কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শোলাকিয়া: ঈদগাহ নাকি মডেল মসজিদ


 যুবায়ের আহমাদ | ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, ৮:০৮ | মত-দ্বিমত 


যুবায়ের আহমাদ: আল্লাহর রহমতে দেশের ৩৫টি জেলা সফর করেছি। বিভিন্ন এলাকায় আমার বাড়ি কোথায় লোকজন তা জানতে চাইলে যখনই বলেছি কিশোরগঞ্জ, লোকেরা বলেছে শোলাকিয়ার কিশোরগঞ্জ? যেখানে উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ ঈদ জামাত হয়? আপনার বাড়ি শোলাকিয়া ঈদগাহ থেকে কতদূর........? হ্যাঁ, শোলাকিয়া ঈদগাহের কিশোরগঞ্জ। যেখানে উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত হয় সেই শোলাকিয়া। শোলাকিয়া কিশোরগঞ্জের গর্ব। দেশ-বিদেশে কিশোরগঞ্জের পরিচিতির অন্যতম বড় কারণ শোলাকিয়া। অনেকের ধারণা সর্ববৃহৎ জামাত হিসেবে ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের স্বীকৃতিও পাবে শোলাকিয়ার জামাত।

শোলাকিয়ার পরিচিতি ঈদগাহ হিসেবে। আর ঈদগাহ হলো ওই খোলা ময়দান, যেখানে ঈদের জামাত আদায় করা হয়। খোলা মাঠে ঈদের জামাত পড়া রাসুলুল্লাহর (সা.) বড় একটি সুন্নত। মসজিদে নববীতে নামাজের বহুগুণ সওয়াব থাকলেও নবীজি (সা.) ঈদের জামাত পড়েছেন খোলা মাঠে।

ঐতিহ্য ও আত্মিক প্রশান্তির স্থান শোলাকিয়া নিয়ে সম্প্রতি কিশোরগঞ্জের জনসাধারণের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। প্রায় সব মহলের মানুষের মনেই চাপা ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। আর তা হয়েছে শোলািয়ায় মডেল মসজিদ স্থাপন নিয়ে। বর্তমান সরকারের উল্লেখযোগ্য সাফল্যগুলোর একটি হলো ৫৬০ মডেল মসজিদ স্থাপনের উদ্যোগ।

স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যেমন ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, ইজতেমা ময়দান ও কাকরাইল মসজিদের জন্য জায়গা বরাদ্দ করেছিলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ইসলামিক স্টাডিজ ও আরবি' বিভাগকে আলাদা করে 'ইসলামিক স্টাডিজ' ও 'আরবি' নামে আলাদা দুটি বিভাগ করে ইসলামী শিক্ষার সুযোগ বাড়াতে অবদান রেখেছিলেন তেমনি তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতি উপজেলায় একটি করে মডেল মসজিদ ও ইসলামী কমপ্লেক্স স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছেন। দেশবাসী খুশি হয়েছে।

কিশোরগঞ্জ জেলার ১৩টি উপজেলা ছাড়াও জেলা শহরে কেন্দ্রীয় মডেল মসজিদ হচ্ছে, এটা আনন্দের খবর। জেলার কেন্দ্রীয় মসজিদটি স্থাপিত হবে শোলাকিয়াকেন্দ্রিক, এটিও ভালোই খবর। সাইনবোর্ড টানানো হয়েছে, শোলাকিয়াতেই মসজিদ হবে।

কিশোরগঞ্জবাসীর ধারণা ছিল মাঠের আয়তন অক্ষুণ্ণ রেখে নির্মাণ হবে সে কমপ্লেক্স। পশ্চিমের গরুর হাঁটের জায়গায় মসজিদ হবে। কেউ কেউ মনে করেছেন বর্তমানে মাঠের পশ্চিম সীমানায় ঈদগাহের মিম্বর সম্বলিত যে মসজিদ আছে, এর জায়গায়ই তো হবে। তাতে সমস্যা কী! কিন্তু মসজিদের কাজ শুরু হওয়ার পর যখন দেখা গেল যে, মূল মাঠের প্রায় ৪৩ শতাংশ জায়গা দখল করে ফেলবে কমপ্লেক্সটি, তখনই কিশোরগঞ্জবাসী বিকল্প স্থানে মডেল মসজিদ স্থাপনের দাবি করলেন।

ঈদগাহের ৪৩ শতাংশ জায়গা যখন মসজিদ হয়ে যাবে তখন এর ভেতরে নামাজ পড়া যাবে ঠিক, কিন্তু তখন আর ওই অংশটুকু ঈদগাহ থাকবে না। হয়ে যাবে মসজিদ। কারণ, ঈদগাহ তো খোলা মাঠ। ঈদগাহ হিসেবে এর আয়তন কমে যাবে। মাঠ ছোট হয়ে যাবে। দুইশ’ বছরের ঐতিহ্যবাহী জামাতের স্থান আরো সংকুচিত হয়ে পড়বে। মর্যাদা হারাবে শোলাকিয়া। শত শত বছরের ঐতিহ্য হারাবে কিশোরগঞ্জবাসী। তাই, কিশোরগঞ্জবাসীর দৃঢ় দাবি, যেন মসজিদ কমপ্লেক্সটি মাঠের পশ্চিম পাশের গরুর হাঁটে স্থানান্তর করা হয়। এতে ঈদগাহের আয়তনও অক্ষুণ্ণ থাকে, মডেল মসজিদও হয়।

কিশোরগঞ্জবাসী কিন্তু মডেল মসজিদ ও ইসলামী কমপ্লেক্সের বিরোধিতা করছে না। বরং তারা মডেল মসজিদ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগকে স্বাগত জানাচ্ছে। তারা শোলাকিয়া ও মডেল মসজিদ দুটোই চায়। শত শত বছরের ঐতিহ্যের শোলাকিয়ার আয়তন রক্ষায় কেবল মডেল মসজিদের স্থানটা সামান্য পরিবর্তন চায়।

গরুর হাঁট সরালে কিছুই সমস্যা হবে না। ইচ্ছাগঞ্জ গরুর হাঁট দিয়ে কিশোরগঞ্জ পরিচিত হয় না। বরং এখান থেকে গরুর হাঁট উপযুক্ত স্থানে সরিয়ে নিয়ে সেখানে মসজিদ ও কমপ্লেক্স নির্মাণ করলে একদিকে যেমন মাঠের ঐতিহ্য রক্ষা হবে আবার মাঠের আয়তনও বাড়বে। অন্যদিকে মাঠের পবিত্রতাও রক্ষা পাবে। কারণ যখন ইচ্ছাগঞ্জ বাজারে গরুর হাঁট বসে, তখন ক্রেতা-বিক্রেতাদের কেউ কেউ যাচিত কিংবা অযাচিতভাবে মাঠের ভেতরে গরু নিয়ে বাঁধেন বিক্রির জন্য। ফলে গরুর বিষ্টায় মাঠের পবিত্রতা নষ্ট হয়। আরেকটি বিষয় হলো শহরের গুরুত্বপূর্ণ আবাসিক এলাকায় গরুর হাঁট হওয়ায় তা শহরের পরিবেশ নষ্ট করে বলে এখান থেকে গরুর হাঁট অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে দীর্ঘদিন ধরে শহরবাসী দাবি করে আসছেন।

তাছাড়া শোলাকিয়া মাঠের ভেতরে মসজিদ স্থাপনের বিষয়টি তো ইসলাম অনুমোদন করতে হবে। এখানে মসজিদ ও কমপ্লেক্স স্থাপন জায়েজ হবে কিনা তা কি জানার প্রয়োজন নেই? মসজিদ প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রেও কি ইসলামের আইনকে উপেক্ষা করা হবে? কোনো জায়গা ঈদগাহের জন্য ওয়াকফ করা হলে তাতে মসজিদ বানানো ইসলাম অনুমোদন করে না। যে জায়গা ঈদগাহের জন্য ওয়াকফ করা হয়েছে তা ঈদগাহ হিসেবেই রাখতে হবে। (রদ্দুল মুহতার : ৪/৪৩৩)।

শোলাকিয়া ঈদগাহ সবার। এর প্রতি বুকভরা দরদ সব মহলের মানুষেরই রয়েছে। মূল মাঠের ভেতরে মডেল মসজিদ স্থাপন না করে এর স্থান সামান্য পরিবর্তনের যে দাবি যারা করছেন তাদের প্রতিপক্ষ না ভেবে তাদের দাবি আন্তরিকতার সঙ্গে কর্তৃপক্ষ ভেবে দেখবেন বলে আশা করি।

ঈদগাহের জন্য ওয়াকফকৃত স্থানে মসজিদ স্থাপন জায়েজ না হলে এখানে মসজিদ স্থাপন করলে পরবর্তীতে হয়তো এটি আফসোসের বিষয় হয়ে দাঁড়াবে। এখনই বিষয়টি আন্তরিকতার সঙ্গে বিবেচনায় নেওয়া উচিৎ। মাননীয় সাংসদ, কিশোরগঞ্জের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কর্মকর্তারা গুরুত্বের সঙ্গে চেষ্টা করলে ইতিবাচক সমাধান হবে আশা করি। তারা স্মরণীয়ও হয়ে থাকবেন। আমরা চাই, শোলাকিয়ার আয়তনও অক্ষুণ্ণ থাকুক, মডেল মসজিদও হোক!

# যুবায়ের আহমাদ: কলামিস্ট।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর