কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


রূপালী পর্দা রাঙাতে চান কিশোরগঞ্জের ছেলে আবুল হায়দার কাঞ্চন


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার, ৯:১০ | বিনোদন 


আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯: পুরো নাম আবুল হায়দার কাঞ্চন। জন্ম ১৯৯৩ সালের ১৩ ডিসেম্বর। কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার মহিনন্দ ইউনিয়নের কাশোরারচর গ্রামে জন্ম নেয়া এই তরুণ এখন বাংলাদেশের চলচ্চিত্র জগতের এক সম্ভাবনাময় তারকা। হালকা-পাতলা গড়নের কাঞ্চন ছোটবেলা থেকেই মানুষকে হাসাতে ভালবাসতেন। কে জানতো ছোটবেলার সেই চলন-বলনই তার ভবিষ্যত জীবনের পথনির্দেশক হয়ে দাঁড়াবে! মেধা, শ্রম ও প্রচেষ্টার মাধ্যমে হাসির ফোয়ারা ছড়িয়ে দিবেন সংস্কৃতির আকাশে। নন্দিত হবেন টেলিভিশনের পর্দায়, নেটদুনিয়া আর রূপালী পর্দার রঙিন ভুবনে। একজন কমেডিয়ান হিসেবে পরিচিতি লাভ করলেও বৃত্ত ভেঙ্গে একজন পূর্ণাঙ্গ অভিনেতা হয়ে ওঠতে চান কাঞ্চন। তার মেধা আর প্রতিভার স্ফূরণে রাঙাতে চান মানুষের মনোজগত।

আবুল হায়দার কাঞ্চনের বাবা অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা আবুল কাশেম ও মা সফুরা বেগম। কাশেম-সফুরা দম্পতির চার সন্তান দুই ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে সবার ছোট কাঞ্চন। মহিনন্দ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার হাতেখড়ি কাঞ্চনের। পড়েছেন শহরের ঐতিহ্যবাহী আজিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ে। সেখান থেকেই ২০০৯ সালে এসএসসি পাশ করেন কাঞ্চন। এখানে পড়ার সময়েই কাঞ্চন নিজেকে প্রস্তুত করেন ভবিষ্যতের জন্য। ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হওয়ার পর পরই জড়িয়ে পড়েন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে। ছিলেন বিদ্যালয়ের স্কাউট দলের সদস্যও। স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় ‘যেমন খুশী তেমন সাজো’তে অংশ নিয়ে বরাবরই প্রশংসিত হতেন কাঞ্চন। অভিনয়ের প্রতি আগ্রহ থেকে সপ্তম শ্রেণিতে পড়ার সময়েই যোগ দেন স্থানীয় একটি থিয়েটার দলে। মিথিলা অডিও ভিশনের ‘উল্লাস’ নামের সাংস্কৃতিক ম্যাগাজিনের মাধ্যমে প্রথম মঞ্চে ওঠেন কাঞ্চন। পরবর্তিতে চন্দ্রাবতী থিয়েটারসহ বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে যুক্ত হন। এসএসসি পাশের আগেই পুরোদস্তুর অভিনেতা হিসেবে নিজেকে তৈরি করে নেন।

এর মাঝেই বাঁক বদলের মতো কাঞ্চনের সামনে আসে নিজেকে আরো বড় মঞ্চে উপস্থাপনের সুযোগ। উল্লাস এর মাজহারুল ইসলাম আশিক একদিন জানালেন, এটিএন বাংলায় কমেডি আওয়ার নামে একটি শো শুরু হচ্ছে। শীঘ্রই সেটির অডিশন শুরু হবে। সে অনুযায়ী কাঞ্চন ঢাকায় গিয়ে অডিশন দেন এবং নির্বাচিত হন। ২০১১ সালে এটিএন বাংলার কমেডি আওয়ার এর মাধ্যমে টেলিভিশনের পর্দায় কাঞ্চন নিজের প্রতিভা মেলে ধরার পর তাকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। এর মাঝেই ২০১৪ সালে যুক্ত হন জলছবি সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে। সেখানে নিজেকে শানিত করে নিয়ে পরবর্তিতে ২০১৭ সালে এনটিভির কমেডি রিয়েলিটি শো হাসো সিজন ৪-এ প্রতিযোগী হিসেবে নাম লেখান কাঞ্চন। কমেডি রিয়েলিটি শো হাসো সিজন ৪-এর সেমিফাইনালিস্ট কাঞ্চন ফাইনালের খুব কাছ থেকে ছিটকে পড়লেও তার পারফর্মেন্স নজর কাড়ে বোদ্ধাদের। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ কমেডি ক্লাব (বনোপায়রা) এর সাথে যুক্ত হন তিনি।

হাসো সিজন ৪ চলার সময়েই নিজেকে প্রমাণের আরো বড় সুযোগ আসে কাঞ্চনের সামনে। অফার পান বিগ বাজেটের চলচ্চিত্র ‘অবতার’ এ কাজ করার। ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে ‘অবতার’ এর শুটিং শুরু হয়। অবতার এর শুটিং চলার এক পর্যায়ে ডাক আসে আরেকটি চলচ্চিত্রে কাজ করার। ‘মায়াবতী’ নামে এই চলচ্চিত্রটিতেও অভিনয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হন তিনি। এখানেই থেমে থাকেননি কাঞ্চন। ‘অবতার’ ও ‘মায়াবতী’ এই দুইটি সিনেমায় কাজ করার ফাঁকেই অভিনয় করেন ইমপ্রেস টেলিফিল্ম এর ছবি ‘আলোয় ভুবন ভরা’ এবং খণ্ড নাটক ‘ভূজঙ্গী’ তে। ‘আলোয় ভুবন ভরা’ চলচ্চিত্রে, খণ্ড নাটক ‘ভূজঙ্গী’ তে কাঞ্চনের অভিনয় বেশ প্রশংসিত হয়। এর বাইরে নিজের আলোকিত উপস্থিত দিয়ে মাতিয়ে চলেছেন মঞ্চ।

আবুল হায়দার কাঞ্চন জানান, তার বাবা ছিলেন সংস্কৃতি অনুরাগী, ভালো বেহালা বাজাতেন। ফলে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে পরিবার থেকেও সমর্থন পেতেন। এক্ষেত্রে ভাই আবুল বাশার রতন ছিলেন আরো উদার। ছোটবেলা থেকেই সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে তার অকৃপণ সহযোগিতা পেয়েছেন কাঞ্চন। কাঞ্চন জানালেন, ছোটবেলা থেকেই মানুষকে হাসাতে পছন্দ করতেন। তাই কমেডির প্রতি তাঁর ঝোক সৃষ্টি হয়। বর্তমানে একজন কমেডিয়ান হিসেবে কাঞ্চনের নাম-ডাক থাকলেও তিনি নিজেকে একজন পূর্ণাঙ্গ অভিনেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চান। সে অনুযায়ী নিজেকে তৈরি করছেন।

কাঞ্চন আরো জানান, ‘অবতার’ এ কাজ করার মধ্যদিয়ে চলচ্চিত্র জগতে তার পথচলা শুরু হয়। আর ক-দিন পরেই আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর সেটি মুক্তি পাচ্ছে। সমসাময়িক সামাজিক সমস্যাকে উপজীব্য করে ‘অবতার’ নির্মিত হয়েছে। এ ছবিতে একজন কমেডিয়ানের চরিত্রে দেখা যাবে কাঞ্চনকে। বেশ কয়েকটি দৃশ্যে কাঞ্চন তার কুশলী অভিনয়ের দ্যুতি ছড়িয়েছেন। অবতার এ তার চরিত্র ছোট হলেও দর্শক তার অভিনয় মনে রাখবে বলে বিশ্বাস কাঞ্চনের। একই দিন মুক্তি পাচ্ছে কাঞ্চনের আরেক চলচ্চিত্র ‘মায়াবতী’। সেখানেও কমেডিয়ানের চরিত্রে অভিনয় করেছেন কাঞ্চন। এই সিনেমায় কাঞ্চনকে একেবারেই অন্যরকম করে নিজেকে উপস্থাপন করেছেন।

এক সঙ্গে দু’টি সিনেমা মুক্তির ব্যাপারে আবুল হায়দার কাঞ্চন বলেন, এটি নিঃসন্দেহে এক রোমাঞ্চকর ব্যাপার। দু’টি সিনেমার গল্প এবং পরিবেশনা একেবারেই আলাদা। দু’টিতে দেশের নামকরা অভিনেতা-অভিনেত্রীরা কাজ করেছেন। তাদের সাথে কাজ করতে পারাটা নিঃসন্দেহে সৌভাগ্যের বিষয় এবং সুখকর অভিজ্ঞতা। এ প্রসঙ্গে কাঞ্চন বলেন, অবতার সিনেমায় কাজ করতে গিয়ে আমাকে স্লিম হওয়ার জন্য ৫-৬ কেজি ওজন কমাতে হয়েছে। শুটিংয়ের আগে অন্তত তিন মাস ধরে হাতের নখ, চুল-দাড়ি না কেটে বড় করতে হয়েছে। চরিত্রের প্রয়োজনে এসব করতে গিয়ে শারীরিক পরিশ্রম ও ধকল গেলেও সেসব আনন্দচিত্তে করে গেছি।

কাঞ্চন আরো বলেন, দু’টি সিনেমার গল্পই দর্শকদের ভালো লাগবে। আশা করছি, দর্শক সিনেমা হলে গিয়ে হতাশ হবেন না। টিকিটের পয়সা কোনভাবেই তাদের বিফলে যাবে না।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর