কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


খেলার মাঠ এখন পুরাতন স্টেডিয়াম


 মু আ লতিফ | ১৩ আগস্ট ২০১৯, মঙ্গলবার, ১২:০৫ | খেলাধুলা 


জানা যায়, কিশোরগঞ্জের খেলার মাঠটি (বর্তমান পুরাতন স্টেডিয়াম) ১৯১৪ খ্রিস্টাব্দে স্থাপিত হয়। মহকুমা লীগ শুরু হয় ১৯২৫ খ্রিস্টাব্দে এবং ১৯৫৯ থেকে ১৯৬১ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে এ মাঠে গ্যালারি নির্মাণ করা হয়।

গ্যালারির ধারণ ক্ষমতা ছিল মোট ৭ হাজার ৫০০। ওই সময় এ মাঠের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন শোলাকিয়ার মো. নূরুল ইসলাম তারা মিয়া। পূর্ব পাকিস্তানের তদানিন্তন গভর্নর আযম খানের বদান্যতায় স্টেডিয়ামটির গ্যালারি নির্মিত হয়েছিল।

পরে ঢাকা বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ, মহকুমা ও জেলা প্রশাসকদের সহায়তায় ও অন্যান্যের সাহায্যে স্টেডিয়ামটির উন্নয়ন সাধন করা হয়।

এরপরও সময়ের চাহিদার দিকে লক্ষ্য রেখে বৃহদাকারের পূর্ণাঙ্গ একটি স্টেডিয়াম নির্মাণে তৎকালীন জেলা প্রশাসক ম. শফিউল আলম উদ্যোগ গ্রহণ করেন।

তাঁর প্রচেষ্টায় সংগৃহীত হয় ১০ লক্ষ টাকা এবং জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ থেকে পাওয়া যায় ২ লক্ষ টাকা। এ টাকা দিয়ে ১৯৮৭ সালে পুরাতন কালেক্টরেট সংলগ্ন এলাকায় জমি কিনে নতুন স্টেডিয়াম নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হলেও বহু বছর পর এর নির্মাণ কাজ শেষ হয়। সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ২০০৬ সালে ৭ অক্টোবর এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

কিশোরগঞ্জের কৃতী সন্তান মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি স্মরণে বর্তমানে এ স্টেডিয়ামটিকে ‘শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্টেডিয়াম’ হিসেবে নামকরণ করা হয়েছে।

এ স্টেডিয়াম নির্মাণে তৎকালীন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সম্পাদক এমএ বারী খান উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছেন। এছাড়াও স্টেডিয়ামের জমি ক্রয়ের ব্যাপারে অধ্যক্ষ জালাল আহমদ ও মহিনন্দ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম মাহতাব উদ্দিন সক্রিয়ভাবে কাজ করেছেন।

কিশোরগঞ্জের বহু ক্রীড়াবিদ জাতীয় ও জেলা পর্যায়ে কোচ হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। তাদের মধ্যে মো. নজরুল ইসলাম রুমী, আবুল হাসেম, হাবিবুর রহমান, পৃথ্বীশ ভট্টাচার্য, মো. আবদুল করিম, একেএম ফারুক, মো. আবদুল্লাহ, খন্দকার আবদুল্লাহ মানু অন্যতম। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর