীত রচনা ও সুর সংযোজনা ছাড়াও তিনি অবসরে কবিতা, ছড়া ও সঙ্গীত বিষয়ক প্রবন্ধ লিখে থাকেন।

১৯৮২ সালে তিনি কণ্ঠশিল্পী হিসেবে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে যোগ দেন। ২০০১ সালে একই প্রতিষ্ঠানে ইন্সট্রাক্টর (সঙ্গীত) ও পরবর্তী সময়ে সিনিয়র ইন্সট্রাক্টর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। দীর্ঘ পাঁচ বছর কাজ করেছেন প্রশিক্ষণ বিভাগের কোর্স কো-অর্ডিনেটর হিসেবে। সর্বশেষ উপপরিচালক পদমর্যাদায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সঙ্গীত ও নৃত্য বিভাগে সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন এবং ২০১৮ সালের ৫ সেপ্টেম্বর অবসরে আসেন। চাকরি থেকে অবসর নিলেও তিনি সঙ্গীত সাধনা থেকে দূরে সরে আসেননি। বাংলা সঙ্গীতে শুদ্ধ স্বর ও শুদ্ধ গায়কির জন্য ২০১৬-২০১৭ সালে এই কীর্তিমান সঙ্গীত শিল্পীকে কণ্ঠসঙ্গীত ক্যাটাগরিতে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।

সৈয়দা মোনালিসা ইসলাম শিলা: গত শতকের নব্বই দশকে কিশোরগঞ্জের নৃত্যাঙ্গনকে যে ক’জন প্রতিশ্রুতিশীল তরুণ শিল্পী তাদের নৃত্য কুশলতায় স্থানীয় নৃত্যজগৎকে মাতিয়ে রেখেছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম প্রধান হচ্ছেন সৈয়দা মোনালিসা ইসলাম শিলা। ক্ল্যাসিকেল ও লোকজ ঘরানার নৃত্যে তাঁর অসাধারণ নৈপুণ্য সমসাময়িককালে অন্য অনেকের চেয়ে অনেক বেশি ঔজ্জ্বল্যে উদ্ভাসিত ছিল। তাঁর জন্ম ১৯৮২ সালের ৭ মে কিশোরগঞ্জ শহরের খরমপট্টিস্থ বেগম রোকেয়া সড়কের বহুল পরিচিত পূর্ণি ভিলায়। মায়ের নাম সৈয়দা আমেনা ইসলাম। পিতা সৈয়দ ওয়াহেদুল ইসলাম পট্টু মিয়া। তিন ভাই ও পাঁচ বোনের সংসারে পরম মমতায় বেড়ে ওঠা শিলা ব্যক্তিগত জীবনে কিশোরগঞ্জের একটি ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান।

শিলাদের পাঁচ বোনই সেই নব্বই দশকে নৃত্যশিল্পের সাথে জড়িত ছিলেন। তন্মধ্যে শিলার অংশগ্রহণই ছিল সবচেয়ে উজ্জ্বল। স্কুলে ও কলেজে অধ্যয়নকালে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে সৈয়দা মোনালিসা ইসলাম শিলা একাধিকবার প্রথম স্থান অধিকার করেন। তিনি তৎসময়ে জেলার অন্যতম সাংস্কৃতিক সংগঠন কিশোরগঞ্জ সাংস্কৃতিক পরিষদ ও পরে কিশোরগঞ্জ সাংস্কৃতিক সংস্থার সাথে সম্পৃক্ত হন। সে সময় মৈমনসিংহ গীতিকার উপাখ্যান অবলম্বনে রচিত ‘চন্দ্রাবতী’ ‘মহুয়া’ ‘কাজলরেখা’ ইত্যাদি নৃত্যনাট্যে কেন্দ্রীয় চরিত্রে একাধিকবার অভিনয় করেন। এছাড়া ‘বীরাঙ্গনা সখিনা’ ‘সোনাই মাধব’ ‘কান্দে সুজন বিরহে’ ‘জনমদুখি মা’ ইত্যাদি নৃত্যনাট্যেও তিনি কেন্দ্রীয় চরিত্রে একাধিকবার অভিনয় করে দর্শকনন্দিত হয়েছেন। বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেসরকারি একুশে টেলিভিশনেও তিনি নৃত্যনাট্যে অংশগ্রহণ করেছেন। শহরের খরমপট্টি এলাকায় প্রতিষ্ঠিত শিশু-কিশোর সংগঠন ‘ময়ূখ খেলাঘর’-এর সাথেও তিনি নিবিড়ভাবে জড়িত ছিলেন।

নৃত্যশিল্পে বিশেষ অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৬-২০১৭ সালে এই কীর্তিময়ী নৃত্যশিল্পীকে নৃত্যকলা ক্যাটাগরিতে যৌথভাবে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।

ফৌজিয়া জলিল ন্যান্সি: সংস্কৃতির প্রতি আপাদমস্তক নিবেদিত থেকে যিনি স্থানীয় সংস্কৃতির উন্নয়ন ও অগ্রায়নে নিবিড়ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন, তাঁর নাম ফৌজিয়া জলিল ন্যান্সি। ১৯৬৬ সালের ২৬ নভেম্বর কিশোরগঞ্জ শহরের খড়মপট্টি মহল্লায় অভিজাত মুসলিম পরিবারে জন্ম নেন ন্যান্সি। মায়ের নাম জাহানারা জলিল, বাবার নাম সার্জেন্ট আবদুল জলিল। ন্যান্সির পিতা আবদুল জলিল ছিলেন তৎকালীন পাকিস্তান বিমান বাহিনীর একজন চৌকস ফ্লাইট সার্জেন্ট। সরকারি চাকরি করেও বাঙালির স্বাধিকার ও স্বাধীনতা প্রশ্নে জনাব জলিল বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখেছিলেন। যে কারণে পাকিস্তান সরকার কর্তৃক বঙ্গবন্ধু ও অন্যান্যের বিরুদ্ধে রুজুকৃত আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় তিনিও অভিযুক্ত হিসেবে রাষ্ট্রীয় হয়রানির শিকার হন।

ফৌজিয়া জলিল ন্যান্সি স্কুল ও কলেজ জীবনে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মসূচিতে নিয়মিত অংশ নিতেন। স্বাধীনতা-উত্তর সময়ে সত্তর দশকের শেষার্ধে কিশোরগঞ্জের মতো পশ্চাৎপদ মফস্বল শহরে যখন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে মুসলিম পরিবারের মেয়েদের পাওয়া যেত না, ঠিক সে সময় সকল সামাজিক প্রতিবন্ধকতাকে উজিয়ে যে ক’জন মুসলিম মেয়ে স্থানীয় সংস্কৃতিকে সজীবতা দিতে এগিয়ে আসেন তাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন ফৌজিয়া জলিল ন্যান্সি। সে সময় স্থানীয় আর্টস কাউন্সিলে (বর্তমানে জেলা শিল্পকলা একাডেমি) বিভিন্ন সংগঠনের নাটক ও নৃত্যনাট্যে অভিনয় করে দর্শকদের দৃষ্টি কেড়েছিলেন এই অপার সম্ভাবনাময় তরুণী। পরবর্তী সময়ে পুরো আশির দশক জুড়ে অপেশাদার নাট্যশিল্পী ও নৃত্যশিল্পী হিসেবে তিনি যুগপৎ অভিনয় ও নৃত্য চালিয়ে যান।

ফৌজিয়া জলিল ন্যান্সি বর্তমানে কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদের নির্বাচিত সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া জেলার বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথেও তিনি নিবিড়ভাবে সম্পৃক্ত আছেন। সংস্কৃতি ক্ষেত্রে বিশেষ করে নৃত্যশিল্পে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৬-২০১৭ সালে নৃত্যকলা ক্যাটাগরিতে যৌথভাবে ফৌজিয়া জলিল ন্যান্সিকে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।

মো. শামছুজ্জামান সেলিম: কটিয়াদী পৌর এলাকার ২ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিমপাড়ার সন্তান মো. শামছুজ্জামান সেলিম। তাঁর জন্ম ১৯৬৯ সালের ১ নভেম্বর। ব্যবস্থাপনা বিষয়ে সম্মানসহ স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নিয়ে তিনি কটিয়াদীর ডা. আব্দুল মান্নান মহিলা কলেজে শিক্ষকতায় নিয়োজিত আছেন। নিতান্ত কিশোর বয়স থেকে তিনি আবৃত্তির প্রতি আগ্রহী হয়ে ওঠেন। সেই আগ্রহের বশবর্তী হয়ে স্কুলে ও কলেজে অধ্যয়নকালে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আবৃত্তি পরিবেশন করতেন।

মো. শামছুজ্জামান সেলিম একজন আবৃত্তিশিল্পী হিসেবে নিজে যেমন আবৃত্তিচর্চা করছেন, তেমনি নতুন আবৃত্তিকার সৃষ্টিতেও ভূমিকা রেখে চলেছেন। তিনি নিজ এলাকা কটিয়াদীতে আবৃত্তিশিল্পের বিকাশ ও উন্নয়নের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রতিষ্ঠা করেছেন ‘সুকুমার রায় আবৃত্তি পরিষদ’।

তৃণমূল পর্যায়ে আবৃত্তিশিল্পের বিকাশ ও উন্নয়নে এবং নতুন প্রজন্মকে আবৃত্তির প্রতি আগ্রহী করে তোলার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৬-২০১৭ সালে আবৃত্তি ক্যাটাগরিতে আবৃত্তিশিল্পী মো. শামছুজ্জামান সেলিমকে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।

নাসিরউদ্দীন ফারুকী: ১৯৪৬ সালের ৩০ অক্টোবর কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলার খামার দেহুন্দা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন নাসিরউদ্দীন ফারুকী। পৈত্রিক বাড়ি করিমগঞ্জ উপজেলায় হলেও তিনি সুদীর্ঘকাল যাবৎ কিশোরগঞ্জ শহরের পুরানথানা এলাকার নিজম্ব বাড়িতে স্থায়ীভাবে বসবাস করে আসছেন। নাসিরউদ্দীন ফারুকী পেশাগত জীবনে কিশোরগঞ্জ জজ কোর্টের একজন সিনিয়র আইনজীবী। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধেও তিনি সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছিলেন।

কিশোরগঞ্জ শহরে একজন নিবিষ্ট পাঠক ও পড়ুয়া হিসেবে নাসিরউদ্দীন ফারুকীর যথেষ্ঠ সুখ্যাতি রয়েছে। রাজনীতি, সমাজনীতি, দর্শন ও ইতিহাস-ঐতিহ্য বিষয়ক প্রচুর বই পড়ার মধ্য দিয়ে তিনি নিজের জ্ঞানভাণ্ডারকে সমৃদ্ধ করেছেন। লব্ধ জ্ঞান শুধু নিজের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখেননি, নতুন প্রজন্মের মাঝেও সেই জ্ঞান বিতরণ করে নিজেকে একজন নিবেদিত বিদ্যাব্রতীর মর্যাদায় উন্নীত করেছেন। একজন সুবক্তা ও নন্দনতাত্ত্বিক আলোচক হিসেবেও তাঁর পরিচিতি রয়েছে। তাঁর জ্ঞানগর্ভ আলোচনায় কিশোরগঞ্জ শহরের অধিকাংশ সভা-সেমিনার ঋদ্ধ হয়ে থাকে। নাসিরউদ্দীন ফারুকী একজন গঠনমূলক সাহিত্য সমালোচক হিসেবেও নিজের পরিচয়কে বিকশিত করেছেন। স্থানীয় বিভিন্ন পত্রপত্রিকা ও ছোটকাগজে তার গভীর চিন্তানির্ভর অজস্র প্রবন্ধ-নিবন্ধ প্রকাশ পেয়েছে। লোকসংস্কৃতি নিয়েও তার চিন্তাশীল অনেক লেখা রয়েছে।

পূর্ব ময়মনসিংহ তথা কিশোরগঞ্জ জনপদে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা লোকগান, মেয়েলি গীত, লোককাহিনী, রসগল্প, লোক-কবিতা, লোকছড়া, শ্লোক, ধাঁ-ধাঁ, প্রবাদ-প্রবচন ছাড়াও স্থানীয় লোকভাষা ও লোকবিশ্বাস নিয়ে তিনি প্রতিনিয়ত চর্চা করে থাকেন। তার এ সকল চর্চার ধারা নতুন প্রজন্মের অনুসন্ধানী গবেষক ও সংগ্রাহকদের নানাভাবে প্রাণিত ও উৎসাহিত করে থাকে। অ্যাডভোকেট নাসিরউদ্দীন ফারুকী ১৯৯১ থেকে ২০০২ এবং ২০১২ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ জেলা পাবলিক লাইব্রেরির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

শিল্প-সাহিত্য বিশেষ করে লোকসংস্কৃতি গবেষণায় নতুন প্রজন্মের সংগ্রাহক ও গবেষকদের নানাভাবে উৎসাহ ও প্রেরণা যোগানোর ক্ষেত্রে তাঁর অসাধারণ ভূমিকা থাকায় ২০১৬-২০১৭ সালে লোকসংস্কৃতি ক্যাটাগরিতে অ্যাডভোকেট নাসিরউদ্দীন ফারুকীকে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর