কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সরকারি স্কুলে চাকরি করেও তিনি ব্যস্ত আইন পেশায়


 স্টাফ রিপোর্টার | ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:৫৪ | বিশেষ সংবাদ 


অ্যাডভোকেট সাঈফ আব্বাসের বাড়ি বাজিতপুর উপজেলার দিলালপুর ইউনিয়নের বাহেরনগর গ্রামে। বছর তিনেক আগে তিনি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন মাইজচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এরপর গত এপ্রিল মাসে বদলি হয়ে আসেন আয়নার গোপ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এখানে আসার পর তিনি মাসে দু-একদিন স্কুলে যান। বাকিটা সময় ব্যয় করেন আইন পেশায়। মামলা পরিচালনায় ব্যস্ত থাকেন কিশোরগঞ্জ জজ কোর্টে৷

সরেজমিনে বাজিতপুর উপজেলার মাইজচর ইউনিয়নের আয়নারগোপ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে জানা যায়, বিদ্যালয়টিতে বর্তমানে কাগজপত্রে চারজন শিক্ষক কর্মরত রয়েছেন। কিন্তু এই চার শিক্ষকের মধ্যে মো. সাঈফ অনুপস্থিত রয়েছেন দীর্ঘদিন ধরে। অথচ শিক্ষক হিসেবে প্রতি মাসের বেতন তুলছেন স্বাভাবিক শিক্ষকদের মতোই। ঘটনার সত্যতা জানতে যাওয়া হয় কিশোরগঞ্জ জজ কোর্টে, সেখানে গিয়ে অ্যাডভোকেট সাঈফ আব্বাসকে পাওয়া যায় উকিলের পোশাক পরিহিত অবস্থায় মামলা পরিচালনা করছেন। তার পরিচিতি নং ৫৩২।

এসব বিষয় নিয়ে কিশোরগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মিয়া মোহাম্মদ ফেরদৌসের সাথে কথা বললে তিনি জানান, কেউ যদি সরকারি চাকরিজীবী হয়ে অন্য কোন পেশায় জড়িত থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যাবস্থা নেয়া হবে। সাঈফ যদি আসলেই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক হয়ে থাকেন তাহলে তার উকালতির সনদ স্থগিত করা হবে বলেও তিনি জানান।

সরকারি শিক্ষক কেন আইনজীবী? এমন প্রশ্নের জবাবে বাজিতপুর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আফজাল হোসেন জানান, সরকারি কোন চাকরিজীবী একসাথে দুটি পেশায় যুক্ত থাকতে পারেন না। সাঈফের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সাঈফের বিষয়ে আমি শুনেছি তিনি একজন আইনজীবী এবং স্কুলে অনিয়মিত, তাই আমরা আমাদের পক্ষ থেকে সব ধরনের বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের ব্যবস্থা ইতোমধ্যেই নিয়েছি।

অভিযুক্ত সাঈফের কাছে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, দেখেন সরকার আমাকে চাকরী দিয়েছে। আমি চাই সরকার আমার চাকরিটা নিয়ে নিক, আমি নিজে থেকে চাকরীটা ছাড়তে চাচ্ছি না। এছাড়াও সাঈফের বিরুদ্ধে সুস্পষ্টভাবে অভিযোগ রয়েছে তিনি স্কুলে ব্যাবহার করেছেন মো. সাঈফ কিন্তু উকালতি পেশায় তার নাম দিয়েছেন এডভোকেট মোহাম্মদ সাঈফ আব্বাস, তিনি কিভাবে দুই জায়গায় দুটি নাম ব্যবহার করলেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেননি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর