কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করিমগঞ্জে পুলিশের নায়েক আবু হানিফের সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৫ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৭:০৭ | করিমগঞ্জ  


নরসিংদীর রায়পুরার চরে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সন্ত্রাসীদের হাতে গুলিবিদ্ধ হওয়া পুলিশের নায়েক আবু হানিফকে সংবর্ধনা দিয়েছে তার নিজ এলাকার জনগণ। বুধবার (১৪ আগস্ট) দুপুরে নিয়ামতপুর স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে ‘করিমগঞ্জ উপজেলাবাসী’র ব্যানারে তাকে এই সংবর্ধনা দেয়া হয়।

নিয়ামতপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি আব্বাস উদ্দিনের সভাপতিত্বে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন জেলার প্রবীণ সাংবাদিক, লেখক ও গবেষক মু আ লতিফ।

এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন বিজ্ঞানকল্প লেখক ও কলামিস্ট আহমদ ফরিদ, জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বাচ্চু প্রমূখ।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন নিয়ামতপুর স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ সামসুল ইসলাম আমরু, জেলা কৃষকলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম, করিমগঞ্জ থানার এএসআই রুপম আহমেদ ও দৈনিক লাখোকন্ঠের কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি  আশরাফুল ইসলাম তুষার।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মু আ লতিফ আবু হানিফকে ‘বীর’ আখ্যায়িত করে বলেন, দেশের শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে পুলিশ বাহিনী প্রতিনিয়ত অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে পুলিশ তৎপর। নরসিংদীতে টেঁটাযুদ্ধ একটা ভয়াবহ বিষয়।  পুলিশ এগুলো নিয়ন্ত্রনে আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছে।

আবু হানিফ নিজের জীবন বাজি রেখে ওই টেঁটা সন্ত্রাসীদের দমন করতে গিয়ে পায়ে গুলিবিদ্ধ হন। কেটে ফেলতে হয়েছে পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুল। আবু হানিফ যে বীরত্বপূর্ণ কাজ করেছে তার স্বীকৃতি প্রয়োজন, যাতে করে অন্য পুলিশ বাহিনীর সদস্যরাও এমন ত্যাগ স্বীকার করে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আহমাদ ফরিদ বলেন, নায়েক আবু হানিফ তার জীবন বাজি রেখে সন্ত্রাসীদের ধরতে তার পায়ের একটি আঙ্গুল হারিয়েছে। তার পায়ে এখনো ৫ টি গুলি রয়েছে। এজন্য তার উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন এবং পিপিএম বা বিপিএম পদক পাওয়া তার অধিকার।

বিশেষ অতিথি জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বাচ্চু বলেন, আবু হানিফ তার সাহসী ভূমিকার জন্য বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর মুখ উজ্জ্বল করেছে। বাংলাদেশ সরকারের উচিৎ তাকে পদক দিয়ে পুরস্কৃত করা এবং তার উন্নত চিকিৎসার ব্যাবস্থা করা।

করিমগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতপুর ইউনিয়নের বাহিরচর গ্রামের মরহুম মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হাইয়ের সন্তান আবু হানিফ ২০১৭ সালের ২৬ মে নরসিংদীর রায়পুরার চরাঞ্চলের বাঁশগাড়ীর চরে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সন্ত্রসীদের ছোঁড়া একাধিক বুলেটে গুরুতর আহত হয়েছিলেন।

আহত হওয়ার পর কেটে ফেলতে হয় তার বাম পায়ের বৃদ্ধাঙুল। পায়ে রয়ে গেছে পাঁচটি গুলি। অনেককটা পঙ্গু জীবনযাপন করছেন আবু হানিফ।

সরকার থেকে তাকে এক লাখ টাকা দেয়া হলেও চিকিৎসা করতে গিয়ে তার প্রায় ৬ লাখ টাকা খরচ হয়ে গেছে। কিন্তু এখন আর চিকিৎসার খরচ মেটানোর মতো কোনো উপায় দেখছেন না আবু হানিফ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর