কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


২০১৫-১৬ সালের জন্য কিশোরগঞ্জের যে পাঁচ গুণী সংস্কৃতিজন সম্মাননা পেলেন


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, ২:১৬ | সংস্কৃতি 


কিশোরগঞ্জ জেলার বিগত পাঁচ বছরের গুণী সংস্কৃতিজনদের জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাতে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এমপি। জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান শাহজাহান ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ আফজল।

অনুষ্ঠানে বিগত পাঁচ বছরের ২৬ গুণী সংস্কৃতিজনকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। সম্মাননাপ্রাপ্ত ২৬ গুণী সংস্কৃতিজনের মধ্যে ২০১৫-২০১৬ সালের জন্য পাঁচটি ক্যাটাগরিতে পাঁচ গুণী সংস্কৃতিজনকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। তারা হলেন, বিজন কান্তি দাশ, সবিতা বেগম, মৃণাল কান্তি দত্ত, মো. মোতালেব হোসেন এবং অসিত বরণ বসাক তপন।

বিজন কান্তি দাশ: কিশোরগঞ্জে শুদ্ধ সংগীতচর্চায় যে ক’জন শিল্পী বিশেষভাবে সমাদৃত হয়েছেন তাদের মধ্যে অন্যতম হচ্ছেন বিজন কান্তি দাশ। ১৯৪৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি এই গুণী শিল্পী জন্মগ্রহণ করেন। কিশোরগঞ্জ শহরের খরমপট্টি এলাকার সন্তান বিজন কান্তি দাশ রবীন্দ্র সঙ্গীতসহ অন্যান্য ক্ল্যাসিকেল গানে যথেষ্ঠ ব্যুৎপত্তি অর্জন করেন। গত শতকের ষাটের দশকে মহান একুশে ফেব্রুয়ারি উদযাপনের প্রভাতফেরীসহ অন্যান্য সকল অনুষ্ঠানে সঙ্গীত বিষয়ক কর্মসূচিতে তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। মুক্তিযুদ্ধকালে তিনি বালাটে মুক্তিযোদ্ধাদের ট্রেনিং শেষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত ও জাগরণী সঙ্গীত পরিবেশন করে প্রশংসিত হন।

১৯৮৬ সাল থেকে তিনি বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনে নিয়মিত রবীন্দ্রসঙ্গীত পরিবেশন শুরু করেন। কিশোরগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমির সঙ্গীত বিদ্যালয়ের তিনি অধ্যক্ষ ছিলেন। মৈমনসিংহ গীতিকার বিখ্যাত উপাখ্যান ‘চন্দ্রাবতী’ গীতি নৃত্যনাট্যের গ্রন্থনা, সুর সংযোজনা ও পরিচালনা করে তিনি যথেষ্ঠ সুনাম অর্জন করেন।

শুদ্ধ সঙ্গীতচর্চায় বিশেষ অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৫-২০১৬ সালে কণ্ঠসঙ্গীত ক্যাটাগরিতে এই কীর্তিমান সঙ্গীতশিল্পীকে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।

সবিতা বেগম: সংস্কৃতিসম্পন্ন একটি অগ্রসর মননের পারিবারিক বলয়ে জন্ম নেন সবিতা বেগম। ১৯৫২ সালের ৩১ অক্টোবর কিশোরগঞ্জ শহরের পৌনে চারআনি এস্টেটের জমিদার হিসেবে খ্যাত, বিশিষ্ট সংস্কৃতিজন প্রয়াত বিরাজ মোহন রায় ও নাটোরের জমিদার যোগেন্দ্র মোহন রায়ের কন্যা প্রয়াত মায়া রাণী রায়ের সন্তান সবিতা বেগম। নিতান্ত শিশু বয়স থেকে নৃত্যশিল্পের প্রতি তিনি আগ্রহী হয়ে ওঠেন। সেই আগ্রহের প্রাবল্যে ছয়-সাত বছর বয়সে তদানীন্তন কিশোরগঞ্জ আর্টস কাউন্সিলের (বর্তমানে শিল্পকলা একাডেমি) নৃত্যবিভাগের শিশু শ্রেণিতে ভর্তি হন। তিনি সেই ষাটের দশকে তদানীন্তন পাকিস্তান টেলিভিশনে বিভিন্ন নৃত্যের প্রোগ্রামে অংশ নিয়ে প্রশংসিত হয়েছেন। স্বাধীনতার পরও বাংলাদেশ টেলিভিশনে তাঁর বহু নাচের অনুষ্ঠান সম্প্রচারিত হয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধ শুরুর প্রাক্কালে কিশোরগঞ্জ মহিলা কলেজের ছাত্রনেত্রী হিসেবে তিনি পাকিস্তানী পতাকা পুড়িয়ে বাঙালির স্বাধীনতা সংগ্রামে একাত্মতা ঘোষণা করেছিলেন। মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তিনি সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে চলে যান। সেখানে গিয়েও তিনি তাঁর সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বাংলার স্বাধীনতার পক্ষে জোরালো ভূমিকা রাখেন। ১৯৭১ সালে ভারত সরকার প্রযোজিত মুক্তিযুদ্ধের কাহিনী ভিত্তিক ‘এপার বাংলা ওপার বাংলা’ চলচ্চিত্রে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেন। এছাড়া একই সময়ে তিনি ভারতীয় নৃত্য পরিচালক শক্তি নাগের পরিচালনায় রবীন্দ্র সদনসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে একাধিক নৃত্যনাট্যে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করে বাংলাদেশের সুনাম বৃদ্ধি করেন। দিল্লীর আকাশবাণীতে তিনি মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে কণ্ঠযোদ্ধা হিসেবে কাজ করেন।

নৃত্যশিল্পের একজন একনিষ্ঠ সাধক হিসেবে তিনি নৃত্যের উন্নয়ন ও অগ্রায়নে বিশেষ ভূমিকা রাখায় ২০১৫-২০১৬ সালে এই কীর্তিময়ী নৃত্যশিল্পীকে নৃত্যকলা ক্যাটাগরিতে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।

মৃণাল কান্তি দত্ত: স্থানীয় নাট্য জগতে যার উপস্থিতি ও সদম্ভ পদচারণা নাট্য আন্দোলনকে নতুন মাত্রায় উদ্ভাসিত করে তিনি এ জেলার প্রবীণ নাট্যশিল্পী ও নাট্য নির্দেশক মৃণাল কান্তি দত্ত। তাঁর নির্দেশনা ও অভিনয়শৈলী নতুন প্রজন্মের নাট্যশিল্পীদের অভিনয়-নৈপুণ্যে পরিশীলিত করেছে। নাটক মঞ্চায়নে কিশোরগঞ্জে আধুনিক ঘরানার রীতি মূলত তাঁর হাত ধরেই অগ্রসর হয়।

১৯৪৪ সালের ১ জানুয়ারি কটিয়াদী উপজেলার নাগেরগ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন বরেণ্য এই নাট্যশিল্পী। ধনাঢ্য পরিবারের সন্তান হয়েও বিলাসী জীবন পরিহার করে সাদামাটা সাংস্কৃতিক জীবন বেছে নেন মৃণাল দত্ত। কৈশোর-উত্তীর্ণ বয়স থেকেই তিনি কিশোরগঞ্জ শহরে বসবাস করে আসছেন। নাটকের বাইরে সেই ষাটের দশকে সঙ্গীত রচনা, সুরারোপ ও সঙ্গীত পরিবেশনায়ও তিনি খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় আগরতলার বিভিন্ন আশ্রয় শিবিরে ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ কেন্দ্রেও তিনি নিজের লেখা গান পরিবেশন করে স্বাদেশিক চেতনা উজ্জীবিত করেছিলেন। সে সময় তিনি আগরতলায় গঠিত বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক সংস্থার সাথেও নিবিড়ভাবে সম্পৃক্ত হন।

স্বাধীনতা-উত্তর সময়ে মৃণাল কান্তি দত্ত পুরো মাত্রায় নাট্য আন্দোলনে যুক্ত হন। অভিনয় ও নির্দেশনার পাশাপাশি নতুন নাট্যশিল্পী সৃষ্টির জন্য তিনি উদয়াস্ত শ্রম বিনিয়োগ করেছেন। নাট্যশিল্পে বিশেষ অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৫-২০১৬ সালে এই কৃতী নাট্যশিল্পী ও নাট্য নির্দেশককে নাট্যকলা ক্যাটাগরিতে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।

মো. মোতালেব হোসেন: দেশব্যাপী যাত্রাশিল্পের যখন রমরমা অবস্থা, যাত্রার প্রতি সাধারণ মানুষের যখন অপরিমেয় আকর্ষণ সেই সোনালী সময়ে নিপুণ অভিনয়-দক্ষতায় যে ক’জন যাত্রাশিল্পী যাত্রার রঙ্গমঞ্চ কাঁপিয়েছেন তাদের অন্যতম একজন মো. মোতালেব হোসেন। একই সময়ে যাত্রাজগতে মোতালেব নামে একাধিক শিল্পী থাকায় তিনি মোতালেব হোসেন রাজা নামে সমধিক পরিচিত ছিলেন। এই গুণী যাত্রাশিল্পীর জন্ম ১৯৫৩ সালের ১ জানুয়ারি। কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার রশিদাবাদ ইউনিয়নের ভাটগাঁও নামক নিভৃত পল্লীতে তাঁর পৈত্রিক বাড়ি।

শৈশবকাল থেকেই অভিনয়ের প্রতি প্রবল ঝোঁক ছিল তাঁর। নিতান্ত কিশোর বয়সে সপ্তম শ্রেণিতে অধ্যয়নকালে ‘মহুয়া’ নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তাঁর মঞ্চাভিনয় শুরু হয়। তৎকালীন রয়েল পাইলট অপেরায় যোগ দেওয়ার মধ্য দিয়ে মোতালেব হোসেন রাজার পেশাদারি অভিনয়-জীবনের শুরু। পারিবারিক বিধি-নিষেধ উপেক্ষা করে তিনি ক্রমে ক্রমে হয়ে ওঠেন যাত্রাজগতের এক জনপ্রিয় ও খল অভিনেতা। এরপর একে একে দ্যা নবরঞ্জন অপেরা, রূপালী অপেরা, পূর্বাচল অপেরা, সবুজ অপেরা ও আবাহনি অপেরাসহ বিভিন্ন অপেরায় তিনি পেশাদারি শিল্পী হিসেবে কাজ করেন। যাত্রামঞ্চে খল চরিত্রে তাঁর অভিনয়-শৈলী ও গগনবিদারি অট্টহাসি সকল দর্শককে যুগপৎ বিমোহিত ও মুগ্ধ করেছে। অভিনয়-গুণেই তিনি এক সময় যাত্রাজগতে অভিনয়ের রাজা হিসেবে দর্শক-হৃদয়ে স্থান করে নেন। তিনি অনেক যাত্রাপালায় নির্দেশক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

যাত্রাভিনয় ও যাত্রা নির্দেশনায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৫-২০১৬ সালের জন্য মোতালেব হোসেন রাজাকে যাত্রাশিল্প ক্যাটাগরিতে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।

অসিত বরণ বসাক তপন: কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের একজন সমঝদার তবলা-শিল্পী হিসেবে যিনি ইতোমধ্যেই নিজেকে বরণীয় মর্যাদায় তুলে ধরেছেন, তার নাম অসিত বরণ বসাক তপন; স্থানীয় ভিত্তিতে তিনি তপন বসাক নামেই সমধিক পরিচিত। ১৯৬১ সালের ১৩ মার্চ কিশোরগঞ্জ শহরে তাঁর জন্ম। বর্তমান আবাস- ৯৪৪, আখড়াবাজার (ফায়ার সার্ভিসের পেছনে)।

বিশিষ্ট বাউলশিল্পী ওস্তাদ অখিল ঠাকুরের কাছে তিনি তবলা বাদনে প্রথম প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। তবলাশিল্পী অসিত বরণ বসাক তপন ১৯৮৪ সাল থেকে ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ চার বছর কিশোরগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমির তালযন্ত্র প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। দীর্ঘ বিরতির পর ২০০৪ সাল থেকে এখন পর্যন্ত একই প্রতিষ্ঠানে তালযন্ত্র প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। জেলা শহরের অধিকাংশ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে তিনি নিয়মিত তবলা বাজিয়ে সঙ্গীতে সঙ্গত্ করে থাকেন।

তবলা বাদনে বিশেষ অবদান রাখায় ২০১৫-২০১৬ সালের জন্য তবলাশিল্পী অসিত বরণ বসাক তপনকে যন্ত্রশিল্পী ক্যাটাগরিতে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর