কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


হাসপাতালের সিঁড়িতে ফেলে যাওয়া শিশুটির ঠিকানা এখন ছোটমণি নিবাস


 স্টাফ রিপোর্টার | ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার, ২:১৯ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের সিঁড়িতে ফেলে যাওয়া নবজাতক শিশুটির এখন নতুন ঠিকানা আজিমপুরের ‘ছোটমণি নিবাস’। মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) বিকালে আদালত থেকে শিশুটিকে ঢাকার আজিমপুরে ‘ছোটমণি নিবাস’ এ পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়। আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী শিশুটিকে ‘ছোটমণি নিবাস’ এ পাঠানোর জন্য বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) সকালে হাসপাতাল থেকে শিশুটিকে জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের তত্ত্বাবধানে নেয়া হয়। পরে বেলা ১১টার দিকে ‘ছোটমণি নিবাস’ এর উদ্দেশ্যে শিশুটিকে নিয়ে রওনা দেয়া হয়। জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক কামরুজ্জামান খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে গত ২৫শে আগস্ট বিকাল ৪টার দিকে হাসপাতালের পোস্ট অপারেটিভ কক্ষের সামনের সিঁড়িতে কাপড়ে মোড়ানো অবস্থায় আনুমানিক ১৫ দিন বয়সী নবজাতক শিশুটিকে দেখতে পেয়ে আনোয়ারা নামে এক নারী তাকে কোলে তুলে নেন। পরে সিঁড়িতে শিশুটিকে পাওয়ার বিষয়টি কর্তব্যরত নার্সকে জানানোর পর তারা বিষয়টি জানতে পারেন। শিশুটি অসুস্থ থাকায় তাকে হাসপাতালের নবজাতক ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।

এরপর থেকে গত ১১ দিন ধরে হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স ও আয়াদের সার্বক্ষণিক তত্ত্বাবধান আর পরম মমতায় বেড়ে ওঠে শিশুটি। হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সুলতানা রাজিয়া সার্বক্ষণিক খোঁজখবর রাখেন শিশুটির। মায়ের কোল হারানো শিশুটি স্নেহ কুড়ায় সবার। মায়ের দুধের তৃষ্ণাও মেটান হাসপাতালে সেবা নিতে আসা প্রসূতি মায়েরা। অবশেষে পৃথিবীতে আসা নতুন এই অতিথি পেল নতুন ঠিকানা। আজিমপুরের ‘ছোটমণি নিবাস’ এ মানবিক হাতের ছোঁয়ায় এখন বেড়ে ওঠবে ছোট্ট এ শিশুটি।

জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক কামরুজ্জামান খান জানান, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের চিঠির মাধ্যমে শিশুটির বিষয়ে অবগত হওয়ার পর শিশুটির ব্যাপারে আদালতের নির্দেশনা চেয়ে তারা আবেদন করেছিলেন। মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) বিকালে আদালত থেকে শিশুটিকে আজিমপুরের ‘ছোটমণি নিবাস’ এ পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়। সে অনুযায়ী বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) শিশুটিকে তারা সেখানে পাঠানোর ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর