কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জের সোনালী ক্রীড়াঙ্গন


 মু আ লতিফ | ১২ আগস্ট ২০১৯, সোমবার, ১২:৩৪ | খেলাধুলা 


এখন আমি এখানকার ক্রীড়াঙ্গন বিষয়ে কিছু বলার চেষ্টা করবো। এতে কোন সন্দেহ নেই যে কিশোরগঞ্জের ক্রীড়াঙ্গন নান্দনিকতায় পরিপূর্ণ।

অনেকের মতে আমাদের এ অঞ্চলে অনার্য বা দ্রাবিড় যুগ থেকে গ্রামীণ নানা খেলার উদ্ভব হয়েছিল। এসব খেলার সঙ্গে প্রাচীন রাজনৈতিক ও সামাজিক ইতিহাস, রীতিনীতি ও বিশ্বাস মিশে আছে। ওইসব খেলার অধিকাংশই এখন বিলুপ্ত প্রায়।

এক সময় কাবাডি ও ফুটবলের একক রাজত্ব ছিল। এখন দৌড়-ঝাপ, সাঁতার অর্থাৎ এ্যাথলেটস ক্রীড়াঙ্গনের প্রধান আকর্ষণ। এমন অবস্থায় কিশোরগঞ্জের ক্রীড়াঙ্গনেও আধুনিকতার উত্তাপ লক্ষ্য করা যায়। কিশোরগঞ্জের ক্রীড়াঙ্গনে  নান্দনিকতার ছোঁয়া লেগেছে এবং এগিয়ে চলেছে।

বর্তমান পুরাতন স্টেডিয়ামটি এক সময় ‘খেলার মাঠ’ হিসেবে পরিচিত ছিল। ৬০-৭০ দশকে এই মাঠকে ঘিরেই এতদঞ্চলের গৌরবময় ক্রীড়াসৌধ নির্মিত হয়েছে,তৈরি হয়েছে খ্যাতিমান ক্রীড়াবিদ।

এঁদের মধ্যে প্রথমেই যার নাম উল্লেখ করতে হয়, তিনি হচ্ছেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিমান ফুটবলার চুনী গোস্বামী। যিনি এ মাঠ থেকেই তাঁর খেলোয়াড়ি জীবন শুরু করেন। পরে তিনি কলকাতার মাঠও কাঁপান।

এছাড়া এ মাঠের পরশ পেয়ে বহু ফুটবলার খ্যাতি অর্জন করেছেন। তাঁদের মধ্যে শোলাকিয়ার আব্দুর রহমান চাঁন মিয়া যিনি ১৯৫১-৫২ সালে আইএফ এর বিরুদ্ধে ঢাকায় ৩ টি ম্যাচ খেলেন।

তাড়াইলের মাহবুবুর রহমান চৌধুরী ছিলেন কৃতী ফুটবলার। তিনি চল্লিশের দশকে কোলকাতা মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের সেরা স্ট্রাইকার ছিলেন। তিনি ৩ বার অবিভক্ত বাংলার সেরা ফুটবলার নির্বাচিত হয়েছিলেন।

এছাড়াও তিনি ও শামছুদ্দিন আহমদ মঞ্জিল দীর্ঘদিন ফায়ার ব্রিগেডের হয়ে খেলেছেন। মীর্জা আলী মিয়া ১৯৫১-৫৭ সাল পর্যন্ত বিজি প্রেসে খেলেছেন এবং ১৯৫১ সালে পাকিস্তান অলিম্পিক স্পোর্টসে যোগ দেন।

কুঠিগির্দীর আব্দুল মোতালেব, ফুল মাহমুদ, শোলাকিয়ার মো আব্দুল মান্নান, গৌরাঙ্গবাজারের ফায়জুল হক (গোলকিপার) দীর্ঘদিন ঢাকার মাঠে খেলেছেন।

৫০ এবং ৬০ এর দশকে কিশোরগঞ্জের ফুটবল তারকা ছিলেন নিখিল, অনিল, রুকন উদ্দিন, আবু তাহের, হিরা, নীরা, অরুনাংশু, নেপাল, গিয়াস উদ্দিন খান, জহিরুল হক মঞ্জু, অবিনাস, লুৎফুর, মেন্ডিজ, সিরাজুল হক সিরু, মোস্তফা প্রমুখ।

এ্যাথলেটে তাড়াইলের মওদুদুর রহমান চৌধুরী ও সন্তোষ চন্দ্র দাস এর ছিল একচ্চত্র আধিপত্য।  মওদুদ একজন স্প্রিন্টার্স হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। দ্রুততম দৌড়বিদ হিসেবে সে সময় শিক্ষাঙ্গনে তাকে ‘মুভিং স্টার’ হিসেবে আখ্যায়িত করা হতো।

আরো পরে সুবল সরকার, আবদুল গণি, মাহবুব আলম, শাহজালাল মবিন, নেলি জেসমিন, রাফেজা বেগম, শাহনাজ পারভিন, মো. নাছির উদ্দিন, মো. ইসরাইলদের আধিপত্য দেখা যায়।

তাড়াইলের মো. আজহারুল ইসলাম (সার্জেন্ট) চাকতি নিক্ষেপ ও ভারত্তোলনে জাতীয়ভাবে সাফল্য অর্জন করেন। সাঁতারে ধনু মিঞা (আখড়া বাজার), সুনীল রায় (খড়মপট্টি),  মুক্তিযোদ্ধা এম এ আজিজ (জামিয়া রোড), কারার মিজান, কারার সামেদুল, নাজমুল হক, মোজাম্মেল হক, আবদুস সাত্তার বকুল, রাজু আহমেদ, মশিয়ুর রহমান পলাশ, হিমেল মিয়া, মুক্তা আফরুজ, রুমানার নাম উল্লেখ করা যায়।

অস্টগ্রামের যোগজীবন দত্ত ছিলেন বিখ্যাত ফুটবল খেলোয়াড়। দেশ বিভাগ পূর্বকালে কলিকাতা মোহন বাগানে নিয়মিত খেলতেন।

আরো উল্লেখযোগ্য: ফুটবলে, হাসুদাস (করিমগঞ্জ), জিতেন্দ্র রায় (আচমিতা), বজেন্দ্র রায় (কিশোরগঞ্জ), শৈলেন্দ্র রায় (কিশোরগঞ্জ), মনিন্দ্র লস্কর (রাকুয়াইল), শচীন্দ্র চক্রবর্তী (কিশোরগঞ্জ), চিনু রায় (বনগ্রাম), রুকুনদ্দীন (কোদালিয়া), যোগেন্দ্র চন্দ্র পাল (কিশোরগঞ্জ), খোকা চক্রবর্তী (কিশোরগঞ্জ), চারু বিশ্বাস (যশোদল), হীরেন্দ্র চক্রবর্তী (কিশোরগঞ্জ), বিভূতি চক্রবর্তী (কিশোরগঞ্জ), সত্যেন্দ্র নাগ (শ্রীনগর), সুরেশ বীর (কিশোরগঞ্জ), সুনীল মজুমদার (যশোদল), ঊষা মজুমদার (যশোদল) প্রমুখ।

টেনিসে- শৈলেন রায়, দেওয়ান মাহতাব, দেওয়ান মান্নান দাদ খান, ডা. শরফদ্দিন আহমদ প্রমুখ।

১৯৩৬ সালে কিশোরগঞ্জে শুরু হয় ‘রাধাশ্যাম মেমোরিয়াল চ্যালেঞ্জ শিল্ড’। এর দাতা ছিলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী কে.সি ঘোষ। এরপর ‘কালী কুমার শিল্ড’ নামে আরও একটি ফুটবল প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হতো।

এটি সম্ভবত বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত অব্যাহত ছিল। এ শিল্ডের দাতা ছিলেন খড়মপট্টি নিবাসী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও রেফারী জগদীশ চন্দ্র পন্ডিত। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর