কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নিজ জেলা কিশোরগঞ্জে আসছেন প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের ডিজি মো. হান্নান মিয়া


 স্টাফ রিপোর্টার | ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার, ১:২০ | বিশেষ সংবাদ 


প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হিসেবে যোগদানের পর প্রথম বারের মতো নিজ জেলা কিশোরগঞ্জে আসছেন অতিরিক্ত সচিব মো. হান্নান মিয়া। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কিশোরগঞ্জের এনডিসি মীর মো. আল কামাহ তমাল। তিনি জানান, দুইদিনের সফরে আগামী শুক্রবার (৬ সেপ্টেম্বর) সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অতিরিক্ত সচিব মো. হান্নান মিয়া কিশোরগঞ্জে আসবেন। তিনি কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জে অবস্থিত মহাবীর ঈশা খানের স্মৃতি বিজড়িত জঙ্গলবাড়ী, পাকুন্দিয়া উপজেলার এগারসিন্দুরের শাহ মাহমুদের মসজিদ ও বালাখানা, সাদী মসজিদ এবং সদরের কাচারিপাড়ায় অবস্থিত মধ্য যুগের কবি চন্দ্রাবতীর মন্দির পরিদর্শন করবেন।

চলতি বছরের ২৯ মে প্রতœতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হিসেবে যোগদান করার পর নিজ জেলায় এটিই তাঁর প্রথম সফর। তাঁর সফর সঙ্গী হিসেবে প্রতœতাত্ত্বিক প্রকৌশলী ও স্থপতিসহ অন্যান্যরা রয়েছেন।

মো. হান্নান মিয়া কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব থানার মৌটুপী (কর্তাবাড়ী) গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ভৈরব রেলওয়ে হাই স্কুল হতে এসএসসি, ঢাকা কলেজ হতে এইচএসসি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ হতে বিএসএস ( অনার্স) ও এমএসএস ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ১৯৯১ সনে বিসিএস সচিবালয় ক্যাডারের (নবম ব্যাচ) কর্মকর্তা হিসেবে সহকারী সচিব পদে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে যোগদান করেন।

১৯৯২ সনে সচিবালয় ও প্রশাসন ক্যাডার একত্রিভূত হওয়ার প্রেেিত তিনি মাঠ প্রশাসনে সহকারী কমিশনার হিসেবে গাইবান্ধা জেলায় দায়িত্ব পালন করেন । অতঃপর তিনি প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট ও সিনিয়র সহকারী কমিশনার হিসেবে বগুড়া কালেক্টরেটে, আরডিসি হিসেবে শেরপুর কালেক্টরেটে, উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে সুনামগঞ্জের শাল্লা ও সিলেটের জকিগঞ্জে এবং অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে নারায়ণগঞ্জ জেলায় দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি বিসিএস (প্রশাসন) একাডেমিতে উপ-পরিচালকের দায়িত্ব পালনকালে সরকারের স্কলারশিপে যুক্তরাজ্যের ওয়েস্ট লন্ডন ইউনিভার্সিটি হতে  ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ম্যানেজমেন্ট বিষয়ে ডিপ্লোমা ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি জেনারেল ম্যানেজার (যুগ্ম সচিব) হিসেবে বিআরটিসিতে দায়িত্ব পালন শেষে বিয়ামের পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

তাঁর প্রণীত আইন গ্রন্থ “ফৌজদারি মামলা পরিচালনা ও পদ্ধতি”, “এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের কার্যপদ্ধতি”, “ভূমি আইন প্রয়োগ ও পদ্ধতি” এবং মুক্তিযুদ্ধের সত্য কাহিনী অবলম্বনে রচিত উপন্যাস “মুক্তির নৈবেদ্য” পাঠক মহলে সমাদৃত হয়েছে। পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন প্রশিণ একাডেমিতে ভূমি আইন, ফৌজদারি কার্যপদ্ধতি এবং অন্যান্য আইন বিষয়ে প্রশিক হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর