কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে অসহনীয় লোডশেডিং, সীমাহীন দুর্ভোগ


 স্টাফ রিপোর্টার, ভৈরব | ২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার, ১:০২ | ভৈরব 


সোহেল সাশ্রু, কিশোরগঞ্জ নিউজ, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯: দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে কোনো ঘাটতি নেই, তবুও চলছে ভৈরবের সর্বত্রই অসহনীয় মাত্রায় লোডশেডিং। সময় অসময়ে এমন লোডশেডিংয়ের কারণে নাজেহাল ভৈরবের অর্ধলক্ষাধিক বিদ্যুৎ গ্রাহক। স্থানীয় বিদ্যুৎ অফিস বলছে মাঝে মধ্যে যান্ত্রিক ও কারিগরী ত্রুটির কারণেই এই লোডশেডিং হচ্ছে। আর সাধারণ গ্রাহকদের দাবি দ্রুত সময়ের মধ্যে এই সমস্যা সমাধানের মাধ্যমে লোডশেডিং থেকে মুক্তি পেতে চান তারা।

জানা গেছে, দেশের বন্দরনগরী ভৈরব। ফলে অন্য যেকোনো উপজেলার তুলনায় বিদ্যুতের চাহিদা অনেক বেশি। এছাড়া সড়ক, রেল ও নৌ-পথের যোগাযোগ সমৃৃদ্ধ হওয়ায় শহরে এখানে অসংখ্য ছোট-বড় কল-কারখানা গড়ে ওঠেছে।

একইভাবে পৌর শহরের চন্ডিবের এলাকায় ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নারী, শিশু এবং পুরুষ ওয়ার্ডে বেডের তুলনায় নিত্যদিন ভর্তি রোগী ও তাদের স্বজনদের আনাগোনা অনেক বেশি। তাই সরকারি হাসপাতালটিতে ভাদ্র মাসের গরমও যেনো একটু বেশি। এছাড়াও গেল এক মাস ধরে বিদ্যুতের লোডশেডিং যেনো অসহ্য গরমের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছে আরও কয়েক গুন। ফলে দিনের বেলায় যেমন তেমন রাতের বেলায় লোডশেডিং হলে অসুস্থ্য নারী ও শিশুসহ শ্বাসকষ্ট বৃদ্ধ রোগীদের যেনো দম বন্ধ হয়ে আসে।

হাসপাতালের পুরুষ ওয়ার্ডে ১২ নম্বর বেডে চিকিৎসা সেবা নেয়া রোগী আসাদ মিয়া বলেন, গত ২৭ আগস্ট মঙ্গলবার রাত আড়াইটার দিকে বিদ্যুৎ চলে যায়। সকাল সাড়ে ৮টায় দেখা মেলে। র্দীঘ ৬ ঘন্টা বিদ্যুৎহীন হাসপাতালটিতে অসহ্য গরমে রোগীরা ছটফট করছিলো। পাশের বেডে চিকিৎসা সেবা নেয়া কামরুল ইসলাম নামে আরেক জন রোগী বলেন, তিনি ৪ দিন যাবত হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। তার মতে হাসপাতালের বৈদ্যুতিক পাখাগুলো বেশ পুরনো। তাই বিদ্যুৎ থাকলে কোনো রকম বাতাস পেলেও লোডশেডিং হলে হাত পাখায় একমাত্র ভরসা। হাত পাখায় বাতাস করতে করতে হাত ব্যাথা হলেও দেখা মেলে না বিদ্যুতের। ফলে লোডশেডিংয়ের কারণে নাজেহাল তারা। মহিলা ওয়ার্ডে সুফিয়া বেগম নামে অপর রোগী বলেন, হাসপাতালে জেনারেটর থাকলে হয়তো কিছুটা হলেও দুর্ভোগ লাঘব হতো।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা. বুলবুল আহমেদ বলেন, ঘন্টার পর ঘন্টা লোডশেডিংয়ের কারণে হাসপাতালে জরুরী অপারেশনসহ স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। ফলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

অন্যদিকে স্থানীয় বিদ্যুৎ অফিসের নতুনভাবে করা চন্ডিবের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ফিডারের অর্ন্তভূক্ত এলাকা চন্ডিবের, কমলপুর ও গাছতলা ঘাটের গ্রাহকদের মাঝে ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের কারণে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। তাদের দাবি অসহ্য গরমের শেষ সময় বছরের ভাদ্র মাসের অহসনীয় গরম। কিন্তু এই সময়ে কোনো ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ ঝড়-বৃষ্টি ছাড়াই চলছে অসহনীয় মাত্রায় লোডশেডিং। একই দাবি উপজেলার শিমুলকান্দি, আগানগর ও শ্রীনগর ইউনিয়নের হাজার হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহকদের। দ্রুত সময়ের মধ্যে এই সমস্যা সমাধানের মাধ্যমে লোডশেডিং থেকে মুক্তি পেতে চান তারা। তাই নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন বিদ্যুৎ গ্রাহকরা।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মুঠোফোনে ভৈরব বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী ইঞ্জনিয়ার মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ৯টি ভাগে অর্থাৎ ৯টি ফিডারের মাধ্যমে ভৈরব বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে। একেক সময় একেক ফিডারে কারিগরী ও যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দিলে এই লোডশেডিং সৃষ্টি হয়। পরে এসব সমস্যা সমাধান করে আবার বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে। এই লোডশেডিং স্বাভাবিক বলেই মনে করেন তিনি। আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দেশের রাজধানী ঢাকাতেও গ্রাহকরা নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পায় না বলেও যুক্তি দেখান তিনি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর